হবিগঞ্জে কিশোরী বধু হত্যার রহস্য উদঘাটন, প্রেমিক স্বামী গ্রেফতার

প্রকাশিত : ২৪ মার্চ, ২০২০     আপডেট : ৬ মাস আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিগঞ্জে কিশোরী বধু হনুফা আক্তারকে (১৫) হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ।
শ্বশুর বাড়ি থেকে কিছু না পাওয়ার যন্ত্রণা, আর দুর্ব্যবহারে অতিষ্ট হয়ে কিশোরী বধূকে গলাটিপে হত্যা করেছে প্রেমিক স্বামী। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে নিয়ে পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়া হয়। এরপরই মা ও ভাবীসহ পুলিশ তাকে আটক করে। আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ তথ্য জানিয়েছে ঘাতক স্বামী বিলাল মিয়া। রোববার সন্ধ্যায় সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

তার স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাসুক আলী জানান, ২ বছর প্রেম করার পর প্রায় ৭ মাস আগে সদর উপজেলার পশ্চিম এড়ালিয়া গ্রামের সওদাগর মিয়ার মেয়ে হনুফা আক্তারকে (১৫) বিয়ে করে তার চাচাতো ভাই আব্দুল হাসিমের ছেলে বিলাল মিয়া (১৮)। প্রেম করে পালিয়ে বিয়ে করার কারণে শ্বশুর বাড়ি থেকে কোন কিছুই পায়নি। খাট, পালঙ্ক থেকে শুরু করে কিছুই তার কপালে জুটেনি। শ্বশুর বাড়িতে যাওয়াও অনেকটা বন্ধ ছিল। এ নিয়ে প্রায়ই তার মা, বোনসহ পরিবারের লোকজন খোটা দিতো। তারা প্রায়ই বলতো প্রেম করে বিয়ের কারণে শ্বশুর বাড়ি থেকে কিছুই পায়নি। প্রেম না করলে আরও ভাল মেয়ে ও জিনিসপত্র পেতো। এসব শুনে স্ত্রীর সাথে সে তর্কাতর্কিতে লিপ্ত হতো। এ সময় স্ত্রী তার সাথে দুর্ব্যবহার করতো। আর এতে অতিষ্ট হয়েই সে স্ত্রীকে ১৮ মার্চ রাতে গলাটিপে হত্যার পর বাড়ির পাশে একটি মসজিদের পুকুরে লাশ ফেলে দেয়।
১৯ মার্চ সকালে স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। লাশ উদ্ধারের পরই পুলিশ নিহতের স্বামী বিলাল মিয়া, শাশুড়ি চান্দি বেগম ও জা খোদেজা বেগমকে আটক করে। অবশেষে রোববার সন্ধ্যায় স্বামী বিলাল মিয়া আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের বাবা সওদাগর মিয়া বাদি হয়ে সদর থানায় ৬ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধারের পরই পরিবারের সদস্যদের আচরণে পুলিশের সন্দেহ হয়। ফলে স্বামী ও শাশুড়িসহ ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে স্বামী নিজে হত্যাকাণ্ডের জন্য অনুতপ্ত হয়। সে নিজে থেকেই স্বীকারোক্তি দেয়ার জন্য পুলিশকে জানায়। বাকি আসামীদেরও অবিলম্বে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে বলে তিনি জানান।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পরবর্তী খবর পড়ুন : সিলেটের আকাশপথ এখনো খোলা

আরও পড়ুন

আম্বরখানা এলাকায় সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির লিফলেট বিতরণ

         ২৪ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবারের সিলেট বিভাগীয়...

অজ্ঞাত পুরুষের লাশের পরিচয় জানতে চায় পুলিশ

         ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সুনামগঞ্জ বাইপাস সড়ক...

আজ সাম্যবাদী দলের বিভাগীয় সমাবেশ

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: আজ ১...