17 Dec 2017 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 4 October 2017 অন্য পত্রিকার সংবাদ  (পঠিত : 618) 

নিজ দলেই চ্যালেঞ্জের মুখে মেয়র আরিফ

নিজ দলেই চ্যালেঞ্জের মুখে মেয়র আরিফ
     

ওয়েছ খছরু আগামী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নিজ দলেই চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে যাচ্ছেন সিলেটের বিএনপি দলীয় মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। প্রায় দুই মাস লন্ডন সফর শেষে সিলেটে ফিরেই আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়র পদে নিজের প্রার্থিতা ঘোষণা করেছেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম। গত শনিবার রাতে নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে মেয়র পদে এই প্রার্থিতা ঘোষণা করেন তিনি। এক এক করে সিলেট বিএনপির আরো কয়েকজন সিনিয়র নেতা প্রার্থিতা ঘোষণা করে ভোটযুদ্ধে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ফলে গেলো সিটি নির্বাচনের মতো এবারও নিজ দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হচ্ছে আরিফুল হক চৌধুরীকে। যদিও মেয়র আরিফ বলয়ের নেতারা মনে করছেন- দলীয় চ্যালেঞ্জে খুব সহজে উতরে যাবেন আরিফুল। কারণ- বর্তমান মেয়রকে বসিয়ে নতুন কাউকে প্রার্থী দেবে না বিএনপি। এজন্য মেয়র আরিফের আত্মবিশ্বাসও এবার আরো বেশি। মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থীর তালিকা দীর্ঘ হচ্ছে। মেয়র আরিফ সহ এবার বিএনপি দলীয় ৬ প্রার্থীই নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। তারা নিজেদের পক্ষে মাঠ গোছানোর কাজ চালাচ্ছেন। এর মধ্যে বেশ এগিয়ে আছেন মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন। তিনি গেলো বারও প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে অনেকখানি এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু দলীয় হাইকমান্ড আরিফুল হক চৌধুরীকে মনোনয়ন দেয়। পরে দলের সিদ্বান্ত মেনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী সবাই আরিফুল হক চৌধুরীর পক্ষে মাঠে কাজ করে বিজয় সুনিশ্চিত করেন। সেক্ষেত্রে বিএনপির সিনিয়র নেতা হিসেবেও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছিলেন নাসিম হোসাইন। এবার নাসিম হোসাইন মহানগর বিএনপির সভাপতি হওয়ায় তৃণমূল বিএনপিতে তার রয়েছে আলাদা ‘ইমেজ’। দলের সব শ্রেণির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে তার রয়েছে নিয়মিত যোগাযোগ। সম্প্রতি বিএনপির সদস্য সংগ্রহ অভিযান কর্মসূচির অংশ হিসেবে গোটা নগরী চষে বেড়াচ্ছেন নাসিম হোসাইন। নাসিম হোসাইনও জানিয়েছেন- সিলেট বিএনপি এখন অনেক শক্তিশালী। তৃণমূলের চাহিদা বিবেচনা করেই তিনি এবার দলীয় ফোরামে প্রার্থিতা চাইবেন। অর্ধশতাধিক মামলা মাথায় নিয়ে লন্ডনে ফেরারি রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক ও সিলেটের সভাপতি অ্যাডভোকেট সামসুজ্জামান জামান। জামান সিলেট বিএনপিতে তার আলাদা বলয় তৈরী করে ‘ইমেজ’ ধরে রেখেছেন। গত সিটি নির্বাচনে জামানও দলীয় ফোরামে মনোনয়ন চেয়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি মনোনয়ন পাননি। এবার মেয়র হিসেবে আরিফুল হক চৌধুরীর সঙ্গে জামান বলয়ের সখ্য নেই আবার বিরোধও তেমন নেই। তবে- জামান এবার মেয়র পদে দলের কাছে প্রার্থিতা চাইবেন। ইতিমধ্যে জামানকে নিয়ে তার বলয়ের নেতারাও ছক সাজাতে শুরু করেছেন। তারা বলেন- বিএনপি থেকে মনোনয়ন পেলেই জামান হুলিয়া মাথায় নিয়ে দেশে ফিরে আসবেন। প্রয়োজনে কারাবন্দি থেকেও তিনি নির্বাচন করবেন। তবে- সব কিছু নির্ভর করবে দলীয় সিদ্ধান্তের উপর। এছাড়া প্রার্থী হতে চাইছেন সিলেট মহানগর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাইয়ূম জালালী পংকি। গেলো সিটি নির্বাচনেও তিনি বিএনপির সমর্থন চেয়েছিলেন। কিন্তু বিএনপি থেকে তিনি সমর্থন না পাওয়ায় নির্বাচনে প্রার্থী হননি। গেলো সিটি নির্বাচনের পর থেকে আব্দুল কাইয়ূম জালালী পংকি প্রার্থী হওয়ার জন্য জোর লবিং চালাচ্ছেন। আর মহানগর বিএনপির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম শনিবার প্রার্থিতা ঘোষণা করলেন। এদিকে- মেয়র পদে এবার বিএনপির কাছে জোরেশোরে প্রার্থিতা দাবি করবেন সিলেট সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ ও মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি রেজাউল হাসান কয়েস লোদী। কয়েস লোদী নির্বাচিত প্যানেল মেয়র হলেও বিএনপি দলীয় মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী তাকে দায়িত্ব পালন করতে দেননি। এ কারণে গত চার বছর ধরে আরিফের সঙ্গে তার বিরোধ অনেকটা প্রকাশ্য। একাধিকবারের কাউন্সিলর হিসেবে কয়েস লোদী দলীয় হাইকমান্ডের কাছে এবার মেয়র পদে লড়াই করার জন্য অনুমতি চাইবেন বলে জানান তার ঘনিষ্ঠজন। ইতিমধ্যে বিএনপির অভ্যন্তরেও তিনি এ নিয়ে আলোচনা শুরু করেছেন।মানবজমিন ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে | ৪ অক্টোবর ২০১৭, বুধবার


Free Online Accounts Software