18 Aug 2017 : Sylhet, Bangladesh :

সিলেট 31 August 2014 সমৃদ্ধ বাংলাদেশ  (পঠিত : 5188) 

দেশের অন্যতম শহীদ মিনার নির্মিত হচ্ছে সিলেটে

দেশের অন্যতম শহীদ মিনার নির্মিত হচ্ছে সিলেটে
     

আহমাদ সেলিম: সিলেটে দেশের অন্যতম দৃষ্টিনন্দন শহীদ মিনারের নির্মাণকাজ এগিয়ে চলছে। প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে আধুনিক স্থাপত্যে নির্মিত এই শহীদ মিনার কাজ শেষ হবার আগেই মানুষের নজর কাড়ছে। এটি নির্মাণের মধ্য দিয়ে সময়ের প্রবাহে সিলেটের ঐতিহ্যের সাথে আরেকটি গৌরব যুক্ত হবে বলে মনে করছেন সিলেটবাসী।
শহীদ মিনারটি দেখে যে কেউ মুগ্ধ হবে। স্থাপত্য কলার অনন্য নিদর্শন শহীদ মিনারটিতে স্বাধীনতার প্রতীক হিসেবে সিলেট অঞ্চলের বিভিন্ন ঐতিহ্য ব্যবহার করা হয়েছে। উন্নত মম শিরের মতো স্তম্বের মধ্যে রাখা হয়েছের আমাদের মহান অর্জন স্বাধীনতার লাল সুর্য। আছে মাথা উচু করে দাড়াবার প্রত্যয়। কখনো দূর থেকে দেখলে মনে হবে উচু নিচু একটি পাহাড়, সবুজের হাতছানি। চারপাশে যেন লেগে আছে সারাক্ষণ পাহাড়ের ঢেউ। পাহাড়কে কেউ আবার ভাবতে পারে বহমান কোনো নদী। সিলেটের এরকম নানা ঐতিহ্য, সংস্কৃতি এবং বাঙালীর দির্ঘ সংগ্রামী চেতনাকে মাথায় রেখে নির্মিত হয়েছে আধুনিক স্থাপত্যে বাংলাদেশের অন্যতম আকর্যণীয় শহীদ মিনার। এখন অপেক্ষা কেবল উদ্বোধনের।
নানা করণে পর্যটকদের কাছে ঐতিহ্যবাহী জনপদ সিলেট। কালের বহু স্মৃতি, বহু স্থাপনা, তার নির্মাণশৈলী আজো সিলেটেকে দিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যের মর্যাদা। নিসর্গের ছায়া ডাকা সিলেট সময়ের প্রবাহে সেই ঐতিহ্যের সাথে আরেকটি দৃষ্টিনন্দন আধুনিক স্থাপত্য যোগ হলো। যার রুপ ঐশ্বর্য বিমোহিত করবে পর্যটকদের।
সিলেটের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেকেই মনে করেন, সবুজের অপরুপ সাজে সজ্জিত সিলেটে নির্মিত বিশাল আকৃতির শহীদ মিনারটি সিলেটের ইতিহাস ঐতিহ্যকে আরো সমৃদ্ধ করবে। পর্যটকদের হাতছানি দিয়ে ডাক দেবে তার লাবণ্য। সৌন্দর্য পিপাসুদের জন্য একটি দর্শনীয় স্থানও হতে পারে এটি। গত বছরের (২০১৪) ২২ ফেব্র“য়ারী সিলেট নগরীতে হেফাজতের একটি মিছিল জিন্দাবাজার থেকে আম্বরখানার দিকে যাচ্ছিল। এসময় মিছিল থেকে চৌহাট্রাস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়। তারপর শহীদ মিনারটি দির্ঘদিন ভাঙ্গা অবস্থায় ছিলো। পরে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সিলেট এসে শহীদ মিনার পরিদর্শন করেন। এসময় সিলেটের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শন শেষে তিনি শহীদ মিনারটি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পুণ:নির্মাণের জন্য সিলেট সিটি কর্পোরেশনকে নির্দেশ দেন। পরে বিষয়টি নিয়ে অর্থমন্ত্রীর সাথে বসেন সিলেটেন সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সবাই। তারা বর্ধিত পরিসরে নতুন আঙিকে শহীন মিনারটি পুণ:প্রতিষ্টার দাবী জানান। অর্থমন্ত্রী তাদের প্রস্তাবে সম্মতি দেন। পরে সেই প্রস্তাব অনুযায়ী সিলেট সিটি কর্পোশেন কাজ শুরু করে। এতে ব্যয় ধরা হয় প্রায় তিন কোটি টাকা। বর্তমানে কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। একশ ফুট চওড়া বিশিষ্ট ভুমির উপর পয়তাল্লিশ ফুট উচ্চতাবিশিষ্ট শহীদ স্তম্ভটির নির্মণ কাজ শেষ হলে আধুনিক স্থাপত্যে নির্মিত এটি বাংলাদেশের অন্যতম শহীদ মিনার হিসেবে সারা দেশে গৌরব পাবে বলে মনে করেন সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ।

