একটু মানবতা খুব প্রয়োজন-পথ শিশুদের
   22 Oct 2017 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 3 October 2017 সমসাময়ীক লেখা

একটু মানবতা খুব প্রয়োজন-পথ শিশুদের

একটু মানবতা খুব প্রয়োজন-পথ শিশুদের
     

এমরান ফয়সল : আজকের শিশু আগামীদিনের ভবিৎষত। বর্তমানের শিশুরাই হবে আগামীর দেশগড়ার কারিগড়। ‘শিশু’ শব্দটি শুনলে মানুষের মনে অফুরান ভালোবাসা জেগে উঠে। পরিবারে একটি শিশুর উপস্থিতি মানেই আনন্দ উত্সবের খোরাক। তাদের সঙ্গে সময় কাটাতে কার-না ভালো লাগে? শিশুরা নিষ্পাপ, ফুলের মতো পবিত্র। তাদের প্রতি সবার ভালোবাসা এবং মনোবিকাশের জন্য প্রয়োজন একটি সুস্থ পরিবেশ।প্রতি বছরের মতো এভারো ‘পেল শিশু অধিকার খুলবে নতুন বিশ্বদ্বার এই প্রতিপাদ্যকে ঘিরে ২ অক্টোবর ২০১৭ বিশ্ব শিশু দিবস উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমী সিলেট এর আয়োজনে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়েছে।কিন্তু নগরীর জিন্দা বাজার এলাকায় মাঝে মাঝে চুখে পড়ে পথশিশুদের, তেমনি আজ বোনকে আগলে ধরে অসহায় পড়ে রয়েছে দুটি শিশু। শিশুটির নাম জানতে চাইলে সে চিৎকার করে বলে, নাম জানে করবেনটা কি, তখন আদর করে বলা হলো তোমাদের বাড়ী কোথায়, সে আরও বলে বাড়ী দরকার কি, তখন ছোট শিশুটি গুমে, বাবার নাম জিজ্ঞাসা করা হলে ছেলেটি কান্না কাটি করে। আসলে তার বাবার পরিচয় সে জানে না। শুধু সে জানে মা বাসায় কাজ করে। তার নাম মিলন-তার ছোট বোনের নাম মৌসমী।এদিকে দরিদ্র ও অসচ্ছল পরিবারের চিত্র উল্টো। আবার যাদের পিতা-মাতা এই পৃথিবীতে নেই তাদের জন্ম যেন আজন্ম পাপ। দরিদ্র ও অসচ্ছল পরিবারের সুবিধাবঞ্চিত প্রায় শিশুই নিতান্ত পেটের দায়ে ঝুঁকিপূর্ণ কাজগুলোকে তাদের নিত্যনৈমিত্তিক পেশা হিসেবে বেছে নিতে বাধ্য হচ্ছে। নিয়তির নিষ্ঠুর পরিহাসের শিকার সবচেয়ে বেশি এক শ্রেণির শিশুরা। আমাদের সমাজ তাদের আখ্যা দিয়েছে পথশিশু হিসেবে। সমাজ ব্যবস্থায় তাদের তেমন মূল্যায়ন করা হয় না। তারা তাদের ন্যায্য প্রাপ্য মৌলিক অধিকারগুলো থেকেও বঞ্চিত।আজ তারা এমন করুণ অবস্থায় অবস্থান করছে যে তাদের জীবনের এক ঘণ্টা সম্পর্কে কোনো লেখক লিখে শেষ করতে পারবেন না। তবে এটুকু সহজেই বলা যায়, আজ যারা পথশিশু তাদের যেন প্রকৃতি নেই, পরিবেশ নেই, অবুঝ শৈশব নেই, ভবিষ্যত্ চিন্তা নেই, পরিবারের অর্থ জোগান এবং নিজেদের ক্ষুধা নিবারণ করতে যেন তারা ব্যস্ত। আজ এমনভাবে বেড়ে উঠছে তারা যা ভবিষ্যত্ জাতির জন্য ভয় বা বিপদ, যা দেশ ও জাতির কাম্য নয়। আমরা আজ এতই স্বার্থপর হয়ে গেছি যে পথশিশু বা বঞ্চিত শিশুদের জন্য আমাদের সামান্য একটু ভালোবাসা নেই, আদর স্নেহ মায়া মমতা নেই। অবোধ শিশুরা কিছু বলতে পারে না, ক্ষুধার্ত মুখে আমাদের দিকে শুধু তাকিয়ে থাকে একটু আশায়, কিন্তু আমরা সামর্থ্যবান মানুষ তখন তাদের এড়িয়ে যাই। যার ফলে তারা বেছে নেয় অন্ধকার জগত্। আমরা কিছু সামর্থ্যবান মানুষ বড়ই স্বার্থপর, নিষ্ঠুর, যখন একটি ক্ষুধার্ত পথশিশু একটি টাকার জন্য হাত পাতে তখন তাকে তাড়িয়ে দিই। আবার যখন দুই-জিন পথশিশু অন্ধকার অলিগলিতে একা পেয়ে গলায় ছুরি ধরে তখন আমাদের কাছে যা থাকে আমরা সব দিয়ে দিই। তারা এভাবে বাঁচতে চায় না, তারা বাঁচতে চায় আমাদের ভাইবোন সন্তানদের মতো করে। কিন্তু সামর্থ্যবানরা তাদের দেখলেই মুখ ফিরিয়ে নেন। আমি বলি তারা প্রতিকূল পরিবেশের শিকার। এমন পরিস্থিতি এড়াতে চাই স্নেহ, মমতা, উদারতা। পথশিশু রোধে একটু মানবতার খুব প্রয়োজন। আজকের শিশুরাই আগামীর ভবিষ্যত্। তবে পথশিশুদের দুর্ভাগ্য, আমাদের সমাজের অনেকেই ভবিষ্যতের শিশু বলতে শুধু সচ্ছলদের সন্তানকে বুঝে থাকেন। সরকারের পাশাপাশি দেশের প্রতিটি সচ্ছল মানুষ পথশিশুদের প্রতি মমতা ও দায়বদ্ধতা নিয়ে এগিয়ে আসলে তারাও জাতির উন্নয়নে অংশীদার হতে পারবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।


Free Online Accounts Software