20 Nov 2017 : Sylhet, Bangladesh :

বিশ্ব 14 November 2017 প্রবাস  (পঠিত : 1402) 

প্যারিসের প্রিয় মুখ কাজীটুলা তানিম এখন অনেকটা সুস্থ

প্যারিসের প্রিয় মুখ কাজীটুলা  তানিম এখন অনেকটা সুস্থ
     

সাইদুল ইসলাম অপু প্যারিসের প্রিয় মুখ সিলেট নগরীর কাজীটুলা এলাকার তানিম আহমদ হাসপাতালের বেডে এখন হাসছে।গত ২৫ সেপ্টেমর কলকাতা বেড়াতে এসে ব্রেন স্ট্রোক করেছিল।প্রথমে কলকাতা চিকিৱসা চলে পরে প্যারিসে তার চিকি/সা চলছে।বর্তমানে ডান হাত ও পা ঠিক হয়ে গেছে, কিন্তু নিজে নিজে হাঁটতে পারছে না এখনো, আরো কিছু দিন লাগবে। তার বন্ধু সাইদুল ইসলাম অপু, তার অসুস্থতার খবর পেয়ে কলকাতা চলে এসেছিলেন এবং কলকাতা থেকে প্যারিসে নিয়ে গিয়েছিলেন এবং তানিম এর অসুস্থতা এ চিকি.সার বিভিন্ন তথ্য অপু তথ্য দিয়েছিলেন এবং সিলেট এক্সপ্রেস থেকে নিউজ করা হয়েছিল।পূর্বে তার যে ২টি ানউজ হয়েছিলো তা হুবহু তুলে ধরা হলো।
সাইদুল ইসলাম অপু কাজিটুলার তানিম কে নিয়ে কলকাতা থেকে সুষ্টভাবে ১২ অক্টোবর প্যারিসে অবতরন করা হয়েছে বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার রাত ১১টা৪০মিনিটে প্যারিসে অবতরন করা হয়। তানিম কে নিয়ে কলকাতা থেকে
প্যারিসের উদ্দেশ্যে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় সকাল ৬ টা হাসপাতাল থেকে প্যারিসের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়া হয়।, প্রথমে কলকাতা থেকে দিল্লী পরে দিল্লী থেকে প্যারিস, প্রায় ১২ ঘন্টার বিমান যাত্রা, প্যারিস গারে দোঁ নর্দে অবস্থিত "লাখিবোয়াজেখ" হাসপাতালে থাকে নিয়ে যা্ওয়া হবে। গুরুতর অসুস্থ বন্ধু তানিমের সফর সঙ্গী হিসেবে আমি ছাড়াও তার লন্ডন প্রবাসী ছোট ও বড় দুলাভাই সাথে আছেন।
সাইদুল ইসলাম অপু কলকাতা থেকে গত ৫ দিন থেকে প্যারিসে অনেকেই আমার মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হচ্ছেনবলে নানা ভাবে উদ্যোগ প্রকাশ করছেন, আসলে গত ২৬ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল থেকে আমি কলকাতা অবস্থান করছি, কারণ তার আগের দিন সোমবার আমার জানে দোস্ত এবং প্যারিসের প্রিয় মুখ সিলেট নগরীর কাজীটুলা এলাকার তানিম আহমদ কলকাতা বেড়াতে এসে ব্রেন স্ট্রোক করে এবং কোমাতে চলে যায়, ঐ অবস্থায় আমি সহ প্যারিসে আমার বন্ধুরা এতটাই বিচলিত হয়ে পড়ি যে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন মাধ্যমে কাউকে তার অসুস্থতার খবরটি পর্যন্ত জানাতে পারিনি।

আলহামদুলিল্লাহ আশার কথা যে মৃত্যুর সাথে পান্জা লড়ে গতকাল সে কোমা থেকে ফিরে এসেছে, জ্ঞান ফেরার পর আমি তার কাছেই ছিলাম, তখন ডাক্তার আমাকে বললেন আপনি তাকে ডাক দিন সে শুনতে পাবে, আমি কয়েকবার তানিম তানিম বলে ডাকার পর কোন রকম চোঁখ খুলে আমার দিকে তাকালো, তারপর মনে হলো আমাকে পাশে দেখতে পেয়ে সে খুবই অবাক হলো, আমার বাম হাতটা কে তার বাম হাত দিয়ে শক্ত করে ধরে অঝোরে পানি ঝরাতে থাকলো, তার জ্ঞান ফেরার আনন্দে আমি তখন আত্মহারা, নিজেকে কোন ভাবে কন্ট্রোল করে তার কানে কানে বললাম আরে দোস্ত অবাক হওয়ার কিছু নাই, তুই চান্দে গিয়াও যদি বিপদে পড়িস তর এই পাগলা বন্ধুরা ঠিকই দেখবি তোর পাশে দাঁড়িয়ে আছে...

সে অনেক কথাই বলতে চাচ্ছিলো কিন্তু মুখ-নাক সহ সারা শরীরে লাগানো অসংখ্য যন্ত্রপাতির ভিড়ে আমার দিকে শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কিছুই বলতে পারলোনা, আমার বন্ধুর জন্য সবাই দোয়া করবেন প্লিজ, কিছু দিনের মধ্যে ডাক্তাররা তার মাথায় অনেক বড় একটি অপারেশন করবেন, তার পরই বুঝা যাবে তার শারীরিক অবস্থা কোন পর্যায়ে দাঁড়াবে, সবাই তানিমের জন্য দোয়া করবেন প্লিজ, প্লিজ, প্লিজ...

প্রসঙ্গত, তামিম দেশে থাকাকালিন সময়ে ফটো সাংবাদিকতা পেশায় জড়িত ছিলো। পরবর্তিতে উন্নত জীবনের আশায় সে প্রবাসে চলে যায়।



লেখক: সাংবাদিক, প্যারিসে বসবাসরত


Free Online Accounts Software