ভালোবাসার লাল পাথর
   22 Oct 2017 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 5 October 2017 সাহিত্য-সংস্কৃতি  (পঠিত : 313) 

ভালোবাসার লাল পাথর

ভালোবাসার লাল পাথর
     

এমরান ফয়সল :
বুলবুলি নীড়ে ফিরে এসে দেখে ঠোঁটে ফুলের পাঁপড়ি নিয়ে বুলবুল অনেক আগেই
গাছের ডালে বসে আছে।বুলবুলি বলে-আমি এবারও হেরে গেলাম বুলবুল। তবে জেনে
রাখো ,আমি একদিন তোমাকে প্রেমে হারাবোই।
বুলবুল হেসে বলে- যেদিন তুমি আমাকে হারাবে সেদিন তুমি একটা লাল পাথর হয়ে যাবে। পাখি কি
কোনোদিন লাল পাথর হয়? তাই তুমি পাথরও হবেনা, আমাকে হারাতেও পারবেনা।
পাশে এক মুনিয়া পাখী। বাতাসে তার মিষ্টি শিশ ভেসে আসে। মুনিয়া বলে- " ভালোবাসার রঙ লাগে
যার, শরীর টুকটুকে লাল হয় তার।"
বুলবুলি সে কথা শুনে বলে,- দেখো কী সুন্দর এক লাল কৃষ্নচূড়া। লাল রঙ দেখলেই আমার
বুকের ভিতর ভালোবাসা নদী উদ্বেলিত হয়। রোমান্চিত রেণু পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।
বুলবুল দূরে উড়ে যায়। ফিরে আসে কিছুক্ষণ পরে। বুলবুলি দেখে কী অপরুপ টুকটুকে লাল
হয়ে ফিরে এসেছে বুলবুল। দেখতে কী যে ভালো লাগে। কিন্তু একি। বুলবুলি কি যেন
ভেবে পাশেই গোলাপ কাননে উড়ে যায়। গিয়ে দেখে গোলাপের কাঁটায় কাঁটায় লেগে
আছে বুলবুলের পালক।
বুলবুলি মনে মনে বলে- আমিও একদিন আরো বেশী লাল হবো। একেবারে রক্তলাল শাড়ী
পরে তোমার সামনে এসে দাঁড়াবো।
তারপর, কতবার ঠোঁটে সবুজ ঘাস, সোনা ঝরা ধান, নতুন মন্জরি , হলুদ পাতা ,পুষ্পরেণু নিয়ে এসে
বুলবুলি দেখে বুলবুল অনেক আগেই নীড়ে ফিরে বুলবুলির অপেক্ষায় পথ চেয়ে আছে।
ভালোবাসার কোনো প্রতিযোগিতায় সে বুলবুলকে হারাতে পারেনা।
কালকের দিনটি তবে একেবারে অন্যরকম। এ প্রতিযোগিতায় ওকে জিততেই হবে। ও যে বড়
বেশী ভালোবাসে ওর বুলবুলকে।
প্রচন্ড শীতের রাত। ভোরের প্রথমলগনে ফুটবে শীতের অতি দূর্লভ নার্গিস ফুল। সেই
প্রথম ফোঁটা ফুলের রেণু যে নিয়ে আসতে পারবে সেই জিতবে।নীড়ে বুঝি দুজনার
প্রতীক্ষার প্রহর আজ শেষ হয়না। ব্যথা আর কুয়াশার ভিতর একসময় সন্ধ্যা নামে।
ভোরের আলো ফুটার আগেই বুলবুল আকাশে উড়াল দেয়। বুলবুলি যেন এতটুকুও বুঝতে না
পারে। প্রিয়তমার ঘুম ভাঙ্গার আগেই সে নিয়ে আসতে চায় প্রথম ফুটা পুষ্পরেণু।
নার্গিস বনের ওপর ফর্সা আভা একটু একটু করে পড়তে শুরু করেছে। বুলবুল খুব খুশী। ওযে
তার বুলবুলিকে কত বেশী ভালোবাসে। শ্রেষ্ঠতম প্রেমের নিদর্শণ নার্গিসের সৌরভে
বুলবুলিকে সে সুরভিত করবে।
বুলবুল বনে নেমে আসে। একপাশে গোলাপ। আরেক পাশে নার্গিস। একটু একটু করে উড়ে
সেই প্রথম কলি ফোঁটা নার্গিস ফুলটির কাছে গিয়ে প্রিয়তমার জন্য পুষ্পরেণু তোলে নেয়।
এবার ঘুম থেকে জাগার আগেই বুলবুলিকে অবাক করে দেয়ার পালা।
কিন্তু হঠাৎ দেখে নিকটেই গোলাপ গাছটির নীচে নার্গিস ফুলের রেণু ঠোঁটে নিয়ে তার
গভীর প্রণয়ের প্রিয়তমা বুলবুলি রক্তলাল হয়ে শুয়ে আছে মাটিতে। আর কোমল দেহখানা
ঠান্ডায় জমে গিয়ে যেন নীরব, নিথর,নিস্তব্ধ এক পাথর হয়ে আছে।
বুলবুল বুঝতে পারে -প্রথম ফুটা নার্গিসের প্রেমমধু বুলবুলকে আগেই উপহার দেয়ার জন্য এই
প্রচন্ড শীতের রাতে বুলবুলি সারারাতভর নার্গিস বনেই কাটিয়ে আগ্রাসী শীতের কষ্ট সহ্য
করতে না পারে নিজেকেই সে মৃত্যুর কাছে সঁপে দিয়েছে। আর রক্তলাল হওয়ার জন্য
গোলাপের কাঁটায় ক্ষতবিক্ষত হয়ে লাল শাড়ি পড়ে আছে।
তার কথাই সত্যি হলো-প্রেমে জিততে গিয়ে প্রিয়তমা অবশেষে একটা লাল পাথর হয়ে
গেলো।
বুলবুলের চোখে নামে অশ্রু।গোলাপ সে কান্না দেখতে পেয়েও কিছুই করার থাকেনা। শুধু
তার পাঁপড়ি দুঃখ আর বিলাপ হয়ে দুজনার ওপর ঝরতে থাকে।

লেখক মেলা  এর অন্যান্য লিখাঃ

22 October 2017  ঘর পালানো মেয়ে

21 October 2017  অংকে আমি কাঁচা

20 October 2017  প্রিয়তমা

20 October 2017  আমার মা

12 October 2017  পরপারে তুমি উত্তীর্ণ হও


Free Online Accounts Software