সরকারী কলেজ ইমাম মুয়াযযিন ঐক্য পরিষদের আলোচনা সভা

,
প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারি, ২০২২     আপডেট : ৪ মাস আগে

বাংলাদেশ সরকারি কলেজ ইমাম-মুয়াজ্জিন ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবের আব্দুস সালাম হলে ‘জাতীয় উন্নয়নে আমরাও অংশীদার চাকুরী জাতীয়করণ আমাদের ন্যায্য অধিকার এস.ডি.জি বাস্তাবয়নে ধর্মীয় নেতাদের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মদীনাতুল উলুম মডেল ইন্সটিটিউট বালক কামিল মাদরাসা’র অধ্যক্ষ, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মাওলানা মো. আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু জাদুঘরের কিউরেটর ও সাবেক শিক্ষা সচিব নজরুল ইসলাম (এন.আই) খান।
প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ এর খতীব, উস্তাযুল উলামা শায়খুল হাদীস মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সরকারি কলেজ ইমাম-মুয়াজ্জিন ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা মোহাম্মদ এহসান উদ্দিন।
সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কোরআনের আলো ফাউন্ডেশনের মহাসচিব হাফেজ কারী মাওলানা মুহীউদ্দিন, আহছানিয়া ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক মুফতি মাওলানা শাঈখ মুহাম্মদ উসমান গণি ও সোবহানবাগ জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা লিয়াকত হোসেন।
সংগঠনের কেন্দ্রীয় মহাসচিব হাফেজ মাওলানা মো. নাসিমের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ¦ মো. রমজান আলী, শিক্ষাবিদ মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক সহকারী একান্ত সচিব ড. মোঃ আওলাদ হোসেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের গভর্ণর অধ্যক্ষ ড. মাওলানা মুহাম্মদ কফিল উদ্দিন সরকার সালেহী, বাংলাদেশ সরকারি কলেজ ইমাম-মুয়াজ্জিন ঐক্য পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা রবিউল ইসলাম, অর্থ সচিব মাওলানা আব্দুল হালিম।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে নজরুল ইসলাম (এন.আই) খান বলেন, সহ¯্রাব্দ উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা এমডিজি উন্নয়নে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জনের পর বর্তমান সরকারের সময়োচিত পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশ এখন টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এসডিজি অর্জনের পথে রয়েছে। দীর্ঘমেয়াদী উন্নয়ন ও বৈষম্যহীন উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হলে মসজিদের ইমাম-খতিবদের আরো বেশী দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।
প্রধান আলোচক মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ বলেন, জাতীয় উন্নয়নে মসজিদের ইমামগণের অবদান অতুলনীয়। নীতি, নৈতিকতা, মূল্যবোধ শিক্ষাসহ জাতির যেকোন ক্রান্তিকালে মসজিদের ইমামদের ভূমিকা অগ্রগণ্য। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত মসজিদের ইমামদের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। সামাজিক ও অর্থনৈতিক মূল্যায়নের দিক থেকে ইমাম-মুয়াজ্জিনদেরকে স্বাবলম্বী করতে পারলে দেশ বহুদূর এগিয়ে যাবে। আর এ কাজটি করতে পারবেন বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আলেম-ওলামার দরদী অভিভাবক শেখ হাসিনা।
সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতীয় জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য উত্তরসূরী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মাসেতুর মত অসম্ভব কাজ বাস্তবে পরিণত করেছেন। ৫৬০টি মডেল মসজিদ, ১ হাজার ১০টি দারুল আরকাম মাদরাসা ও ৮৬টি কামিল মাদরাসায় অনার্স কোর্স চালু করেছেন। কওমী মাদরাসার সনদের স্বীকৃতি দিয়েছেন। তিনিই পারেন সরকারি কলেজ-ইমাম মুয়াজ্জিনদের চাকুরী জাতীয়করণ করে আরো একটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা করতে।
বাংলাদেশ সরকারি কলেজ ইমাম-মুয়াজ্জিন ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা মোহাম্মদ এহসান উদ্দিন বলেন, ডিজিটাল সোনার বাংলার অন্যতম প্রচারক ও সমর্থক মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনগণকে পিছনে রেখে এসডিজি বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। মসজিদের মিম্বর উন্নয়ন ও অগ্রগতির মিম্বর। এই মিম্বারে বসেই মানবতার শ্রেষ্ঠ বন্ধু মুহাম্মদ (সা.) অশান্ত পৃথিবীতে শান্তির বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছেন। তাই দুর্নীতি ও অপরাধমুক্ত রাষ্ট্র গঠনে মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনদের বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখার লক্ষ্যে তাদের চাকুরী জাতীয়করণ করা এখন সময়ের দাবি।


আরও পড়ুন