16 Dec 2017 : Sylhet, Bangladesh :

মৌলভীবাজার 7 May 2016 প্রকৃতি পরিবেশ  (পঠিত : 840) 

হাকালুকি হাওরে অকাল বন্যা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে হাজার একরের বোরো ধান

হাকালুকি হাওরে অকাল বন্যা
ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে হাজার একরের বোরো ধান
     

বিশ্বজিৎ রায়, কমলগঞ্জ প্রতিনিধি :অতিবৃষ্টি, সীমান্তের ওপার থেকে আসা, পাহাড়ি ঢল ও শিলাবৃষ্টিতে এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকিতে সহস্রাধিক একর জমির বোরো ধান নষ্ট হয়েছে। বোরো ধান তুলতে বৈশাখ মাসের অকাল বন্যার কারণে কৃষককুলকে প্রাকৃতিক বৈরিতার সাথে করতে হয়েছে।
তিন উপজেলার কৃষি কর্মকর্তাদের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর জুড়ীতে ১৩ হাজার ৪৬২ একর, কুলাউড়ায় ১৬ হাজার ৩০ একর ও বড়লেখায় ১০ হাজার ৪৯৮ একর জমিতে বিভিন্ন জাতের বোরো ধানের আবাদ হয়। চলতি এপ্রিল মাসের শুরু থেকে অতিবৃষ্টি, সীমান্তের ওপার থেকে এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও শিলাবৃষ্টিতে হাকালুকি হাওর তীরের জুড়ী উপজেলায় ১০০ একর, কুলাউড়া উপজেলায় ২৭০ একর এবং বড়লেখা উপজেলায় ১৬৩ একরসহ মোট ৫৩৩ একর জমির পাকা ও আধা পাকা বোরো ধান সম্পূর্ণভাবে নষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া ফেঞ্চুগঞ্জ ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা মিলিয়ে হাওর তীরের ৫ উপজেলায় প্রায় হাজার একরের বোরো ধান নষ্ট হয়েছে।
হাওর তীরের ভূকশিমইল ইউনিয়নের বাদে ভূকশিমইল গ্রামের সফর আলী বলেন, হাকালুকি হাওরের পাঁচ বিঘা জমিতে এবার তিনি ব্রি-২৮ জাতের বোরো ধানের আবাদ করেছিলেন। পাহাড়ি ঢলের পানিতে জমির পাকা ধান তলিয়ে যায়। পরে তড়িঘড়ি করে কিছু ধান কেটে আনেন। জুড়ীর বেলাগাও গ্রামের সাদিক মিয়া বলেন, ‘চাতলার (বিল) কাছে জমিন। পাহাড়ী ঢলের প্রথম ধাক্কাতেই ধান তলিয়ে গেছে। কাটার আর সুযোগই তিনি পাননি। একই এলাকার বর্গাচাষি আবু মিয়ার তিন বিঘা জমির ধান শিলাবৃষ্টিতে সম্পূর্ণটা নষ্ট হয়ে যায়।
কুলাউড়া উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা এম এম শাহনেয়াজ, জুড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দেবল সরকার ও বড়লেখা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ কুতুব উদ্দিন জানান, কুলাউড়ায় হাকালুকি হাওর পারের ভুকশিমইল, জয়চন্ডীর একাংশ ও ভাটেরার একাংশের ধান বেশি নষ্ট হয়েছে। জুড়ীতে জমি তলিয়ে গেলেও অনেকে ধান কেটে আনতে সক্ষম হয়েছেন। তবে শিলাবৃষ্টিতে বেশ কিছু জমির ধান নষ্ট হয়ে যায়। বড়লেখায় ৯০ শতাংশ জমির ধান কাটা হয়ে গেছে। অতিবৃষ্টির চেয়ে শিলাবৃষ্টিতেই ধানের ক্ষতি বেশি হয়েছে।


Free Online Accounts Software