হাফিজ আশরাফের মৃত্যু : সন্তানের লাশ বহন করা খুবই কষ্টের

,
প্রকাশিত : ০৯ জুন, ২০২০     আপডেট : ১০ মাস আগে
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

সৈয়দ মবনু সন্তানের লাশ বাপের জন্য বহন করা খুবই কষ্টের। হাফিজ আশরাফ তো আমার ছেলেই ছিলো। ২০০২ খ্রিস্টাব্দে যখন সিলেট শহরের বালুচরে জামিআ সিদ্দিকিয়া শুরু করি তখন প্রথম শ্রেণীতে যে ছাত্রগুলো ভর্তি হয়েছিলো তাদের একজন আশরাফ। সম্ভবত ভর্তির তালিকায় সে প্রথম এবং দ্বিতীয় আমার বড়মেয়ে স্যাইয়িদা মারহামা। এরপর ছিলো আমার ছেলে স্যাইয়িদ মুজাদ্দিদ, আমার ছোটমেয়ে স্যাইয়িদা মাইমুনা, আশরাফের বোন নাজিয়া, তুলি প্রমূখ। প্রথম দিকে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা খুব বেশি ছিলো না। আশরাফ এবং আমার মেয়ে মারহামা এক সাথে প্রথম শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পড়েছে। ২০০৮ খ্রিস্টাব্দে তারা পঞ্চম শ্রেণীতে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে মারহামা চলে যায় মিরাবাজারস্থ শাহজালাল জামেয়ায় আর আশরাফ আমাদের মাদরাসায়ই হিফজে ভর্তি হয়। সে আমাদের মাদরাসায়-ই হিফজ শেষ করে অন্য মাদরাসায় চলে যায়।
আশরাফের বাবা আহমদ আলী আমার বন্ধু ছিলেন। দু’তিন বছর আগে হঠাৎ তিনি ইন্তেকাল করেন। আহমদ ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদে খুব কষ্ট পেয়েছিলাম একথা ভেবে যে, আশরাফ তো এখনও ছোট রয়েছে, এত তাড়াতাড়ি আহমদ ভাই চলেগেলেন। কিন্তু সেদিন তো ভাবিনি আশরাফও যে এত তাড়াতাড়ি চলে যাবে পৃথিবী ছেড়ে। প্রকৃত অর্থে কার কখন মৃত্যু আসে তা বলা খুবই কঠিন কাজ। সবকিছু আল্লাহর ইচ্ছের উপর। যদিও করার কিছু নেই, তবু আশরাফের মৃত্যুটা মেনে নেওয়া খুবই কষ্টকর। প্রথমত আশরাফের বাবা আহমদভাই ছিলেন আমার বন্ধু। এই হিসাবে আশরাফ আমার ভাতিজা। আবার আশরাফ হলো ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে অবস্থানকারী আমার বন্ধু সোহেলভাই ও শাহেদদের সম্পর্কে ভাগিনা। এই সম্পর্কগুলো ছাড়া সবচে বড় সম্পর্ক আমার জন্য সে ছিলো জামিআ সিদ্দিকিয়ার প্রতিষ্ঠাকালিন ছাত্র এবং দীর্ঘ আট বছরের মতো লেখাপড়া করেছে। আশারাফের শিশুকাল থেকে এই পর্যন্ত বড় হওয়া সবই আমার চোখের সামনে। তার অনেক প্রতিভা ছিলো। সে ভাল একজন শিল্পী ছিলো। কোরআনে হাফিজ ছিলো। জামিআ সিদ্দিকিয়ার প্রত্যেক ছাত্রই আমার নিজের সন্তানের মতো। আশরাফের মৃত্যু সংবাদ আমাকে অনেকটা সন্তান হারানোর মতো কষ্ট দিচ্ছে। আল্লাহ তাঁকে জান্নাতের উচুঁ মাকাম দান করুন।
কিছুদিন আগে আশরাফের ব্রেনস্টক হয়েছিলো এবং তা থেকেই তার মৃত্যু ঘটে। আজ বাদ আছর দক্ষিণ বালুচর বায়তুস সালাম জামে মসজিদে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সবাইকে উপস্থিত থাকতে অনুরোধ করছি।


  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

আরও পড়ুন

বিজয় দিবস ফুটবলে টীম বিজয়ের জয়লাভ

8        8Sharesবাংলাদেশ ব্যাংক ক্লাবের শুক্রবার সকালে...

শাবিপ্রবি’র প্রধান ফটকে বাপার অবস্থান কর্মসূচি পালন

         সিলেট এক্সপ্রেস ‘পরিবেশ-প্রতিবেশকে নষ্ট করে...

লিডিং ইউনিভার্সিটির ১১তম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা

         সিলেটের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং...

আদর্শ সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রবাসী সংবর্ধনা

         আদর্শ সমাজ কল্যাণ সংস্থা জিয়াপুর...