19 Jan 2018 : Sylhet, Bangladesh :

9 January 2014 অভিজ্ঞতা  (পঠিত : 6822) 

ভারতের মতিউর রহমান মাদানী কে অবান্ঞ্চীত ঘোষনা করা হউক

   

m abdullah bhuiya এর লিখা।   রঙের বাড়ই   পাতা থেকে

 

আহলে হাদীসের নামধারী এক জন আলেম মতিউর রহমান মাদানী বিভিন্ন ওয়েবসাইট,ইউটোব সহ নানান ভাবে বাংলাদেশের হক্কানী আলেমদের বিরুদ্ধে রিতীমত বিষোধাগার করে যাচ্ছে ৷যা অনেকেরই জানা থাকার কথা তাই এ নিয়ে মুহতারম মাওঃ মুহাম্মাদ হাবিবুর রহমান মিছবাহ - কুয়াকাটা ছাহেবের লেখা টি পাঠকদের উপস্হাপন করা হলো
**

মতিউর রহমান মাদানী বেশ কয়েক বছর পর্যন্ত বাংলাদেশের সকল আহলে হক আলেম ও ছহীহ ইসলামী সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে অপ-প্রচার চালিয়ে আসছে, আর বর্তমানে সে অপ-প্রচারের তীব্রতা আরো বেড়েছে। লক্ষ্য করলে দেখবেন, সে বা তারা যতো সমালোচনা ও মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে তা সব পরিক্ষিত আহলে হকদের বিরুদ্ধে। ওলামায়ে দেওবন্দ তো আছেন-ই। অথচ, আমরা কখনো মতিউর রহমান মাদানী গংদের নাস্তিক, নবীজির অবমাননাকারী কিংবা কুরআন প্রজ্জলনকারীদের বিরুদ্ধে বলতে শুনিনি। তাবলীগ, চরমোনাই, ক্বওমী মাদরাসাসহ কোনো হক কাফেলা-ই বাদ যায়নি তাদের অপ-প্রচারের খপ্পর থেকে। ওরা নাস্তিকদেরকে নাস্তিক বলতে ভয় পায়, তাই এবার নাস্তিক থেকে পাওয়া মোয়া খেয়ে আস্তিককে নাস্তিক বলতে শুরু করেছে। নাহয়, বাংলাদেশের একজন সার্বজনীন শ্রদ্ধেয় আলেম বুজুর্গ, হাজার হাজার আলেম, মুহাদ্দিস, মুহাক্কিক, মুফাচ্ছির, মুফতী এমনকি অসংখ্য পীরের উস্তাদ আল্লামা শাহ আহমদ শফী দা.বা.কে নাস্তিক বলার দুঃসাহস পায় কোথায়? এরপরও তাকে বাংলাদেশের আলেম সম্পর্কে সমালোচনা করার জন্য কি কেউ ভাড়া করেছে? তার জন্ম তো বাংলাদেশে নয়? মতিউর রহমান মাদানী ১৯৬৭ সালের ১০ জানুয়ারী ভারতের মালদায় জন্ম গ্রহণ করে, আর সে যে হতভাগ্য বাবার ঔরষ থেকে দুনিয়ায় এসেছে তার নাম আব্দুল হাকীম। সে তো কখনো ভারত কর্তৃক কাশ্মীরের নিরীহ মুসলমানদের উপর হামলা, বাবরী মসজিদে হামলা, মুসলমান ও ইসলামকে কটাক্য করে চলচ্চিত্র নাটক প্রদর্শনীর বিরুদ্ধে কখনো বলেনি? তাহলে বাংলাদেশ নিয়ে তার এতো মাথা ব্যাথা কেনো? বাংলাদেশ থেকে তাকে এখনই অবাঞ্চিত ঘোষনা করতে হবে এবং বাংলাদেশের আলেম ওলামা ও পীর মাশায়েখদের বিরুদ্ধে ওকে যারা ভাড়া করেছে, তাদেরকেও চিহ্নিত করতে হবে। স্মরণ রাখবেন, টুপিওয়ালা দেখলেই সব টুপিওয়ালার জন্য পাগল হওয়া যাবে না। কারণ, বাদশাহ নুরুদ্দীন রহ. এর জমানায় যে দু’জন ইয়াহুদী নবীজি স. এর দেহ মুবারক চুরি করার জন্য গিয়েছিলো, তারাও কিন্তু টুপিওয়ালা ছিলো, দান সদকা করতো, সারা দিন-রাত তছবীহ পড়তো, কিন্তু উদ্দেশ্য কি ছিলো? বাংলা ভাই শায়খ রহমানরাও জিহাদ ও ইসলামের কথা বলতো, কিন্তু তারা ইসলামের নামে কি করেছে তা তো আমাদের সবারই জানা। ঐ টুপিওয়ালা ইয়াহুদীরা নেই, শায়খ রহমান, বাংলা ভাইরাও নেই, তবে তাদের বাচ্চা পোনা এখনো রয়ে গেছে, আর তারাই হলো এই মতিউর রহমানরা। এদের থেকে যদি এখনো সতর্ক হতে না পারি, তাহলে সঠিকভাবে ইসলাম পালন করা কঠিন হয়ে পড়বে। ঐ যে দেখেন নি! এক জসীমুদ্দীন রহমানী ওলামায়ে দেওবন্দসহ দেশের আলেমদের বিরুদ্ধে অপ-প্রচার চালিয়ে, খেলাফতের দোহাই দিয়ে তার আড়ালে কি করতো? আল্লাহ তা’আলা আমাদের সকলকে এসমস্ত ইয়াহুদী খৃস্টানদের এজন্ডা বাস্তবায়নকারী, ইসলামের লেবাসে সরল মুসলমানদের ধোকাপ্রদানকারী হতে হেফাজত করুন, আমীন।


--- মুহাম্মাদ হাবিবুর রহমান মিছবাহ - কুয়াকাটা


Free Online Accounts Software