16 Dec 2017 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 29 December 2015 নির্বাচন  (পঠিত : 1447) 

রাত পোহালেই সিলেট বিভাগের ১৬ পৌরসভা নির্বাচন

রাত পোহালেই সিলেট বিভাগের ১৬ পৌরসভা নির্বাচন
     

সাঈদ নোমান
রাত পোহালেই সিলেট বিভাগের ১৬ পৌরসভা নির্বাচন। নির্বাচনে ৭৬জন মেয়র ও ৬৩৬ জন কাউন্সিল প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। বুধবার সকাল ৮টা থেকে বিকেলে ৪টা পর্যন্ত ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে নির্বাচিত করবেন। এরপর বিজয়ের হাসি হাসবেন জনগণের ভোটে নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলররা। এদিকে, প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে স্থানীয় সরকারের নির্বাচন উপলক্ষে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন ।
নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, গতকাল সোমবার দিনগত রাত ১২টা থেকে বন্ধ হয়ে গেছে সকল প্রকার প্রচার প্রচারণা। তবে প্রচারণার শেষ সময় পর্যন্ত মাঠে ছিলেন প্রার্থী ও বিভিন্ন্ রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ। তীব্র শীত উপেক্ষা করে কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে প্রার্থীদের গণসংযোগ। আওয়ামীলীগ ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ নিজেদের দলীয় প্রার্থীর পÿে ভোট প্রার্থনা করে ঘুরেছেন ভোটোরদেরে দ্বারে দ্বারে। ভোটারদের নানা স্বপ্ন ও উন্নয়নের কথা শুনিয়েছন তারা।
সিলেট বিভাগের ১৬ পৌরসভায় ১৮৯টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে ব্যালট বাক্সসহ ভোটের সামগ্রী সংশিøষ্ট রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। ভোটগ্রহণের দিনে সকাল থেকে সেগুলো কেন্দ্রে কেন্দ্রে বিতরণ করা হবে, বুঝিয়ে দেয়া হবে ভোটগ্রণ কর্মকর্তাদের।
গতকাল থেকে চারদিনের জন্য মাঠে নেমেছেন নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা। বিভিন্ন পৌরসভায় বিজিবি সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। সাধারণ কেন্দ্রে ১৯ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ২০ জন ফোর্স দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া ভোটকেন্দ্রে কমপক্ষে পাঁচজন (অস্ত্রসহ) ও ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র্রে কমপক্ষে ছয়জন (অস্ত্রসহ) পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন।
জেলা নির্বাচন অফিসার আজিজুল ইসলাম জানান, শান্তিপুর্ণ ও সুষ্ঠু ভোট গ্রহণের জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। ঝুকিপূর্ন কেন্দ্রে সতর্ক ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।
সংশিøষ্ট সূত্রে জানা যায়, সিলেট বিভাগের ১৬ পৌর সভার মধ্যে সিলেট জেলার তিন পৌরসভা জকিগঞ্জ, কানাইঘাট ও গোলাপগঞ্জে মেয়র পদে ২১ জন, কাউন্সিলর পদে ১১৪ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ২২ জন প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন, সমানগঞ্জ জেলার সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক, দিরাই ও জগন্নাথপুর এ ৪টি পৌর সভায় ১৩জন মেয়র, ১৪৫ জন কাউন্সিলর ও ৪২ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন, মৌলভীবাজার জেলার মৌলভীবাজার সদর, কুলাউড়া, কমলগঞ্জ ও বড়লেখা পৌরসভায় মেয়র পদে ২১ জন ও ১৬৬জন কাউন্সিলর রয়েছেন,
এছাড়া, হবিগঞ্জ জেলার ৫টি পৌর সভা হবিগঞ্জ সদর, চুনারুঘাটে, মাধবপুর , নবীগঞ্জ ও শায়ে¯Íাগঞ্জে মেয়র পদে ২১ জন ও সংরক্ষিত মহিলাসহ ২৪৭ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন।
মেয়র প্রার্থীরা হচ্ছেন- সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌর সভায় আওয়ামীলীগের জাকারিয়া আহমদ পাপলু (নৌকা), বিএনপির গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহীন (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির মো. সুহেদ আহমদ (লাঙ্গল), খেলাফত মজলিসের আমিনুল ইসলাম (দেওয়াল ঘড়ি)। স্বতন্ত্র প্রার্থী সিরাজুল জব্বার চৌধুরী (মোবাইল ফোন), আমিনুর ইসলাম রাবেল (জগ) এবং আমিনুর রহমান লিপন (নারকেল গাছ)।

জকিগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমান (নৌকা), বিএনপির বদরুল হক বাদল (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির আব্দুল মালেক ফারুক (লাঙ্গল), খেলাফত মজলিসের জাফরুল ইসলাম (দেওয়াল ঘড়ি)। স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুক আহমদ (জগ) ও হিফজুর রহমান (মোবাইল ফোন) ।
কানাইঘাট পৌরসভায় আওয়ামী লীগের লুৎফুর রহমান (নৌকা), বিএনপির আব্দুর রহিম ভরসা (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির বাবুল আহমদ (লাঙ্গল), জাসদের তাজ উদ্দিন (মশাল), বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের হাফিজ মো. ইসলাম উদ্দিন (রিক্সা) । এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নিজাম উদ্দিন (নারকেল গাছ), মোহাম্মদ ওলিউলøাহ (মোবাইল ফোন) ও মো. সোহেল আমীন (জগ) ।
সুনামগঞ্জ সদর পৌর সভায় আয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী আইয়ুব বখত জগলুল ( নৌকা), বিএনপির শেরগুল আহমদ (ধানের শীষ) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী গণিউল সালাদিন (মোবাইল ফোন) ।
ছাতক পৌরসভায় আওয়ামীলীগের আবুল কালাম চৌধুরী (নৌকা), বিএনপির শামছুর রহমান শামছু (ধানের শীষ) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল ওয়াহিদ মজনু (মোবাইল ফোন) ।
জগন্নাথপুর পৌরসভায় আওয়ামীলীগের আলহাজ্ব আব্দুল মনাফ ( নৌকা), বিএনপি মনোনীত মোঃ রাজু আহমেদ(ধানের শীষ) এবং সতন্ত্র প্রার্থী নুরুল করিম (জগ)।
দিরাইয় পৌর সভায় আওয়ামীলীগের মোশারফ মিয়া (নৌকা), বিএনপির মঈন উদ্দিন চৌধুরী মাসুক (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির রফিক সরদার (লাঙ্গল) ও জাসদের মনোনীত প্রার্থী মোজাম্মেল হক (মশাল) ।
মৌলভীবাজার সদর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের ফজলুর রহমান (নৌকা), বিএনপির অলিউর রহমান (ধানের শীষ), ওয়ার্কার্স পার্টির সৌমিত্র দেব (হাতুড়ি), ইসলামী আন্দোলনের মো¯Íফা কামাল (পাখা) এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির সৈয়দ সুজাত আলীকে (আম) ।
কমলগঞ্জ পৌর সভায় আওয়ামী লীগের জুয়েল আহমদকে (নৌকা), বিএনপির আবু ইব্রাহীম জমশেদ (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির রফিকুল ইসলাম (লাঙ্গল), খেলাফত মজলিসের নজরুল ইসলাম (দেয়াল ঘড়ি), স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকারিয়া হাবিব (নারিকেল গাছ), হাসিন আফরোজ (জগ), মাসুক আহমদ (মোবাইল ফোন) ।
কুলাউড়ায় আওয়ামী লীগের এ কে এম সফি আহমদ সালমান (নৌকা), বিএনপির কামাল উদ্দিন আহমদ জুয়েল (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির মুহিবুর রহমান লাল (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী সফি আলম ইউনুস (নারিকেল গাছ) ।
বড়লেখা পৌরসভায় আওয়ামী লীগের আবুল ইমাম কামরান চৌধুরী (নৌকা), বিএনপির আনোয়ারুল ইসলাম (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির মীর মুজিব (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী মতিউর রহমান ইরাজ (জগ)ও আবদুন নূও (নারিকেল গাছ) ।
হবিগঞ্জ সদর পৌরসভায় আওয়ামীলীগের আতাউর রহমান সেলিম, বিএনপির আলহাজ্ব জিকে গউছ, আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান মিজান, ইসলামী শাসনতন্ত্র মনোনীত প্রার্থী আব্দুল কাইয়ুম, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি মনোনীত প্রার্থী আব্দুল কাদির।
মাধবপুর পৌরসভায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী হিরেন্দ্র লাল সাহা, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হাবিবুর রহমান মানিক।
চুনারুঘাট পৌরসভায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীসাইফুল আলম রুবেল, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নাজিম উদ্দিন শামছু।
শায়ে¯Íাগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ছালেক মিয়া, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ফরিদ আহমেদ অলি, বিএনপি’র বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মজিদ, আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী আতাউর রহমান মাসুক, স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুর রকিব, জালাল উদ্দিন রুমী, ন্যাশনাল পিপলস মনোনীত প্রার্থী খালেদা আক্তার।
নবীগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক তোফাজ্জুল ইসলাম, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ছাবির আহমেদ চৌধুরী, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মাহমুদ চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী জুবায়ের আহমেদ ও জাহাঙ্গীর আলম রানা।