সিটি কর্পোরশন আরো জানায়, শহীদ মিনারটি দৃষ্টিনন্দন করে তুলতে বিভিন্ন পরিকল্পনা রয়েছে। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজও চলছে। যেমন মূল স্তম্ভের পাশাপাশি শহীদ মিনার এলাকায় মুক্তমঞ্চ রাখা হবে। সাথে থাকবে প্রদশৃনী কেন্দ্র, পাঠাগার, ব্যাক স্টেইজ, অনুশীলন পরিসর, ড্রেসিং রুম। শহীদ মিনারের সম্মুখ চত্বরে নির্মিত হবে সিড়িঁ ও র‌্যাম্প। এগুলো ছাড়াও পুরো শহীদ মিনারের সৌন্দর্য বর্ধনে আরো কিছু কাজ করার পরিকল্পনাও রয়েছে।

শহীদ মিনারটির নকশা একেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শুভজিৎ চৌধুরী। এছাড়াও তার সহযোগী স্থপতি হিসেবে সাথে রয়েছেন কৌশিক সাহা, মো. সিপাউল বর চৌধুরী, ধীমান চন্দ্র বিশ্বাস ও জিষ্ণু কুমার দাস। প্রকৌশলী হিসেবে আছেন হুমায়ুন খান ও দেবাশীষ ভট্টাচার্য। সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত জানান, সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পেছনে বীর মুৃক্তিযোদ্ধা ও একনিষ্ঠ নাট্যকর্মীদের অবদান রয়েছে। নতুন দৃষ্টিনন্দন শহীদ মিনারে পেছনেও সিলেটের সংস্কৃতি কর্মীদের শ্রম জড়িয়ে আছে। এটি উদ্বোধনের ভেতর দিয়ে দির্ঘদিনের আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটবে। এই শহীদ মিনারকে কেন্দ্র করে আবার নতুন স্বপ্নে নতুন উদ্যমে সাংস্কৃতিক জাগরণ তৈরী হবে। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি নাজনীন হোসেন জানান, দির্ঘদিন পর সিলেটে সুন্দর একটি শহীদ মিনার হচ্ছে। ভাবতেও ভালো লাগছে। যাদের নিয়ে আমরা গর্ব করি সিলেটের সেই বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আজ বেশী মনে পড়ছে। তারা সেদিন উধ্যোগ না নিলে আজ এখানে শহীদ মিনারের কথা ভাবা যেতোনা। এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব জানান, আগামী ১৬ ডিওসম্ভর শহীদ মিনারটি উদ্বোধনের করার লক্ষে দ্রুতগতিতে কাজ চলছে। এধরণের শহীদ মিনার দেশে খুব কমই আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, একদিকে দৃষ্টিনন্দন বিশাল শহীদ মিনার অন্যদিকে পাশাপাশি আছে বুদ্ধিজীবিদের সমাধিক্ষেত্র। এটি দেখে যে কেউ মুগ্ধ হবে।

আরোও ছবি

দেশের অন্যতম শহীদ মিনার নির্মিত হচ্ছে সিলেটে


   অন্য পত্রিকার সংবাদ  অভিজ্ঞতা  আইন-অপরাধ  আত্মজীবনি  আলোকিত মুখ  ইসলাম ও জীবন  ঈদ কেনাকাটা  উপন্যাস  এক্সপ্রেস লাইফ স্টাইল  কবিতা  খেলাধুলা  গল্প  ছড়া  দিবস  দূর্ঘটনা  নির্বাচন  প্রকৃতি পরিবেশ  প্রবাস  প্রশাসন  বিবিধ  বিশ্ববিদ্যালয়  ব্যক্তিত্ব  ব্যবসা-বাণিজ্য  মনের জানালা  মিডিয়া ওয়াচ  মুক্তিযুদ্ধ  যে কথা হয়নি বলা  রাজনীতি  শিক্ষা  সমসাময়ীক বিষয়  সমসাময়ীক লেখা  সমৃদ্ধ বাংলাদেশ  সাইক্লিং  সাক্ষাৎকার  সাফল্য  সার্ভিস ক্লাব  সাহিত্য-সংস্কৃতি  সিটি কর্পোরেশন  স্বাস্থ্য  স্মৃতি  হ য ব র ল  হরতাল-অবরোধ