19 Aug 2017 : Sylhet, Bangladesh :

হবিগঞ্জ 12 August 2017 ব্যক্তিত্ব  (পঠিত : 1000) 

চোর ডাকাতদের পাশাপাশি অপরাধমূলক কর্মকান্ডে সহযোগিতাকারীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে

চোর ডাকাতদের পাশাপাশি অপরাধমূলক কর্মকান্ডে  সহযোগিতাকারীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে
     

চোর ডাকাতদের পাশাপাশি অপরাধমূলক কর্মকান্ডে যারা সহযোগিতা করবে তাদেরও আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলেও কঠোর হুশিয়ারী দিয়েছেন বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোজাম্মেল হক। সম্প্রতি বানিয়াচংয়ের কুখ্যাত ডাকাত সাইফুল ইসলাম ওরফে ঝিলকী পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত হওয়ার পর সকল অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে আরো কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে পুলিশ। বানিয়াচঙ্গের সার্বিক আইন শৃঙ্খলা নিয়ে সিলেট এক্সপ্রেস এর মুখোমুখি হয়েছিলেন ওসি মোজাম্মেল হক। স্বাক্ষাতকারটি নিয়েছেন সিলেট এক্সপ্রেস এর স্টাফ রিপোর্টার সাংবাদিক মখলিছ মিয়া।
সিলেট এক্সপ্রেস সম্প্রতি কুখ্যাত ডাকাত ঝিলকী পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার পর বানিয়াচঙ্গের পুরো আইনশৃঙ্খলার ব্যাপারে বর্তমানে কি পদক্ষেপ নিয়েছেন?
ওসি মোজাম্মেল হক সাইফুল ইসলাম ওরফে ঝিলকী ছিল চিহিৃত একজন ডাকাত। সে ডাকাত দলের অন্যতম সর্দারও ছিল। তার বিরুদ্ধে একটি হত্যা, চারটি ডাকাতি, একটি চুরির ও চারটি দ্রæত বিচার আইনের মামলা ছিল। তার বিরুদ্ধে ৮টি গ্রেফতারি পরোয়ানা বানিয়াচং থানায় মুলতবি ছিল। একজন মানুষ হাজার মানুষের অশান্তির কারন হতে পারে না। অপরাধী সে যেই হউক তাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসাই আমাদের কাজ। পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ঝিলকী নিহত হওয়ার পর শত শত মানুষ আমাদের কে ফোন করে ধন্যবাদ জানিয়েছে, এতে বুঝাগেল একজন অপরাধী সব সময়ই সমাজের চোখে একজন ঘৃনিত ব্যক্তি হিসেবে পরিচিতি পায়। ডাকাত ঝিলকী নিহত হওয়ার আগে তার কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ন অনেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি পাওয়া গেছে, এগুলো যাছাই বাছাই করে যে সকল অপরাধী এবং হোতাদের নাম পাওয়া গেছে তাদের বিরুদ্ধেও আমাদের অভিযান চলবে। চোর-ডাকাতদের পাশাপাশি এদের আশ্রয় এবং প্রশ্রয় দাতাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। কোন অপরাধীই আমাদের চোখের আড়ালে থাকতে পারবে না। পুরো বানিয়াচংকে অপরাধ মুক্ত করতে এবার নতুন ভাবে এগুচ্ছে পুলিশ। এ লক্ষে ইতিমধ্যে ১৫টি ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এ কার্যক্রমের আওতায় একজন বিট পুলিশ ১টি ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকবেন, অত্র ইউনিয়নের সকল প্রকার আইনশৃঙ্খলার দেখভালের প্রাথমিক দায়-দায়িত্ব তার উপর ন্যাস্ত থাকবে। বিট পুলিশ অফিসার সংশিøষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ নিয়ে সভা আহবান করে তার ইউনিয়নের আইনশৃঙ্খলার খোজ খবর নেয়াসহ চিহিৃত চোর, ডাকাত, মাদক সেবনকারী, বিক্রেতা, জুয়াড়ী এদের তালিকা তৈরী করে এদের গ্রেফতারে অভিযান পরিচালনা করা হবে। এছাড়াও পৃথক পৃথক ভাবে ১৫টি ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে অপরাধীদের গ্রেফতারে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হবে। এ অভিযানের চিহিৃত তালিকাভূক্ত অপরাধীদের গ্রেফতার করা সম্ভব না হলে তাৎক্ষনিক মাইকিং করে তার পরিচয় জনগনের সামনে তুলে