স্বাধীনতা দিবসে ৭জন মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা দিল কেমুসাস

প্রকাশিত : ২৭ মার্চ, ২০১৯     আপডেট : ১ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মো. আব্দুল বাছিত:
বীর মুক্তিযোদ্ধারা দেশের সূর্যসন্তান। তাঁদের অবিস্মরণীয় আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে স্বাধীনতা। মানুষের বেঁচে থাকার যে অবলম্বন স্বাধীনতা, বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সম্মান প্রদানে জাতির বৃহত্তর দায়বদ্ধতা কিছুটা হলেও পূরণ হয়। কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের উদ্যোগে বাংলার শ্রেষ্ঠ সন্তানদেরকে সংবর্ধনা প্রদানে নতুন প্রজন্ম দেশপ্রেমে উদ্দীপ্ত হবে।
কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ, সিলেট-এর উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৯ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। গত মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) সন্ধ্যায় সংসদের দ্বাদশ কেমুসাস বইমেলা মঞ্চে সংবর্ধনা উপকমিটির আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ মো. ইদ্রিস আলী বীর প্রতীক, বীর মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না, মো. সীতাব আলী, মহিউদ্দিন আহমদ, ফখর উদ্দিন, হেলাল উদ্দিন দাদন এবং আফতাব আলীকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। সংসদের সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক এডভোকেট আবদুল মুকিত অপির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংসদের সহ সভাপতি এম এ করিম চৌধুরী, সহ সভাপতি মুহম্মদ বশিরুদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী, কার্যকরী পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ সৈয়দ মুহাদ্দিস আহমদ এবং মূখ্য আলোচকের বক্তব্য রাখেন লিডিং ইউনিভার্সিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও কেমুসাসের কার্যকরী পরিষদ সদস্য ড. মোস্তাক আহমদ দীন। সংবর্ধনা উপকমিটির সদস্য সচিব সৈয়দ মোহাম্মদ তাহেরের স্বাগত বক্তব্যে অনুষ্ঠানে মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন সংবর্ধিত বীর মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন লস্কর ময়না, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সীতাব আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন আহমদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফখর উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা হেলাল উদ্দিন দাদন এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব আলী। সংবর্ধিত বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ মো. ইদ্রিস আলী বীর প্রতিকের পক্ষে বক্তব্য রাখেন তাঁর পুত্র আবুল হাসনাত। সভা শেষে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট সম্মাননা পত্র এবং সম্মানী অর্থ তুলে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আব্দুল কাদির জীবন।
সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী বলেন, ভাষা থেকে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের অংশীদার এই সংসদ। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদেরকে ধারাবাহিকভাবে সম্মাননা প্রদান করে আসছে সংসদ। এই সম্মাননা নতুন এবং ভবিষ্যত প্রজন্মকে দেশপ্রেমে উদ্দীপ্ত করবে। সভায় সংসদের কার্যকরী পরিষদ সদস্যসহ সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান উপলক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে নিবেদিত একটি স্মারক প্রকাশ করে কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ।
মূখ্য আলোচকের বক্তব্যে লির্ডি ইউনিভার্সিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মোস্তাক আহমদ দীন বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের ত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি, সেই ঋণ কখনো শোধ করা সম্ভব নয়। তবুও তাদেরকে সম্মান জানানো কর্তব্য।
সভাপতির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধে পশ্চিম পাকিস্তানিরা ব্যাপকভাবে গণহত্যা চালায়, বাঙালির জন্য তা ছিল অত্যন্ত বেদনার। ত্যাগের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন করে আনন্দে উল্লাসিত হয়েছে বাঙালি। স্বাধীনতাকে অর্থবহ করে তুলতে কাজ করতে হবে।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

এক খন্ড বাংলাদেশ

         ফৌজিয়া লীনা: মুজিব মানে পরাধীনতার...

ফটো সাংবাদিকদের ক্যামেরায় উন্নয়ন ও জীবনের বাস্তব চিত্র ফুটে ওঠে – ড. মোমেন

         বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন সিলেট...

সিলেটে বিভাগে ৫৮ শতাংশ কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

         একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট...