20 Nov 2017 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 12 May 2016 আইন-অপরাধ  (পঠিত : 1766) 

চেক ডিজঅনার মামলায় সিলেটের ব্যবসায়ীকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার

চেক ডিজঅনার মামলায় সিলেটের ব্যবসায়ীকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার
     

সিলেট এক্সপ্রেস ডেক্স সিলেটে ৬৮ লাখ টাকার চেক ডিজঅনার মামলায় আতিকুর রহমান এহিয়া নামের এক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোর ৬টায় ঢাকা পল্লবী থানা পুলিশকে সাথে নিয়ে মিরপুর ব্লক-সি, লেন-৪ এর ২০নং বাসা থেকে সিলেট মহানগরীর এয়াপোট থানা পুলিশ তাকে আটক করে। এরপর এএসআই শামীম এর নেতৃত্বে তাকে এয়াপোট থানায় নিয়ে আসা হয়।
আতিকুর সিলেট নগরীর আম্ববখানা দিগন্ত ৮, রায় হোসেন, ইলেট্রিক সাপ্লাই এলাকার মৃত্য আব্দুল মালিক‘র ছেলে।

তার বিরুদ্ধে ২০১৫ সালে সিলেটের আদালতে জুনেদ আহমদ নামে, এক ব্যক্তি ৬৮ লাক্ষ টাকার চেক জালিয়াতির মামলা (নং ১২৩৩/ ১৫ইং ) দায় করেন।
মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, আতিকুর রহমান এহিয়া পাথর ক্রয় করা জন্য জুনেদ আহমদ‘র কাছ থেকে ৬৮ লাক্ষ টাকা নেন। তিনি পাথর না দিতে পারায় ৬৮ লাক্ষ টাকার একটি চেক প্রদান করেন।
চেকটি ব্যাংকে প্রত্যাখ্যাত হয়। পরবর্তীতে জুনেদ আহমদ টাকা না পেয়ে লিগ্যাল নোটিশের মাধ্যমে টাকা পরিশোধের অনুরোধ জানানা। নোটিশ গ্রহণ করলেও আতিক টাকা পরিশোধ করেননি।

এরপর আদালত এহিয়া বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোওয়ানা জারি করেন। এর প্রেক্ষিতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এয়াপোট থানার এএসআই শামীম আহমদ গোপন সংবাদের বিত্তিতে তাকে ঢাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করেন। বর্তমানে তাকে এয়াপোট থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে।
আতিককে গ্রেফতারের খবর পেয়ে আরও কয়েকজন পাওনাদার থানায় হাজির হয়। তাদের পাওনা টাকা উদ্ধার জন্য মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছেন।
মৌখিক অভিযোগকারীরা হলেন, আম্বরখানার এলাকার মো: হোসেন বাবর ৪৫ লক্ষ টাকা, হামিদ ৪০ লক্ষ টাকা, জালালাবাদ এলাকার হেলাল ১০ লক্ষ টাকা, শাহী ইদগাহের দুলাল আহমদ ১০ লক্ষ টাকা, শিবগঞ্জ এলাকার মাসুদ আহমদ‘র ৬১ লক্ষ টাকা এবং দক্ষিণ সুরমা এলাকার জসিম উদ্দির ৬০ লক্ষ টাকা। এছাড়াও আরও অনেক পাওনা দার রয়েছেন বলে জানা গেছে।
এব্যাপারের এএসআই শামীম আহমদ জানান, এহিয়ার বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতি একাধিক মামলা রয়েছে।


Free Online Accounts Software