এবার প্রথমবারের মত মেয়র প্রার্থীরা লড়ছেন দলীয় প্রতীকে। গত ১৪ ডিসেম্বর প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে পুরোদমে নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েন। এতে রাজনৈতিক দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরাও নির্বাচনী মাঠে জোরেশোরে প্রচারণায় নামেন। শীতের হাওয়া বাড়ার সাথে সাথে নির্বাচনী হাওয়াও জমে উঠে সিলেটের পৌর এলাকা গুলোতে।
তবে ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, পৌরসভা নির্বাচন হলেও আমেজ ছিল জাতীয় নির্বাচনের। দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন থেকে শুরু করে প্রচার-প্রচারণা সবই হয়েছে জাতীয় নির্বাচনের আদলে। শেষ পর্যন্ত নৌকা আর ধানের শীষ এর মর্যাদার লড়াইয়ে পরিণত হয়েছে। এই মর্যাদার লড়াইয়ে নৌকা না ধানের শীষ এগিয়ে যাবে, তা নিয়ে ভোটাররা চুলচেরা বিশেøষণ করেছেন।
গতকাল মধ্যরাতে শেষ হয়েছে নির্বাচনী প্রচারণা। তাই ভোটারদের সহানুভূতি আদায়ে শেষ সময়ের সুযোগটুকু সর্বোচ্চ কাজে লাগাতে ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত গণসংযোগ আর প্রচারণা চালিয়েছেন প্রার্থী ও তাদের সহযোগী নেতাকর্মীরা। তাদের সঙ্গে আনন্দের অনুভূতি নিয়ে গভীর রাতে জাগছেন ভোটাররাও। তাই শেষ সময়ে সার্বজনীন উৎসবের মাত্রা পেয়েছে এই নির্বাচনী প্রচারণা।
এদিকে, স্থানীয় এ নির্বাচনের ফলাফল আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যথেষ্ট প্রভাব ফেলবে তা বিবেচনায় রেখেই আওয়ামী লীগ বিএনপি ছক কষছে সর্বোচ্চ সতর্কতায়। আর ভোটাররাও হিসাব-নিকাষ মেলাচ্ছেন নানা দিক ভেবে। প্রচারণার ফুলঝুড়ি মুগ্ধ হয়ে শুনলেও কাকে ভোট দিলে এলাকার উন্নয়নের পাশাপাশি সমর্থিত রাজনৈতিক দলের সাফল্য ঘরে তোলা যাবে তার বিশেøষণও করেছেন ভোটাররা।
স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, প্রথম দিকে নানা প্রতিবন্ধকতায় বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় মেয়র প্রার্থীরা তোড়জোড়ে প্রচারণায় নামতে না পারলেও শেষ মুহূর্তে তারা মাঠে ছিলেন সক্রিয়।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) বিধি অনুযায়ী, গতকাল সোমবার রাত ১২টায় প্রার্থীদের প্রচারণা শেষ করতে হয়েছে। সে সঙ্গে ভোট শেষের পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টাও কোনো মিছিল-শোডাউন করা যাবে না। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মেনে ২৯ ডিসেম্বর দিবাগত রাত ১২টা থেকে ৩০ ডিসেম্বর দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। পৌরসভাগুলোতে বেবিট্যাক্সি, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক ও টেম্পো চলাচলে এ নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।
তবে, ইসি ও রিটার্নিং অফিসারের অনুমোদিত পরিচয়পত্রধারী ও নির্বাচন-সংশিøষ্টদের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর, জরুরি পণ্য সরবরাহ ও অন্যান্য প্রয়োজনে এ নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হয়েছে।
সংশিøষ্ট সূত্র আরো জানায়, এবার প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১জন করে প্রিজাইডিং অফিসার, প্রতিটি বুথে ১ জন করে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং প্রতিটি বুথে ২ জন করে পোলিং অফিসার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এছাড়া দু’ধাপে পৌর নির্বাচনে মাঠে থাকবে ম্যাজিস্ট্রেট এর একটি টিম। এর মধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট রয়েছেন।




Free Online Accounts Software