18 Dec 2017 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 12 October 2017 সমসাময়ীক লেখা  (পঠিত : 2155) 

এক সিএনজি চালকের সততার অনন্য দৃষ্টান্ত

 এক সিএনজি চালকের সততার অনন্য দৃষ্টান্ত
     

হারান কান্তি সেন:
অক্টোবরের ৯ তারিখ সোমবার সন্ধ্যা।আমেরিকা প্রবাসী সৈয়দা আশরাফুন্নছা,তাঁর সদ্য বিবাহিত পুত্র কলিম উদ্দিন চৌধুরী (হুমরান) ও ছোট ভগ্নিপতি যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী জামিল চৌধুরী সহ সিলেট শহরের হাউজিং এস্টেট থেকে CNG অটোরিক্সায় উঠেন-গন্তব্য কাজলশাহ।রাস্তায় তেমন কোন জ্যাম না থাকায় তারা খুব দ্রুত ওখানে পৌছান।ওই বাসায় ঢুকেই সৈয়দা আশরাফুন্নেছা'র খেয়াল হয় তিনি তো নিজের পার্টস ব্যাগ CNG তে ফেলে এসেছেন!তাৎক্ষণিক জামিল চৌধুরী আার হুমরান রাস্তায় যান,কিন্তু তৎক্ষণে CNG উদাও।
এদিকে ওই পার্টস ব্যাগে আছে নগদ ৫০ হাজার টাকা,১০০০ ডলার,৬০০ পাউন্ড,১টি আইফোন,১টি স্যামসং এনড্রয়েড ফোন,কিছু স্বর্ণালংকার,USA'র আইডি কার্ড আর বিভিন্ন ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডসহ আরো,মহামুল্যবান কাগজপত্র!
সঙ্গত কারণে সবার মন খারাপ হয়ে যায়।তখন জামিল চৌধুরী হুমরানকে বলেন-" দেখ বাবা এখন অযথা চিন্তা না করে শুধু দোয়া(ইন্নালিল্লাহী..............রাজেউন)পড়তে থাকো। নিশ্চয়ই আল্লা সব কিছুর হেফাজতকারী এবং তিনি চাইলে তোমরা সব ফেরত পাবে!"
ইতোমধ্যে প্রবাসী জামিল চৌধুরী ব্যাগে থাকা মোবাইলে বার বার রিং দিতে থাকেন কিন্ত কেউ তা রিসিভ করে না।
মন খারাপ হওয়ায় সবাই বাসায় ফিরে আসেন দ্রুত।ঘড়িতে তখন সাতটা/সাড়ে সাতটা হবে।তারাও পার্চের আসা প্রায় ছেড়ে দেবার অবস্হায়, ওদিকে জামিল চৌধুরী ফোনও করে যাচ্ছেন অবিরত।হঠাৎ কে একজন ওপাশ থেকে ফোন রিসিভ করে বলে -"আমি গাড়ী বন্ধ করতে জিন্দাবাজার গিয়ে দেখি আপনাদের ব্যাগ পড়ে আছে,এখন কোথায় নিয়ে আসবো বলুন তো?"সাধারণ এক CNG চালকের মুখ থেকে এমন কথা শুনে জামিল চৌধুরী নিজের কানকে যেন বিশ্বাস করাতে পারছিলেন না-তাঁর তো আক্কেলগুড়ুম!হারিয়ে যাওয়া পার্টস ব্যাগে কমবেশী পাঁচলক্ষ টাকা(টাকা,ডলার,পাউন্ড ইত্যাদি)রয়েছে যা দিয়ে অনায়াসে একটি নতুন CNG কেনা যায়!কিন্তু এতসব লোভের কামড়ের কাছে পরাজিত না হয়ে লোকটি কি সত্যি আসছে-নাকি গা ঢাকা দিচ্ছে!হাউজিং এস্টেট গেটের সামনে দাঁড়িয়ে জামিল চৌধুরী এসব ভাবছেন আর CNG চালকের অপেক্ষা করছেন-এমনি সময় লোকটি এসে উপস্হিত হলো।তারা দু'জন লোকটিকে দ্রুত বাসায় নিয়ে বসালেন। এবার CNG চালক বললো-"দেখুন আপনাদের সবকিছু ঠিকমত আছে কিনা?"তারা দ্রুত ব্যাগ খুলে দেখলেন টাকা,ডলার,পাউন্ড সব ঠিকমত আছে।সাথে সাথে আমেরিকার ডালাস প্রবাসী ধর্মপ্রাণ জামিল চৌধুরী বেশ আবেগাপ্লুত হয়ে CNG চালককে জড়িয়ে ধরে বললেন-"আপনাদের মত সৎ মানুষদের জন্য এখনো দুনিয়া টিকে আছে।নিশ্চয়ই আল্লাহ তায়ালা আপনার দুনিয়া আখেরাত ভাল করবেন।"
৩৫/৪০ বছর বয়সের গায়ের রং শ্যামলা মাঝারী গড়নের ফুল শার্ট পরা CNG চালকটির মুখে দাড়ি,মাথায় টুপি,কাঁধে গামছা।হাসান (পরিচিত মহলে সবাই তাকে স্নেহ করে ছুইট্টা ডাকেন)নামক এই ব্যাক্তি মাতা,স্ত্রী,দুই সন্তান নিয়ে শহরের শাহী ঈদগায় বসবাস করেন-মুল বাড়ি ব্রাম্মণবাড়িয়ায়।জামিলভাই CNG চালককে তার নাম জিঞ্জেস করেছিলেন শুনেছিলেনও কিন্তু ভুলে গেছেন। ঘটনাটি জামিলভাই আমাকে ফোন দিয়ে বলেন এবং তা আরো মানুষকে জানানোর জন্য তিনি অনুরোধ করেন।
আমার সবচেয়ে প্রিয় শৈশব-কৈশোরের মধুর স্মৃতিময় সিলেট শহরে আজ অনেকেই নিরাপদ নয়।এই তো জুলাই মাসের কোন এক সন্ধ্যায় আমি দরগাগেট থেকে CNG তে উঠে সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারী চক্রের কবলে পড়ি যার মুল হোতা ওই CNG চালক।যদিও ওই যাত্রায় আমি বাস্তব অভিঞ্জতায় আর নিজের বুদ্ধিমত্তায় নিরাপদে বন্দর এসে নামি।অবাক করা ব্যাপার হলো একই শহরে যেমন কিছু অসত ও বদ CNG চালক আছে সেখানে আমার এই CNG চালক ভাইটির মত অতি সৎ মানুষরাও আছে।নিশ্চয়ই পরম করুণাময় এই সৎ CNG চালক ভাইটিকে তার যোগ্যতম পুরস্কার দিবেন।
বিঃদ্রঃকেউ এই CNG চালকের নাম জেনে থাকলে দয়া করে আমাকে জানাবেন।


Free Online Accounts Software