সমস্ত হৃদয় দিয়ে তোমাকে ভালোবাসি বাবা-মাহমুদা নায়েন

,
প্রকাশিত : ০৪ নভেম্বর, ২০২০     আপডেট : ১ বছর আগে
  • 105
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এক্সপ্রেস সাহিত্য ডেস্ক আমি অনেক ভাবে ধন্য হয়েছি কিন্তু আমার জীবনের সবচেয়ে বড় নেয়ামত হচ্ছে আমার মত বাবা পাওয়া । বাবার সাথে এখন যে বন্ধন আছে তার জন্য আমি কতটা কৃতজ্ঞ তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না । আমরা যে বন্ধুত্ব শেয়ার করি তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ এবং আমি এখানে আসার জন্য অনেক দূর এসেছি ।
আমার বাবা একটি আত্মত্যাগপূর্ণ জীবন যাপন করেছেন । সে তার নিজের চেয়ে অন্যের সুখ নিয়ে বেশি চিন্তা করতো । যখন সে ছোট ছিল, তখন সে তার বাবা-মায়ের কাছে দায়িত্বশীল ছেলে ছিল, সে তার ভাইবোনদের কাছে একজন সহায়ক পরিবারের সদস্য ছিল । তিনি তার পরিবারকে এতটাই অগ্রাধিকার দিয়েছেন যে তিনি তার কঠোর পরিশ্রম তাদের উৎসর্গ করতে তার যৌবনকে উৎসর্গ করেছেন ।
যখন নিজে বাবা হয়ে নিজের সংসার শুরু করেন, তখন তার জন্য ত্যাগের আরেকটি অধ্যায় খুলে যায় । তিনি তার সন্তানদের প্রথম রাখেন এবং আমাদের জন্য তার সব ইচ্ছা এবং স্বপ্ন বিসর্জন দেন ।
আমি দেখেছি আমার বাবা কিভাবে সকাল 4 টায় ঘুম থেকে উঠতো, দীর্ঘ ঘন্টার কাজের মধ্য দিয়ে গেছে যাতে আমাদের টেবিলে খাবার আনতে পারে ।
আমি দেখেছি কিভাবে আমার বাবা তার পরিবারের দায়িত্ব পালনের জন্য আমেরিকা থেকে বাংলাদেশে বার বার ফিরে এসেছেন । বুঝলাম BD তে তার অনেক দায়িত্ব ছিল, তার জন্য সম্মান করলাম । আমার দাদার উত্তরাধিকার দেখাশোনা করে সব ইচ্ছা পূরণ করলেন । দুই দেশের মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করা অবশ্যই কঠিন ছিল ।
আমরা দেখলাম কিভাবে আমাদের চার বোনকে মানুষ বানানোর অভিপ্রায় নিয়ে বাংলাদেশে চলে গেলেন, ইসলামিক অভ্যাস খাপ খাইয়ে আমাদের বাংলা ঐতিহ্য শিখতে চাইলেন । তিনি আমাদের শিক্ষার জন্য অনেক কিছু ত্যাগ করেছেন, সময়মত স্কুলে নিয়ে যান, তিনি স্কুল ফি এবং প্রাইভেট টিউশন একাই পরিচালনা করেন ।
আমি দেখেছি সে কিভাবে আমার বিয়ে সমর্থন করেছে এবং আমার স্বামীকে তার নিজের ছেলে হিসেবে ভালবাসত । আমার বাবা মুন কে খুব ভালবাসেন এবং আমি তার প্রতি তার যত্নশীলতার তারিফ করি ।
আমার বাবা আমার তত্ত্বাবধায়ক… আমার অভিভাবক…. আমার পৃথিবী । তিনি আমার প্রতি তার পুরো জীবন উৎসর্গ করেছেন এবং আমার জীবনের প্রতিটি পর্যায়ে আমাকে সমর্থন করেছেন । আমি যে সব কষ্ট কাটিয়ে উঠি তার আশীর্বাদ আমার শক্তি ।
যতবার আমি অসুবিধার সম্মুখীন হই ততবার আমি আমার চোখ বন্ধ করি এবং আমার বাবাকে স্মরণ করি, ′′ ইন্নালাহা মা ‘আস’ সাবিরিন “. (এটা আরবী ভাষায়, এর মানে হল, ′′ নিশ্চয় আল্লাহ ধৈর্যশীলদের সাথে আছেন ′′) আমার বাবা সবসময় বলেন , ধৈর্য ধরুন এবং আল্লাহ আপনার সাথে থাকবেন ।
তিনি আমাকে শিখিয়েছেন ক্ষমা করতে এবং অন্যকে ভালবাসতে… সর্বদা একটি পরিষ্কার হৃদয় রাখতে ।
বাবার কথা মেনে জীবন যাপন করি । তার জ্ঞান এবং জ্ঞান আমাকে সাহস এবং আশা দেয় । তিনি আমাকে নম্র হতে এবং সঠিক এবং ভুলের মধ্যে পার্থক্য জানতে শিখিয়েছেন । সে আমাকে শাসন করবে এবং আমাকে সঠিক পথ দেখাবে ।
আমি আমার সমস্ত হৃদয় দিয়ে আমার বাবাকে ভালোবাসি । সে একজন ভাল মানুষ আমি তার মত কাউকে দেখিনি । আপনার সকল ত্যাগ এবং কঠোর পরিশ্রমের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ । আমি তাদের কখনো ভুলবো না ।
আল্লাহ যেন আমার বাবাকে সবসময় আশীর্বাদ করেন । সবচেয়ে প্রিয় মানুষ, সবচেয়ে মূল্যবান । ♥️
পৃথিবীর সকল বাবাকে জানাই শুভ পিতৃ দিবস, তোমরা সবাই সত্যিকারের সত্যিকারের বীর


  • 105
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

নুতন ধারার রাজনীতি গবেষক ড. মুহম্মদ এনামুল হক চৌধুরী

        সাঈদ চৌধুরী: সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম...

স্বেচ্ছাসেবক দলের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ

        সিলেট নগরীর বন্দরবাজার এলাকায় স্বেচ্ছাসেবক...

সিলেটের ৩টি আসনে জমিয়ত প্রার্থী ঘোষণা করলো

        আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেটের...