User Login | | নীতিমালা | 21 Jul 2017 : Sylhet, Bangladesh :
    সংবাদ : নিহত ব্যক্তির পরিচয় মিলেছে
গোলাপগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা    সংবাদ : নগরীতে ৬ ছিনতাকারী গ্রেফতার
  সংবাদ : সুনামগঞ্জ সড়কে আজ বিকেলে দুর্ঘটনায় নিহত ২  সংবাদ : সুনামগঞ্জ সড়কে দুর্ঘটনায় নিহত ১  সংবাদ : শতাধিক বন্যার্ত পরিবারের মাঝে 
আনোয়ার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের 
খাদ্যসামগ্রী বিতরন  সংবাদ : শতাধিক বন্যার্ত পরিবারের মাঝে 
আনোয়ার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের 
খাদ্যসামগ্রী বিতরন  সংবাদ : বানিয়াচং আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া দারুল কোরআন মাদরাসা দাওরা হাদীসে  উন্নীত  সংবাদ : সিলেটের চা বাগান  সংবাদ :   শাল্লায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদযাপন  সংবাদ : স্পর্শ   সংবাদ : দক্ষিন সুনামগঞ্জে মাদক বিরোধী সমাবেশ  সংবাদ : বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে
আছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  সংবাদ : পাইপগানের গুলিতে মারা যান লিটু  সংবাদ : সিলেটে যাত্রা শুরু করল ভোগ্যপন্য আমদানী 
কারক প্রতিষ্টান সিলেটে ইউকে লিমিটেড  সংবাদ : আটকে আছে জামায়াত নিষিদ্ধের প্রক্রিয়া  সংবাদ : চিকনগুনিয়া : ভয় নয়, জেনে রাখুন করণীয়   সংবাদ : বালাগঞ্জ উপজেলা ও কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা   সংবাদ : রশিদপুর বাগানে অসহায় ৪০০ নারী শ্রমিকের হাতে অনুদান তুলে দিলেন এমপি কেয়া চৌধুরী   সংবাদ : মাদক সম্রাট সেই শহীদ গ্রেফতার : মাদক ও অস্ত্র উদ্ধার  সংবাদ : বিছনাকান্দিতে সাঁতার কাটতে গিয়ে প্রাণ গেল পর্যটকের
sylhetexpress.com এর picture scroll bar এর code. এই কোড যেকোন website এ use করা যাবে।
| সিলেট | মৌলভীবাজার | হবিগঞ্জ | সুনামগঞ্জ | বিশ্ব | লেখালেখি | নারী অঙ্গন | ছবি গ্যালারী | রঙের বাড়ই ব্লগ |

আফতাব চৌধুরী

Web Address : www.sylhetexpress.com/lekhalekhiNew.php?writerID=48
আফতাব চৌধুরী এর লিখা
.: 6 July 2017 : সমসাময়ীক লেখা :.

