সিলেটে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ শুরু

প্রকাশিত : ২৩ এপ্রিল, ২০১৯     আপডেট : ১ বছর আগে

আব্দুস সোবহান ইমন :

সারা দেশের ন্যায় দ্বিতীয় বারের মতো এবারও সিলেটে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ পালিত হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ‘খাদ্যের কথা ভাবলে পুষ্টির কথাও ভাবুন’Ñএ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষ্যে সিলেট সিভিল সার্জন কার্যালয় ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সিলেট সিভিল সার্জন কার্যালয় প্রাঙ্গন থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে শেষ হয়। র‌্যালি শেষ সিলেট সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ই.পি.আই ভবনে সিভিল সার্জন কার্যালয় ও জেলা প্রশাসনের সমন্বয়ে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ও সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. হিমাংশু লাল রায়ের সভাপতিত্বে¡ সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন অফিসের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. নূরে আলম শামীম। সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা.আমজাদ হোসেনের পরিচালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সিলেট বক্ষ ব্যাধি ক্লিনিকের কনসালট্যান্ট ডা. সৌমিত্র রায়, ইউনিসেফ হেলথ অফিসার নিম্মি হোসেন, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. ইসমাইল, সিভিল সার্জন অফিসের সিনিয়র স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মকর্তা সুজন বনিক, সিলেট পুলিশ সুপার কার্যালয়ের ইন্সপেক্টর কামাল হোসেন, ইউনিসেফের জেলা নিউট্রিশন কো-অর্ডিনেটর মো. রওশন কবির, সিলেট সুচনা প্রকল্প জেলা প্রতিনিধি বজলুর কবির জোয়ারদার। অনুষ্ঠানে পুষ্টি সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় উপস্থাপনা করেন, সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার (ডি.আর.এস.) ডা. মো. মঈনুল আহসান।
সভাপতির বক্তব্যে ডা. হিমাংশু লাল রায় বলেন, পুষ্টি হচ্ছে সংবিধান প্রণীত মানুষের অধিকার। মানুষের এ অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। বিশেষ করে গর্ভবতী মহিলা ও শিশুদের মধ্যে পুষ্টির প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। গর্ভবতী মহিলাদেরকে পুষ্ঠি বিষয়ে জ্ঞান দিয়ে সুস্থ এবং মেধা সম্পন্ন শিশু জন্মগ্রহণ করার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতন করে তুলতে হবে। একটি শিশু শারিরীকভবে মেধা বুদ্ধি সম্পন্ন হিসেবে বেড়ে উঠলে একটি জাতি সুস্থ জাতি হিসেবে গড়ে উঠবে।
জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে বিকেল ৫টায় নগরীর কবি নজরুল ইসলাম অডিটরিয়ামে এক শিশু চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। ২ টি বিভাগে প্রায় অর্ধশতাদিক শিশু প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। ‘ক বিভাগে পুষ্টি ফল মূল ও ‘খ বিভাগে পুষ্টি সমৃদ্ধি খাবার বিষয়ক চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্টিত হয়। অনুষ্টানে সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. হিমাংশু লাল রায় সহ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থি ছিলেন।

আরও পড়ুন