৬ ডিসেম্বর কুলাউড়া শত্রু মুক্ত দিবস

,
প্রকাশিত : ০৫ ডিসেম্বর, ২০২১     আপডেট : ২ মাস আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সুশীল সেনগুপ্ত, কুলাউড়া থেকে: ৬ ডিসেম্বর কুলাউড়া শত্রু মুক্ত দিবস। একাত্তরের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের এই দিনে কুলাউড়া সম্পূর্ণরূপে শত্রুমুক্ত হয়। এ সংবাদে ঐদিন শহর ও শহরতলিতে ছাত্র জনতার শ্লোগানে শ্নোগানে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো শহর। এরপর থেকে ঐদিনটিকে কুলাউড়াবাসী শত্রুমুক্ত দিবস হিসাবে পালন করছেন।
একাত্তরের ৭ মে পাকিস্তানী ক্যাপ্টেন দাউদ ও মেজর ওয়াহিদ মোগলের নেতৃত্বে হানাদার বাহিনীর দুটি দল চুপিসারে কুলাউড়ায় প্রবেশ করে। এ সময় শহরের অদূরে কাপুয়া সেতুর কাছে তাদের হাতে প্রথম শহীদ হন উপজেলার জয়চন্ডি ইউনিয়নের মোজাহিদ কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আছকির আলী ও হাবিব উদ্দিন। ঐদিন সন্ধ্যায় হানাদার বাহিনীর দোসররা বিছরাকান্দি গ্র্রামের ছলিম উল্লাহ (৪০) এবং সোনাপুর গ্রামের আরশদ উল্লাহকে (৪২) হত্যা করে। ভারতীয় সীমান্ত সংলগ্ন বনাঞ্চল বেষ্টিত এই উপজেলার অবস্থা ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের চোরাগুপ্তা হামলার অনুকূলে।
৬ ডিসেম্বর ভোরে কুলাউড়ায় মিত্র বাহিনীর দুটি জঙ্গী বিমান আকাশ থেকে কয়েক দফা পাক সেনাদের ঘাঁটিতে গোলাবর্ষণ করে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সুযোগে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের ধর্মনগর থেকে হরদয়াল সিংহের নেতৃত্বে ভারতীয় সেনা বাহিনীর ৬৭ রাজপুত রেজিমেন্টের একটি বিরাট দল সাগরনাল ও কাকড়া চা বাগানে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে মিলিত হয়ে শুরু করে সম্মুখযুদ্ধ। যুদ্ধে জীবন দিতে হয় ২৪ জন মুক্তিযোদ্ধাসহ প্রায় ৩শ’ সাধারণ মানুষকে। যুদ্ধ চলাকালে পাক সেনারা রাজাকার, আলবদর ও আল শামস এর সহযোগিতায় সাধারণ মানুষকে নৃশংসভাবে হত্যা করে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন