সিসিক নির্বাচন: প্রচারণা শুরু আজ

,
প্রকাশিত : ১০ জুলাই, ২০১৮     আপডেট : ৩ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে গতকাল সোমবার ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। আজ মঙ্গলবার প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। এর সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয়ে যাবে প্রচারণার আনুষ্ঠানিক পর্ব। যা শেষ হবে আগামী ২৮ জুলাই মধ্যরাতে। তবে প্রচারণা শুরুর আগেই দলের নেতাকর্মীদের ভীতিপ্রদর্শনসহ বাসা-বাড়িতে তল্লাশী করে হয়রানির অভিযোগ এনেছে বিএনপি। অন্যদিকে, দলের মনোনীত প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধভাবে নগর চষে বেড়াচ্ছে আওয়ামী লীগ।

সিটি করপোরেশন নির্বাচন বিধিমালার বিধি ৫ অনুসারে-প্রতীক বরাদ্দের পূর্বে কোনো প্রার্থী বা তার পক্ষে কোনো রাজনৈতিক দল, অন্য কোনো ব্যক্তি বা সংস্থা কোনো নির্বাচনী প্রচারণ শুরু করতে পারবে না। একই সাথে ভোটগ্রহণ শুরুর ৩২ ঘণ্টা পূর্বে প্রচার কাজ বন্ধ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সেই হিসেবে আজ প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই সিসিকের মেয়র, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচারের সুযোগ পাচ্ছেন। ভোটগ্রহণ শুরু হবে আগামী ৩০ জুলাই সকাল ৮টায়। অর্থাৎ ১০ জুলাই থেকে ২৮ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত প্রচার কাজ চালাতে পারবেন প্রার্থী ও তার সমর্থকরা।

আইন অনুযায়ী এই বিধি সকল প্রার্থী ও তার সমর্থকদের মেনে চলতে হবে। কোনো প্রার্থী বিধিমালার কোনো বিধান অমান্য করলে, তিনি নির্বাচিত হবার পরও তার প্রার্থিতা বাতিল করতে পারে নির্বাচন কমিশন।

এদিকে প্রচার কাজের জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে কেবল একটি মাত্র শব্দবর্ধনকারী যন্ত্র বা মাইক ব্যবহার করার জন্য প্রার্থীদের উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে। এজন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। আর পথসভা বা ঘরোয়া সভার জন্য অন্তত ২৪ ঘণ্টা আগে স্থানীয় পুলিশ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে।

কোনো প্রার্থী অন্য প্রার্থীর বিরুদ্ধে সম্মানহানিকর তথা চরিত্রহনন করে বা কোনো ধরনের তিক্ত বা উস্কানিমূলক কিংবা লিঙ্গ, সাম্প্রদায়িকতা বা ধর্মানুভূতিতে আঘাত লাগে এমন বক্তব্য দিতে পারবেন না। নির্বাচনী প্রচারকাজে কেবল মাত্র দলীয় প্রধান হেলিকপ্টার ব্যবহার করতে পারবেন। তবে দলীয় প্রধান যদি সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ তথা, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী বা সংসদ সদস্য হন, তবে তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় যেতে পারবেন না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিলেটের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও সিসিক নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন আচরণবিধি পালনের বিষয়টি কঠোরভাবে মনিটরিং করবে। সেক্ষেত্রে প্রার্থীদেরকে আচরণবিধির প্রতি লক্ষ্য রেখে প্রচার চালানোর জন্য আহবান জানান তিনি। ’


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

শাহজালাল(র:) মাজার জিয়ারত শেষে অন্য মাজারের উদ্দেশ্যে শেখ হাসিনা

         নিজস্ব প্রতিবেদক: আসন্ন একাদশ জাতীয়...

তরুণদের উদ্যেগে শীর্তার্ত মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ

         সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভপুর উপজেলায়...

দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী

         বর্তমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় দায়িত্ব...

জৈন্তা সাহিত্য-সাংস্কৃতিক পরিষদ’র আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

         শুদ্ধ সাহিত্য-সংস্কৃতি বিকাশের মধ্য দিয়ে...