সিলেটে ৮ মে বিশ্ব রেডক্রস রেড ক্রিসেন্ট দিবস পালিত

প্রকাশিত : ০৮ মে, ২০১৮     আপডেট : ২ বছর আগে  
  

মো. আব্দুল বাছিত:
বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে সমগ্র বিশে^র ন্যায় সিলেটেও ৮ মে বিশ^ রেডক্রস রেডক্রিসেন্ট দিবস পালন করা হয়েছে। ‘হাসি, সর্বত্র, সবার জন্য’ শ্লোগানকে ধারণ করে মঙ্গলবার সকালে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিটের উদ্যোগে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশন, জাতীয় পতাকা ও রেডক্রসের পতাকা উত্তোলনের পর র‌্যালিটি ক্বীন ব্রীজস্থ রেডক্রিসেন্ট কার্যালয় থেকে শুরু করে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জিন্দাবাজার হয়ে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিটস্থ সিলেট রেডক্রিসেন্ট মাতৃমঙ্গল হাসপাতালের হলরুমে আলোচনা সভায় এসে মিলিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিট ও সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. লুৎফুর রহমান। ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান মনসুজ্জামান চৌধুরী বাবুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. হিমাংশু লাল রায়, রেডক্রিসেন্ট সিলেট ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান জামিল। সোসাইটির কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য সাইফুর রহমান খোকনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য ফেরদৌস চৌধুরী রুহেল, সোয়েব আহমদ, গৌতম চক্রবর্তী, ইমাম উদ্দিন চৌধুরী।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিট ও সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. লুৎফুর রহমান বলেন, মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর প্রত্যয় নিয়ে বিশ^ব্যাপী কাজ করছে রেডক্রস। একটি সুন্দর পৃথিবী গড়ার জন্য রেডক্রিসেন্ট আর্তমানবতার সেবায় অবদান রাখছে। পৃথিবীর দেশে দেশে বিভিন্ন দুর্যোগে পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে এই সংগঠনটি। মানবতার কল্যাণ সাধনের মানসিকতা নিয়ে নতুন প্রজন্ম ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে হবে।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিলেট ইউনিটের আজীবন সদস্য, বিশিষ্ট লেখক রফিকুর রহমান লজু, সিলেট রেডক্রিসেন্ট মাতৃমঙ্গল হাসপাতালের পরিচালক ডা. সুধাময় মজুদার, বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিটের প্রথম যুব প্রধান ব্যাংকার আমিনুল ইসলাম, সাবেক যুবপ্রধান এনামুল হক চৌধুরী সোহেল, যুব প্রধান মো. মিনহাজুল আবেদীন। সভায় রেডক্রিসেন্ট-এর কার্যক্রমে অবদান রাখার জন্য শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে নির্বাচিত করা হয় কাজী জালাল উদ্দিন বালিক উচ্চ বিদ্যালয় এবং শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হন শাহজালাল জামেয়া স্কুল এন্ড কলেজের প্রভাষক আব্দুল্লাহ আল মামুন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তাদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন। পরে অনুভূতি ব্যক্ত করেন আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং কাজী জালাল উদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মুরশিদা রহমান চৌধুরী। বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি যুব কমিশনের সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় যুব প্রধান মো. মিনহাজুল আবেদীন এবং সিলেট ইউনিটের শ্রেষ্ঠ যুব সদস্য দাইয়ান আহমদ নির্বাচিত হওয়ায় তাদেরকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন যুব সদস্য শামীম আহমদ এবং গীতা পাঠ করেন জয়ন্ত পাল। অনুষ্ঠানের শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। উল্লেখ্য, ১৮২৮ সালের ৮ই মে সুইজারল্যান্ডের জেনেভা শহরে জন্ম জন হেনরী ডুনান্ট ১৮৬৩ সালে কয়েকজন চিকিৎসক, রাজনীতিবিদ এবং সেনাকর্মকর্তাকে নিয়ে বিশ^ব্যাপী রেডক্রস প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এর পর থেকে সমগ্র বিশে^ প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং যুদ্ধপীড়িত মানুষের সেবায় কাজ করছে এই সংগঠনটি। ১৯১০ সালের ৩০ অক্টোবর হেনরী ডুনান্টের মৃত্যুর পর থেকে তাঁর জন্মদিনকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য প্রতিবছর ৮ই মে বিশ^ব্যাপী রেডক্রস রেডক্রিসেন্ট দিবস হিসেবে পালন করা হয়।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবক জাবেদ সিরাজ, মিডল্যান্ড ব্যাংক চৌহাট্টা শাখার ম্যানেজার আহবাব আহমদ জায়গীরদার, বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিটের আজীবন সদস্য আব্দুল হান্নান সেলিম, সাহেদ আহমদ সুমিন, তাজ উদ্দিন খান আলম, নূরুল ইসলাম সুহেল, মন্টু কুমার পাল, আশফাক আহমদ, মানিক মিয়া, সিলেট রেডক্রিসেন্ট মাতৃমঙ্গল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক মহিজুল ইসলাম, সহকারী প্রশাসনিক কর্মকর্তা পার্থ সারথী দাশ প্রমুখ।

আরও পড়ুন