প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দারিদ্র ও গণতন্ত্র



আফতাব চৌধুরী: একজন সাংবাদিককে সামনে পেয়ে শিশুর মতো ঝরঝর করে কেঁদে ফেললেন বন্যাকবলিত মধ্যবয়সী একজন কৃষক। আমি লোকটিকে ভালো করে দেখলাম। এমনিতে শক্তসমর্থ মানুষটি কোমর সমান পানিতে দাঁড়িয়ে কান্না থামাবার প্রাণান্ত চেষ্টা করেছিলেন। স্থানটি সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার বন্যা প্লাবিত একটি গ্রাম।
কাছেই ছিলেন স্থানীয় প্রশাসনের এক কর্মকর্তা। জেলা প্রশাসক কর্তৃক বন্যাপ্লাবিত এলাকায় ত্রাণকার্যে নিয়োজিত। তিনি বললেন, বলতে গেলে সিলেট জেলার বেশীর ভাগ উপজেলাই বন্যায় প্লাবিত, আমরা জেলা প্রশাসক এর নির্দেশে সাধ্যমতো সার্বিক সাহায্যের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের কাছে যতটুকু ত্রাণসামগ্রী ছিল সবই বিতরণ করা হয়েছে। আরো ত্রাণ আসছে, আমরা দিতেই আছি। ক্ষয়ক্ষতির খোঁজখবরও নেওয়া হচ্ছে নিবিড়ভাবে। ক্ষতিগ্রস্ত সকলেই সরকারি সহায়তা পাবে। কেউ বাদ যাবে না। ইতোমধ্যে পানি ভেঙে চারপাশ থেকে ছুটে আসে বন্যাদুর্গত আরো মানুষ। তাদের ঘরবাড়ি গরুছাগল সব ডুবে গেছে। তারা সমস্বরে নিজেদের দুঃখ-দুর্দশার কথা বলতে লাগল। অনেকেরই ক্ষেতের ফসল ভেসে গেছে। ঘরে খাবার নেই। ছেলেমেয়েরা কান্নকাটি করছে। বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই যে, দুর্যোগ তাদের পিছু ছাড়ছে না। অতি বর্ষণজনিত বন্যার ফলে একেবারেই বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন তারা।
বিপন্ন এই মানুষগুলোকে দেখে অন্য অনেকের মতো আমারও মন খারাপ হয়ে যায়। আমি বিচলিত হই। তবে আমি নিশ্চিত যে, সবাই সরকারকে দোষারোপ করবে। এটাই স্বাভাবিক। দুর্যোগ ও দারিদ্র্যকবলিত দেশে যারা সরকারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন, তাদের বিরুদ্ধে মানুষের অন্তহীন ক্ষোভ ও অভিযোগ নতুন নয়। এর জোড়ালো ভিত্তিও হয়তো আছে। তবে এটাই একমাত্র কারণ নয়। আমার ধারণা, সরকারের উপর ক্ষোভ ও অসন্তোষের সবচেয়ে বড়ো কারণটি হল জনগণের প্রত্যাশা ও বাস্তবতার বিস্তর ফারাক। এমনিতে তারা অল্পেই তুষ্ট।। কিন্তু দুর্যোগকালে সরকারের কাছে মানুষের প্রত্যাশা অনেক বেড়ে যায়। তারা চান, যেখানে যা কিছু ঘটুক সরকার তাদের পাশে এসে দাঁড়াবে। সাহায্য-সহযোগিতা করবে। হতদরিদ্র মানুষকে দোষ দিয়েও লাভ নেই। উপর্যুপরি দুর্যোগজনিত পর্বতপ্রমাণ অসহায়তা ও চরম দারিদ্র্যই তাদের মধ্যে এ ধরনের প্রত্যাশার জন্ম দিয়েছে। বিপদে-আপদে সরকার ছাড়া আর কারো কাছে যাওয়ারও তো উপায় নেই। এ অসহায়তা শুধু যে জনগণের তাও নয়, দরিদ্র দেশগুলোতে সরকারের অসহায়তাও কোনো অংশে কম নয়। তবে আমি বলব বর্তমান সরকার ও প্রশাসন বন্যা প্লাবিত মানুষদের সহায়তা প্রদানের সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হল, তৃতীয় বিশ্বের অপরিণামদর্শী কিছু রাজনৈতিক নেতা প্রায়শ বাস্তবতা বিস্মৃত হয়ে নিজেদের মধ্যে আত্মঘাতী হানাহানিতে লিপ্ত হন। এতে দুর্যোগে ও দারিদ্র্যে বিপন্ন মানুষগুলোর দুর্ভোগই শুধু বৃদ্ধি পায় না, একই সঙ্গে কখনও কখনও গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক ব্যবস্থাও বিপন্ন হয়ে পড়ে। ফলে গণতান্ত্রিক ও আইনের শাসনের অভাবে জনগণের দুর্ভোগ লাঘবের পথও রুদ্ধ হয়ে যায় দীর্ঘ সময়ের জন্য।
দারিদ্র্য ও দুর্যোগজনিত অসহায়তার ছবি নতুন বা আকস্মিক নয়। শত শত বছর ধরে এমনি চলে আসছে। চর্যাপদ থেকে শুরু করে মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যেও তার অসংখ্য উদাহরণ ছড়িয়ে আছে। স্বাধীনতা অর্জনের পর আমরা ধনে-মানে অনেক সমৃদ্ধ হলেও দারিদ্র্য ও দুর্যোগজনিত অসহায়তার সেই চিত্র খুব একটা পাল্টায়নি। এখনও অর্ধেকেরও বেশি মানুষের বসবাস দারিদ্র্যসীমার নিচে। এখনও কয়েক কোটি মানুষের জীবন-জীবিকা প্রকৃতির কৃপার উপর নির্ভরশীল। দুর্যোগ সাধারণ মানুষের চিরাচরিত অসহায়তার চিত্রটি যে তেমন বদলায়নি তা বোঝার জন্য খুব বেশি পেছনে যাওয়ার দরকার নেই। গত কয়েক দিনের বৃষ্টিপাতের ফলে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি পানিতে তছনছ হয়ে গেছে সিলেট জেলার কয়েক লক্ষ মানুষের জীবন-জীবিকা। বাঁধ ভেঙে তাদের ক্ষেতের ফসল ভেসে গেছে। ভাঙনের মুখে পড়েছে ঘরবাড়ি। সর্বস্বান্ত হয়ে পড়ে বহু পরিবার। সৃষ্টি হয় অভাবনীয় মানবিক বিপর্যয়ের। সর্বত্রই সর্বস্বান্ত মানুষের হাহাকার। ত্রাণসামগ্রী নিয়ে এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে ছুটে যেতে হচ্ছে স্থানীয় প্রশাসনকে। দাঁড়াতে হচ্ছে বিপন্ন মানুষের পাশে। এটা ভালো লক্ষণ।
শত শত মানুষ প্রশাসন প্রদত্ত আশ্রয়কেন্দ্রে স্থান করে নিয়েছে। তারা মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে। তাদের ঘরবাড়ি, ফসলের জমি সবই ডুবে আছে বন্যার পানিতে। কাজ নেই, খাদ্য নেই। নেই মাথা গোঁজার ঠাঁই। ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া বন্ধ। বিশুদ্ধ পানির জন্যও তাদের পাড়ি দিতে হচ্ছে দীর্ঘপথ। সরকারি সহায়তাই এখন তাদের একমাত্র ভরসা। বর্ষা এসে গেছে। অথচ বহু স্থানে বাঁধ মেরামতের জরুরি কাজটিও শেষ করা সম্ভব হয়নি। ফলে মানুষের দুর্ভোগ শুধু দীর্ঘায়িত হবে না, তা আরো চরম আকার ধারণ করবে। সরকারি সহায়তা ছাড়া বন্যাদুর্গত মানুষগুলোর বাঁচার উপায় নেই বললেই চলে। সিলেটের জেলা প্রশাসক জনাব রাহাত আনোয়ার ২রা জুলাই তার সম্মেলন কক্ষে সকাল ১০ টায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির এক জরুরী সভা আহবান করেন। একজন সক্রিয় সদস্য হিসাবে আমিও সেই সভাতে উপস্থিত ছিলাম। অন্যান্যদের মধ্যে ছিলেন পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ জেলার সকল পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিবৃন্দ। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জনাব সহিদুল ইসলাম চৌধুরীর সঞ্চালনায় বর্তমান বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলা ও পরবর্তী কার্যক্রম সম্বন্ধে বিস্তারিত আলোচনা হয় উক্ত সভায়। সভার সভাপতি জেলা প্রশাসক দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকারী ও বেসরকারী পর্যায়ের, সকল মহলের সহযোগীতা ও ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসের আহবান জানান। তিনি বলেন সরকার তৎপর, সজাগ ও সচেতন। সরকার থেকে প্রাপ্ত সকল প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি এবং নগদ টাকা বন্যা কবলিত মানুষদের মধ্যে বিতরণ করা হচ্ছে।
এ পরিস্থিতিতে সরকার কী করবে? ক’জনের পাশে দাঁড়াবে? সরকারের সামর্থ্যরেও তো একটা সীমা আছে। শুধু তাই নয়, দরিদ্র ও দুর্গত মানুষের দৈনন্দিন সমস্যা নিয়ে যদি সরকারকে ব্যতিব্যস্ত থাকতে হয়, তাহলে দারিদ্র্য দূরীকরণ ও উন্নয়নের বৃহৎ ও দীর্ঘমেয়াদি কাজগুলো সরকার কখন করবে? কিন্তু মানুষের দৈনন্দিন সমস্যা থেকে মুখ ফিরিয়ে থাকারও উপায় নেই। কারণ প্রত্যাশিত-অপ্রত্যাশিত নানা দুর্যোগ তো লেগেই আছে। এখানে সুস্থির হয়ে ভাবনাচিন্তার অবকাশই বা কোথায়?
সরকারের এ অসহায়তাকে বহুগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে নীতি-আদর্শ ও দেশপ্রেম বিবর্জিত কিছু অসাধু মানুষ। তারা প্রশাসনে যেমন আছে, তেমনি সরকারেও আছে। আছে সর্বত্রই। তারা দেশের কথা ভাবেন না, মানুষের দুঃখ-দুর্দশার পরোয়া করেন না। তারা শুধু নিজেদের আখের গোছানোর কথা ভাবেন। ভাগ-বাটোয়ারা ঠিক থাকলেই তারা খুশি। তাদের দুর্নীতি ও দায়িত্বহীনতার কারণে দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতির মাত্রাই শুধু বাড়ে না, সেই সঙ্গে সৃষ্টি হয় নতুন নতুন দুর্যোগের। বলা বাহুল্য এ অবস্থা একদিনে হয়নি। এটা দীর্ঘদিনের অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার ফসল। এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার একমাত্র নির্ভরযোগ্য পথ হল গণতন্ত্র ও আইনের শাসন। সর্ষের মধ্যে ভূত কমবেশি সব খানেই আছে।
আবহমান কাল থেকে দুর্যোগ ও দারিদ্র্য দেশের অধিকাংশ মানুষের নিত্যসঙ্গী। এ সবের হাত থেকে সহজে পরিত্রাণ মিলবে বলেও মনে হয় না। টিকে থাকার একমাত্র পথ হল, লড়াই। দুর্যোগ ও দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে নিরন্তর লড়াই করেই আমাদের টিকে থাকতে হবে। শুধু দাঁতে দাঁত চেপে কোনোমতে টিকে থাকলেই চলবে না, দুর্যোগ ও দারিদ্র্যকে পরাজিত করে এগিয়েও যেতে হবে সামনের দিকে। কাজটি কঠিন কিন্তু একেবারে অসম্ভব নয়। সাধারণ মানুষের অন্তর্গত বিপুল শক্তিকে সফলভাবে কাজে লাগাতে হলে গণতন্ত্রের কোনো বিকল্প নেই। দুর্যোগ ও দারিদ্র্যের মতো মহাপরাক্রান্ত দুই শত্রুকে পরাস্ত করতে হলে বর্তমান দুনিয়ায় গণতন্ত্রের চেয়ে কার্যকর হাতিয়ার যে আর কিছুই হতে পারে না তা ইতোমধ্যেই প্রমাণিত হয়ে গেছে। সাংবাদিক-কলামিস্ট।






