সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে নির্মিত শাহজালাল ফার্টিলাইজার ফ্যাক্টরি ৩৮ কোটি টাকা আত্মসাৎ

,
প্রকাশিত : ০৫ আগস্ট, ২০২১     আপডেট : ২ মাস আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ভুয়া বিল ভাউচার দিয়ে সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে নির্মিত শাহজালাল ফার্টিলাইজার ফ্যাক্টরি লিমিটেডের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ ২৪ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা করেছে দুদক। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্তে প্রাথমিক সত্যতাও পেয়েছে। ফলে ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল বুধবার সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতে এই মামলার এজাহার জমা দেওয়া হয়েছে। দুদকের সিলেট জেলা সমন্বিত কার্যালয়ে এই মামলা দায়ের করে। মামলায় শাহজালাল সার কারখানার দুই কর্মকর্তা (বহিষ্কৃত) সহ ৮ জন ঠিকাদারকে আসামি করা হয়েছে।

আসামিরা হলেন, শাহজালাল ফার্টিলাইজার প্রকল্পের প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা সাবেক সহকারী প্রধান হিসাব রক্ষক ও হিসাব বিভাগীয় প্রধান (বরখাস্ত) খোন্দকার মুহাম্মদ ইকবাল এবং প্রকল্পের সাবেক রসায়নবিদ (বরখাস্ত) নেছার উদ্দিন আহমদ। অন্য আসামিরা হলেন-মেসার্স টিআই ইন্টারন্যাশনালের মালিক হালিমা আক্তার (আসামি খোন্দকার মুহাম্মদ ইকবালের স্ত্রী), মেসার্স রাফী এন্টারপ্রাইজের মালিক নূরুল হোসেন, ফাল্গুনী ট্রেডার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এএসএম ইসমাইল খান, মেসার্স আয়মান এন্টারপ্রাইজের মালিক সাইফুল হক, মেসার্স এন আহমদ অ্যান্ড সন্সের মালিক নাজির আহমদ, মেসার্স মা এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী মালিক হেলাল উদ্দিন, মেসার্স ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনালের মালিক জামশেদুর রহমান খন্দকার এবং মেসার্স সাকিব ট্রেডার্সের মালিক আহসান উল্লাহ চৌধুরী।

দুদকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক জানান, অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ ওঠার পর থেকে দুদকের সিলেট জেলা সমন্বিত কার্যালয় তদন্ত শুরু করে। ছয় মাস দীর্ঘ তদন্ত করে প্রায় ৩৯ কোটি টাকা আত্মসাতের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া যায়। এরপর মঙ্গলবার রাতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করা হয়। গতকাল বুধবার সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতে এজাহার জমা দেওয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, মামলা দায়েরের পর এখন অধিকতর তদন্ত চলবে। তদন্তে অর্থ আত্মসাতের সাথে আরও কারো সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তাকেও আসামি করা হবে।
মামলার এজাহারে বলা হয়, সার কারখানার বহিষ্কৃত দুই কর্মকর্তা ৮ ঠিকাদারদের যোগসাজসে প্রতারণা এবং জালিয়াতির মাধ্যমে ভুয়া বিল-ভাউচার তৈরি করে ৩৮ কোটি ৭১ লাখ ২৪ হাজার ৯০২ টাকা আত্মসাৎ করেন।
এ ব্যাপারে শাহজালাল ফার্টিলাইজার ফ্যাক্টরির কারও বক্তব্য জানা যায়নি। তবে ফ্যাক্টরির একটি সূত্র জানিয়েছে, অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ ওঠার পরই দুই কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।
সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে জরাজীর্ণ হয়ে পড়া প্রাকৃতিক গ্যাস সারকারখানা (এনজিএলএফ) দীর্ঘদিন ধরে লোকসান গুনায় এই কারখানার পাশেই প্রায় সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে শাহজালাল সার কারখানা নির্মাণ করা হয়। ২০১৭ সালে প্রথম বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করে শাহজালাল সারকারখানা লিমিটেড। তবে নানা কারণেই উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে এই কারখানা। সর্বশেষ সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের শাহজালাল সারকারখানা প্রকল্পের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ১০ জনের বিরুদ্ধে ১৫টি মামলা করে দুদক।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় গণপরিষদের সভা

        সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক:বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয়...

ছাত্রদল নেতা তারেকের পিতার ইন্তেকালে ছাত্রদলের শোক

        সিলেট মহানগর ছাত্রদল নেতা আশিকুর...

লিডিং ইউনিভার্সিটির বাংলা নববর্ষ উদযাপন

        সিলেটের প্রথম বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং...