সিলেটে আওয়ামী লীগ এখন অনেক চাঙ্গা

প্রকাশিত : ০৮ জুলাই, ২০১৮     আপডেট : ২ বছর আগে

সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলেন বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। তিনি দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর থেকে মাঠে সরব রয়েছেন তিনি। সাথে রয়েছে সিলেটের ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগ।

এবার সিসিক নির্বাচনে দুইবারের প্রাক্তন মেয়র হিসেবে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানসহ নগর আওয়ামী লীগের আরও ৪ নেতা মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। তবে তাদের ম্যানেজ করতে খুব বেশি বেগ পোহাতে হয়নি কামরানকে। দলীয় প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরাসরি নিজে হস্তক্ষেপ করেন। গণভবনে ডেকে নেন সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের। সবার উপস্থিতিতে মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন বদর উদ্দন অহমদ কামরানের নাম। ‘নৌকা প্রতীক’ তুলে দেন কামরানের হাতে। নির্দেশনা দেন সব ভুলে নৌকার পক্ষে কাজ করার।

শেখ হাসিনার এই ঘোষণার পর থেকে সিলেটের আওয়ামী লীগ এখন অনেক চাঙ্গা। উৎসব বিরাজ করছে নগরজুড়ে। মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদসহ মনোনয়ন প্রত্যাশী অন্যান্য নেতারা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন কামরানের পক্ষে। নির্বাচনী আচরণবিধির বাধা নিষেধ থাকায় তারা কৌশলে প্রচারণা চালাচ্ছে। এছাড়া আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও সিলেটমুখী। গত ৪ জুলাই আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ। সাংগঠনিক ঐক্য মজবুত করতে প্রতিদিন কর্মী সভা, বর্ধিত সভা পাড়া-মহল্লায় চলছে। বিশেষ করে মনোনয়ন প্রত্যাশী আসাদ উদ্দিন আহমদ, ফয়জুল আনোয়ার আলাওর, অধ্যাপক জাকির হোসেন ও কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ মাঠে কাজ করছেন।

এদিকে বিএনপি বিদ্রোহী প্রার্থীকে নিয়ে বিপাকে থাকলেও সেক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান রয়েছেন সুবিধাজনক অবস্থানে। তবুও বিগত নির্বাচনে পরাজয়ের হিসাব নিকাশ মাথায় রেখে কাজ করছেন তিনি। জয় নিশ্চিত করতে সতর্ক রয়েছেন তিনি।

বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেন, ‘নৌকা প্রতীকটি ব্যক্তি কামরানের নয়, এটা আওয়ামী লীগের। নৌকার পরাজয় মানে আওয়ামী লীগের পরাজয়। তাই আওয়ামী লীগের একজন কর্মীও নৌকার পরাজয় চাইবে না। অতীতের সকল ভুল-ত্রুটি ক্ষমা করে দিয়ে আমার পক্ষে কাজ করার জন্য সকল নেতাকর্মীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ বলেন, ‘২০১৩ সালের নির্বাচনে পরাজয়ের নানা দিক পর্যালোচনা করে কাজ করছে আওয়ামী লীগ। এবার আর হেফাজতি দোহাই দিয়ে ভোট ভাগ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আওয়ামী লীগ এখন ঐক্যবদ্ধ। নৌকার জয়ের ব্যাপারে আমরা আশাবাদী।’

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, ‘পুরো নগর জুড়ে নৌকার পক্ষে জোয়ার উঠেছে। এ জোয়ার ধরে রাখতে আওয়ামী লীগের প্রত্যেকটি কর্মী প্রস্তুত। সিলেটের উন্নয়নের অবদান সরকার এবং আওয়ামী লীগের। অন্য কোনো দলের বা ব্যক্তির নয়। এই বিষয়টি নগরবাসীকে বুঝাতে আমরা কাজ করছি।’

সূত্র বার্তা২৪

 

আরও পড়ুন