আফতাব চৌধুরী এর সর্বাধিক পঠিত লিখা

.: : সমসাময়ীক লেখা :. (225 বার পঠিত)
প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দারিদ্র ও গণতন্ত্র


আফতাব চৌধুরী: একজন সাংবাদিককে সামনে পেয়ে শিশুর মতো ঝরঝর করে কেঁদে ফেললেন বন্যাকবলিত মধ্যবয়সী একজন কৃষক। আমি লোকটিকে ভালো করে দেখলাম। এমনিতে শক্তসমর্থ মানুষটি কোমর সমান পানিতে দাঁড়িয়ে কান্না থামাবার প্রাণান্ত চেষ্টা করেছিলেন। স্থানটি সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার বন্যা প্লা ...Details...


পাঠকের মতামত

Other Pages :

 
 অন্য পত্রিকার সংবাদ
 অভিজ্ঞতা
 আইন-অপরাধ
 আত্মজীবনি
 আলোকিত মুখ
 ইসলাম ও জীবন
 ঈদ কেনাকাটা
 উপন্যাস
 এক্সপ্রেস লাইফ স্টাইল
 কবিতা
 খেলাধুলা
 গল্প
 ছড়া
 দিবস
 দূর্ঘটনা
 নির্বাচন
 প্রকৃতি পরিবেশ
 প্রবাস
 প্রশাসন
 বিবিধ
 বিশ্ববিদ্যালয়
 ব্যক্তিত্ব
 ব্যবসা-বাণিজ্য
 মনের জানালা
 মিডিয়া ওয়াচ
 মুক্তিযুদ্ধ
 যে কথা হয়নি বলা
 রাজনীতি
 শিক্ষা
 সমসাময়ীক বিষয়
 সমসাময়ীক লেখা
 সমৃদ্ধ বাংলাদেশ
 সাইক্লিং
 সাক্ষাৎকার
 সাফল্য
 সার্ভিস ক্লাব
 সাহিত্য-সংস্কৃতি
 সিটি কর্পোরেশন
 স্বাস্থ্য
 স্মৃতি
 হ য ব র ল
 হরতাল-অবরোধ

লেখালেখি
ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অবঃ)
আব্দুল হামিদ মানিক
শফিকুল ইসলাম
প্রা. মেট্রোপলিটান ম্যাজিষ্ট্রেট
ইকবাল বাহার সুহেল
হারান কান্তি সেন
সেলিম আউয়াল
বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সল
এ.এইচ.এস ইমরানুল ইসলাম
জসীম আল ফাহিম
সৌমেন রায় নীল
সাকিব আহমদ মিঠু
রাহিকুল ইসলাম চৌধুরী
সালাহ্‌ আদ-দীন
ছাদিকুর রহমান
সাঈদ নোমান
জালাল আহমেদ জয়
আজিম হিয়া
মিহির রঞ্জন তালুকদার
পহিল হাওড়ী (মোঃ আবু হেনা পহিল)
শাহ মিজান
নারী অঙ্গন
নূরুন্নেছা চৌধুরী রুনী
মাহবুবা সামসুদ
আমেনা আফতাব
ইছমত হানিফা চৌধুরী
মাছুমা আক্তার চৌধুরী রেহানা
নীলিমা আক্তার
সুফিয়া জমির ডেইজী
আমিনা শহীদ চৌধুরী মান্না
রওশন আরা চৌধুরী
রিমা বেগম পপি
সালমা বখ্ত্ চৌধুরী
জান্নাতুল শুভ্রা মনি
মাসুদা সিদ্দিকা রুহী
আলেয়া রহমান
মাজেদা বেগম মাজু
নাঈমা চৌধুরী
অয়েকপম অঞ্জু
শামসাদ হুসাম
নাদিরা নুসরাত মাশিয়াত
তাসলিমা খানম বীথি

সাহিত্য-সংস্কৃতি পাতার আলোচিত লিখা
.: 4 weeks ago : :.
আশিক ভাইয়ের বিয়ের বরযাত্রী হয়েছিলাম আমরা (1640 বার পঠিত)
SylhetExpress.com

সেলিম আউয়াল:: মনে হচ্ছে এই সেদিন আমরা বরযাত্রী হয়ে আশিক ভাইয়ের শ্বশুর বাড়িতে গেলাম, সেই মাধবপুর। আশিক ভাই বরের সাজে বসেছেন। কোথাও খানিকটা অনিয়ম দেখলেই রাগ করেন। চেহারাটা রাগী রাগী হয়ে যায়। তখন তার ছোট বোনেরা তাকে মিনতি করছিলেন, ভাই তুমি রাগ করো না, তোমার চেহারাটা খারাপ হয়ে যায়। সেই আ Details...


.: 4 weeks ago : :.
ঈদের গান (615 বার পঠিত)
SylhetExpress.com

মোঃ আব্দুল হক:
ঈদ মানে হাসি হাসি
ঈদ মানে খুশি খুশি
হাঁটা হাঁটি পাশাপাশি
ঈদ মানে ভালোবাসি
ছোট বড় সবার হাসি।
ঈদ মানে কোলাকোলি
কথা বলি খোলাখুলি
ঈদ মানে হাতে তালি
ঈদ মানে পিঠা পুলি
এসো খাই সবাই মিলি
ঈদ মানে ঘোরাঘুরি
ঘুম ভাঙে তাড়াতাড়ি
লাল জামা লাল শাড়ি
শিশু আর ন Details...


.: 4 weeks ago : :.
একটি ছেলে ও ঈদ (447 বার পঠিত)
SylhetExpress.com

বদরুজ্জামান জামান :
স্বদেশ ছেড়ে একটি
ছেলের প্রবাস যাপন
ঈদের খুশি অপূর্ণ তার,
নেই কেউ আপন।
' প্রবাস যাপন আজকে
তার যুগের কাছে
স্বদেশ স্বজন অনুরণিত
চিত্ত নিয়ে বাঁচে ।
' একটি ছেলে ভাবে
ঈদ মানে সুখ বিলাস
সর্বজনীন ঈদ চাওয়া কি
শুধূই অভিলাষ ।
Details...


.: 2 weeks ago : :.
অবুঝ ভালবাসা (353 বার পঠিত)
SylhetExpress.com

মজিবুল হক হিরণ:
ও মেয়ে তোমার নাম কি বলতো শুনি
নাম! সে না হয় না শুনলে এখনি,
মেয়ে তুমি কি আমায় ভালবাস?
সে কি মুখে বলতে হয়
সারা জিবন কি পাশে রবে?
তাতো নিশ্চয়,
আচ্ছা যদি কভু হাড়িয়ে যাই নীল
আকাশের মাঝে
তখনো যে রইবো আমি রামধনু সাজে।
ঠিক আছে আমি য Details...


.: 2 weeks ago : :.
খেয়ালের চাঁদ মামা (235 বার পঠিত)

মোস্তাফিজুর রহমান:
চন্দ্র মামার গায়ে জামা
অমাবস্যাতিথিতে
তাইতো তার রূপের ছটা পরেনি
এসে পৃথিবীতে
সে নাকি সবার মামা এমনি এক
আপনজন
সম্পর্কের এই জটিলতা ছাড়াবে
কোন মহাজন।
গোধূলি বেলায় ঈদের চাঁদ
উকি দেয় আকাশে
যেন ঘোম Details...


.: 2 weeks ago : :.
প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দারিদ্র ও গণতন্ত্র (225 বার পঠিত)

আফতাব চৌধুরী: একজন সাংবাদিককে সামনে পেয়ে শিশুর মতো ঝরঝর করে কেঁদে ফেললেন বন্যাকবলিত মধ্যবয়সী একজন কৃষক। আমি লোকটিকে ভালো করে দেখলাম। এমনিতে শক্তসমর্থ মানুষটি কোমর সমান পানিতে দাঁড়িয়ে কান্না থামাবার প্রাণান্ত চেষ্টা করেছিলেন। স্থানটি সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার বন্যা প্লা Details...


