20 Jan 2018 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 18 December 2017 শিক্ষা  (পঠিত : 319) 

বর্ণিল আয়োজনে ১২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

বর্ণিল আয়োজনে ১২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন
     

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক:উইমেন্স মেডিকেলের নেতৃত্বে সিলেট হবে মেডিকেল ট্যুরিজম নগরী
ঝাঁকজমকপূর্নভাবে যুগপূর্তি উদযাপন করেছে সিলেটের একমাত্র মহিলা মেডিকেল কলেজ সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ। বর্ণিল আয়োজনে সোমবার সকাল থেকেই নানা অনুষ্ঠানমালায় অংশ নিয়েছেন সিলেটের বিভিন্ন স্তরের গুনী ব্যক্তি ও এই মেডিকেল কলেজের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থী, শিক্ষকমন্ডলী, ডাক্তার, পরিচালক, শুভাকাঙ্ক্ষী ও সুধীজন।
১২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমদ বলেন, উইমেন্স মেডিকেল কলেজ শিক্ষার্থীদের যোগ্যতা ও শিক্ষার মান নিয়ে যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে আমার মনে হয় ভবিষ্যতে এই মেডিকেল কলেজ শিÿার্থীদের জন্য সেন্ট্রাল বেইজ হিসেবে স্থান করে নিবে। তিনি বলেন, সিলেট হচ্ছে পর্যটন নগরী, সেই হিসেবে সিলেট মেডিকেল ট্যুরিজমের সম্ভাবনাময় অঞ্চল। আমার মনে হয় সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ ‘মেডিকেল ট্যুরিজমে’ নেতৃত্বে দিয়ে মেডিকেল ট্যুরিজমকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। উইমেন্স মেডিকেলের মান উন্নয়নসহ যে কোন সমস্যা, সম্ভাবনায় তিনি সব সময় পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, সিলেট বিভিন্ন কারনে দেশের গুরুত্বপূর্ন এলাকা। তিনি সাবেক অর্থমন্ত্রী এম. সাইফুর রহমান, বর্তমান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত এবং শাহ এ.এম.এস কিবরিয়ার উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে হলি সিলেট হোল্ডিং লি. এর চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. এখলাছুর রহমান বলেন, আমরা সিলেটকে মেডিকেল নগরী গড়তে চাই। এজন্য আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, মানব কল্যানে কাজ করার লক্ষ্য নিয়েই এই মেডিকেলের যাত্রা। সেই জন্য আমরা সার্বক্ষনিক চিকিৎসা সেবার জন্য ২৪ ঘন্টা জরুরী বিভাগ খোলা রাখার ব্যবস্থা রেখেছি। উন্নত চিকিৎসা সেবার লক্ষ্যে আইসিইউ ও সিসিইউ চালু করা হয়েছে। মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার পর থেকে ৫০ ভাগ কোটা বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য রাখা হয়েছে।
সিলেট চেম্বার অব কমার্স এর সভাপতি খন্দকার শিপার আহমদ বলেন, প্রবাসীরা এখন দেশে বিনিয়োগ করতে ভয় পাচ্ছেন। উইমেন্স মেডিকেল কলেজের বেশি ভাগ বিনিয়োগকারী প্রবাসী উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রবাসীদের এই বিনিয়োগ সিলেটের চিকিৎসা সেবায় বড় ধরনে ভ‚মিকা রেখে চলেছে। যা দেখে অন্যান্য প্রবাসীরা দেশে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করছেন।
সিলেট প্রেসক্লাব সভাপতি ইকরামুল কবির বলেন, সিলেটে নারী শিক্ষায় সিলেট উইমেন্স মেডিকেল গুরুত্বপূর্ন ভ‚মিকা রেখে চলেছে। তিনি মেডিকেলের ভবিষ্যৎ সমৃদ্ধি কামনা করেন। হলি সিলেট হোল্ডিং লি. এর ভাইস চেয়ারম্যান মো. ফখরুল ইসলাম বলেন, সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ একটি চারা গাছ থেকে বড় হয়ে ১২ বছর পূর্ণ করেছে। আমরা বিশ্বাস করি এই প্রতিষ্ঠান শুধু দেশ নয় বিশ্বখ্যাতি অর্জন করবে। সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. এম.এ মতিন বলেন, শিক্ষার্থীদের মেধা, যোগ্যতা আর শিÿকদের দক্ষতায় আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। তিনি সফলতার ধারা অব্যাহত রাখার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উইমেন্স মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. রেজাউল করিম। প্রফেসর ডা. এম.এ সালাম, ডা. আল মোহাইমিন ও ডা. হোসাইন আহমদ এর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল অধ্যাপক ফজলুর রহিম কায়সার। এছাড়া বক্তব্য রাখেন শিশু বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ডা. মো. আজির উদ্দিন, সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মৃগেন কুমার দাস চৌধুরী, হলি সিলেট হোল্ডিং লি. এর সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা বশির আহমেদ, হলি ল্যান্ড প্রা.লি. এর চেয়ারম্যান মো. কামাল মিয়া, হলি সিলেট হোল্ডিং লিমিটেডের পরিচালক আবুল মুহসিন চৌধুরী ও এমদাদ হোসেন চৌধুরী, উইমেন্স মেডিকেলের পরিচালক লে.কর্ণেল সৈয়দ মোহাম্মদ আবতাহি, পরিচালক ডা. মো. শাহ আব্দুল আহাদ, সহযোগি অধ্যাপক ডা. শফিকুর রহমান, ডা. হিমাংশু শেখর, সাবেক শিক্ষার্থী প্রভাষক ডা. তাজকিয়া সুলতানা বকস, চতুর্থ বর্ষের বিদেশী শিক্ষার্থী পুজাগিরি, শিক্ষার্থীদের সংগঠন সঞ্জিবনীর সভাপতি ইফফাত আরা চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন সিলেটের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও প্রতিনিধিবৃন্দ।
এদিকে সোমবার সকাল ৯টায় মিরবক্সটুলাস্থ মেডিকেল কলেজ ক্যম্পাস থেকে মনোমুগ্ধকর র‌্যালি নগরবাসীর নজর কাড়ে। উইমেন্স মেডিকেলের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা.রেজাউল করিমসহ মেডিকেল কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, হলি সিলেটের চেয়ারম্যান ও পরিচালকবৃন্দ ও শত শত শিÿার্থীরা অংশ নেন। র‌্যালী নগরীর গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠানে এসে মিলিত হয়।


Free Online Accounts Software