ধরে হবে, পরবর্তীতে তাদের দেখামাত্র পুলিশকে খবর দিলে তাৎক্ষনিক অভিযান পরিচালনা করা হবে, তাদের গ্রেফতারের জন্য। অপরাধীদের কোন স্থান সমাজে হতে পারে না। তবে কোন অপরাধী যদি তার স্বীয় অপরাধ স্বীকার করে ভাল রাস্তায় আসতে চায়, এক্ষেত্রে পুলিশ তাদের সুযোগ দিবে ভাল হওয়ার জন্য। ইতিমধ্যে কঠোর গোপনীয়তার মধ্যে দিয়ে ১৫টি ইউনিয়নের চোর,ডাকাত, মাদক সেবী, বিক্রেতা, জুয়াড়ীসহ সকল অপরাধীদের নতুন তালিকা তৈরী করা হচ্ছে। বানিয়াচংকে মাদক মুক্ত করে একটি সুন্দর সমাজ বির্নিমানের লক্ষে ইতিমধ্যে মাদক সেবী, বিক্রেতা ও এর মদদ দাতাদের গ্রেফতারেও আমাদের অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত চিহিৃত বেশ ক’জন মাদক সেবী ও বিক্রেতা আমাদের হাতে গ্রেফতারও হয়েছে। আমার প্রতিটি অফিসারকে নির্দেশ দেয়া আছে যেখানে মাদক, সেখানেই অভিযান, যেখানে অপরাধ সংঘটিত হবে সেখানেই এ্যাকশনে যাবে পুলিশ।
সিলেট এক্সপ্রেস এসবের পাশাপাশি জনগনকে দ্রæত আইনী সেবা দেয়ার জন্য কি পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন?
ওসি মোজাম্মেল হক ‘জনতাই পুলিশ, পুলিশই জনতা’ বর্তমানে পুলিশ এবং জনগণ একে অপরের সহযোগিতায় পুলিশিং সেবা আগের চেয়ে অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে, কোথাও কোন অপরাধীকে গ্রেফতারে অভিযান চালালে জনতাও এগিয়ে আসে আমাদের সাহায্য করা জন্য। আমরাও জনগণকে সর্বাত্মক আইনগত সহযোগিতা প্রদানে সদা তৎপর আছি। আমাদের কাছে কোন লোক তার অভিযোগ নিয়ে আসলে তাৎক্ষনিক আমরা তাকে সহযোগিতা করতে সর্বাত্মক চেষ্টা করি। ২৪ ঘন্টা পুলিশিং সেবা পেতে একজন ডিউটি অফিসার সব সময় থানায় দায়িত্ব পালন করে থাকেন, প্রয়োজনে ডিউটি অফিসারের ০১৭৩৩-২৪১০৫১ এই নাম্বারে ফোন করে যে কোন সমস্যা আমাদের অবহিত করা যাবে। এর আলোকে আমরা ব্যবস্থা গ্রহন করবো। এছাড়া রাস্তায় চলাচল কারীদের সহযোগিতার জন্য প্রতিটি পুলিশ পয়েন্টে মোবাইল নাম্বার উলেøখ পূর্বক সাইনবোর্ড দেয়া হয়েছে। রাস্তায় চলাচলকারী কোন যাত্রী সমস্যায় পড়লে ওই সকল নাম্বারে ফোন করলে পুলিশ তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসবে। আমাদের বর্তমান পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা মহোদয়ও কঠোর হস্তে অপরাধীদের দমন করতে আমাদেরকে নির্দেশ দিয়েছেন। পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশ মোতাবেক আমরা প্রতি নিয়ত অপরাধীকে গ্রেফতারে অভিযান চালাচ্ছি। সকলের সহযোগিতা থাকলে বানিয়াচঙ্গে কোন অপরাধ এবং অপরাধী থাকতে পারবে না।
সিলেট এক্সপ্রেস আইন শৃঙ্খলার বিষয় নিয়ে খোলামেলা কথা বলার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
ওসি মোজাম্মেল হক আপনাদের সার্বিক সহযোগিতা আমরা আশা করি, সাংবাদিকগণ হচ্ছেন সমাজের দর্পন, সাংবাদিকদের সহযোগিতা থাকলে আমাদের কাজের গতি আরো বহুগুন বৃদ্ধি পাবে। সিলেট এক্সপ্রেস পরিবার এবং আপনাকে বিশেষ ধন্যবাদ আমাদের কাজে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য।


   অন্য পত্রিকার সংবাদ  অভিজ্ঞতা  আইন-অপরাধ  আত্মজীবনি  আলোকিত মুখ  ইসলাম ও জীবন  ঈদ কেনাকাটা  উপন্যাস  এক্সপ্রেস লাইফ স্টাইল  কবিতা  খেলাধুলা  গল্প  ছড়া  দিবস  দূর্ঘটনা  নির্বাচন  প্রকৃতি পরিবেশ  প্রবাস  প্রশাসন  বিবিধ  বিশ্ববিদ্যালয়  ব্যক্তিত্ব  ব্যবসা-বাণিজ্য  মনের জানালা  মিডিয়া ওয়াচ  মুক্তিযুদ্ধ  যে কথা হয়নি বলা  রাজনীতি  শিক্ষা  সমসাময়ীক বিষয়  সমসাময়ীক লেখা  সমৃদ্ধ বাংলাদেশ  সাইক্লিং  সাক্ষাৎকার  সাফল্য  সার্ভিস ক্লাব  সাহিত্য-সংস্কৃতি  সিটি কর্পোরেশন  স্বাস্থ্য  স্মৃতি  হ য ব র ল  হরতাল-অবরোধ