.: 2 weeks ago : :.
শুনছো ? (222 বার পঠিত)

মোঃ আব্দুল হক:
শুনছো ? তুমি মেঘ হও
আমি মুক্ত মাঠে রইবো
দাঁড়িয়ে, তুমি ছু্ঁয়ে যাবে
আমার তপ্ত দেহ খানি,
আর ধুয়ে শীতল হবো,
অতৃপ্ত মনে শান্তিজল
টুপটুপ করে পড়বে,
শেষে গড়াগড়ি দুজনে,
মৃত্তিকা আমি আর তুমি।
শুনছো ? কলহাস্য ধ্বনি।
এ তো নদীর স্রোত নয়
চন্দ্র সূর্যের উদয়াস্ত,
Details...


.: 2 weeks ago : :.
অপেক্ষায় (218 বার পঠিত)
SylhetExpress.com

জামাল উদ্দিন জীবন:
আজও জানালা মেলে তাকিয়ে থাকি
তোমার ফিরে আসার অপেক্ষায় আমি
জানি তুমি ফিরবে না তবুও তাকাই
ভুল করে এসে বলো চলনা ঘুরে আসি।।
দু,নয়নের জলে বক্ষ ভেসে যায় তাতে
তোমার মনে হয় না মায়া আপনাতে
আমি স্বপ্ন দেখেছি আঁখির মাঝে তুমি
হৃদয়ের প্রান্তরে আঁকা আছে ছবি খ Details...


.: 3 days ago : :.
ফেসবুক ছড়া (217 বার পঠিত)

মোঃ আব্দুল হক:
আমাদের ফেসবুকে বড় বড় ছড়াকার
শিশুদের মুখে ছড়া সুকুমার বড়ুয়ার।
ফেসবুক ফেসবুক ছড়া নিয়ে কারবার
পড়ুক বা না পড়ুক লাইকটা দরকার।
সময়যে এসে গেছে তাড়াতাড়ি ভাববার
নিজেরাই নিজেদের বড় এক চাটুকার।
ছড়াকার গল্পকার লোক আছে বলবার
শিশুমন চায় জেনো তালদিঘি দেখবার।
Details...


.: 2 weeks ago : নারী অঙ্গন :.
সাইক্লোন (216 বার পঠিত)
SylhetExpress.com

ইছমত হানিফা চৌধুরী:
যখন রোজ বৃষ্টি হয়
আকাশ হেমন্তের মত নয়
তবুও ফকফকা রয়।
বীরে যে বেঘ জমে
আধারে ছাই ঘামে
এক সময় প্রবল কড়ে নামে।
ওড়ায়ে নেয় সব
আমার আকাশ তেমনি
জমে জমে পাহাড় হচ্ছে
যেন কষ্টের পিরামিড মমি।
হয়তো কোন এক সময়
গর্জে বর্ষে লন্ড-ভন্ড
জানি শুধু ভেঙ্গে টুক Details...



www.SylhetExpress.com - First Online NEWS Paper in Sylhet, Bangladesh.

Editor: Abdul Baten Foisal Cell : 01711-334641 e-mail : news@SylhetExpress.com
Editorial Manager : Abdul Muhit Didar Cell : 01730-122051 e-mail : syfdianews@gmail.com
Photographer : Abdul Mumin Imran Cell : 01733083999 e-mail : news@sylhetexpress.com
Reporter : Mahmud Parvez Staff Reporter : Taslima Khanom Bithee

Designed and Developed by : A.S.H. Imranul Islam. e-mail : imranul.zyl@gmail.com

Best View on Internet Explore, Mozilla Firefox, Google Chrome
This site is owned by Sylhet Sifdia www.sylhetexpress.com
copyright © 2006-2013 SylhetExpress.com, All Rights Reserved