শ্রীরামকৃষ্ণ দেবের ১৮৩তম আবির্ভাব তিথি ও বার্ষিক উৎসব

প্রকাশিত : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮     আপডেট : ৩ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক : সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেছেন, আধ্যাত্মিক নগরী সিলেটে সকল ধর্মের মানুষের বসবাস। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি আমাদের পূর্ব পুরুষরা শিখিয়ে গেছেন। অতীত থেকে সিলেটে যার যার ধর্ম নির্দ্বিধায় পালন করছেন। আমরা একই স্রষ্টার মানুষ। আমাদের মাঝে শান্তি ও সম্প্রীতির বন্ধন রয়েছে। সকল ধর্মেই রয়েছে মানব জাতির কল্যাণ নিশ্চিত করা। সিলেট মহানগরীকে একটি শান্তি ও সম্প্রীতির নগর হিসেবে গড়ে তুলতে সকলকে সচেষ্ট থাকতে হবে। তিনি বলেন, যদিও দেশে কিছু স্থানে দুষ্কৃতিকারীরা সংখ্যালঘুদের উপর হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে বর্তমান সরকার তা কঠোর হস্তে দমন করেছেন। কোন বিবেকবান মানুষ এ ধরনের কাজ করতে পারেনা। আমরা তাদেরকে ধিক্কার ও প্রতিবাদ জানিয়েছি। রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রম অতীতকাল থেকেই মানবজাতির কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের এই মহতি উদ্যোগ প্রশংসার দাবী রাখে। মানব জাতির কল্যাণ করলে সৃষ্টিকর্তা সন্তুষ্ট থাকেন। তিনি আরো বলেন, আমি সিটি কর্পোরেশনের মেয়র থাকাকালীন সময় নগরীতে বিভিন্ন মন্দির, শশ্মানঘাট ও পূজামন্ডব উন্নয়নে অনুদান প্রদান করেছি।
বদর উদ্দিন আহমদ কামরান গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় নগরীর মিরাবাজারস্থ রামকৃষ্ণ মিশনে শ্রীরামকৃষ্ণ দেবের ১৮৩তম আবির্ভাব তিথি ও বার্ষিক উৎসব উপলক্ষে চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠান মালার তৃতীয় দিনের ‘ধর্ম সমন্বয়ে শ্রীরামকৃষ্ণ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।


উপাধ্যক্ষ সুষেন্দ্র কুমার পালের সভাপতিত্বে ও অরুপ বিজয় চৌধুরীর পরিচালনায় সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী চন্দ্রনাথানন্দ। বিশেষ অতিথি থাকবেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ রেজাউল করিম। আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক শাহ নজরুল ইসলাম। সিলেট ধর্ম প্রদেশের বিশপ বিজয় এনডি ক্রুজ, স্বামী পূর্ণব্রতানন্দ। সভার শুরুতে বৈদিক মুক্ত পাঠ করেন বিবেকানন্দ বিদ্যার্থী ভবনের ছাত্রবৃন্দ। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য রাখেন রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য এডভোকেট সনতু দাস।
উৎসবের তৃতীয় দিন ১৯ ফেব্রুয়ারি সোমবার কর্মসূচীর মধ্যে ছিল বেলা ১১টায় পদ্মিণী রায় ইমনের পরিচালনায় গীতি আলেখ্য। দুপুর ১২টায় পূর্ণিমা দত্ত রায়ের পরিচালনায় ভজন কীর্ত্তন, দুপুর ১টায় মণিনাথ কীর্ত্তনীয়ার পরিবেশনায় পদাবলী কীর্ত্তন। বিকাল ৪টায় প্রণতি ভট্টাচার্যের পরিচালনায় সঙ্গীতানুষ্ঠান। রাত ৮টায় বিশেষ সঙ্গীতানুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন প্রণতি ভট্টাচার্য, লাভলী দেব, অজন্তা চক্রবর্তী, মুন্না দত্ত, সোনিয়া রায়, সুস্মিতা চৌধুরী প্রমুখ।
আজ শেষ দিন ২০ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার উৎসবের কর্মসূচীর মধ্যে থাকবে বেলা ১১টায় ডাঃ দীপিকা চক্রবর্ত্তী ও মৌসুমী পুরকায়স্থের পরিবেশনায় সঙ্গীতালেখ্য। দুপুর সাড়ে ১২টায় দেবল দাস ও তাঁর দলের পরিবেশনায় রামকৃষ্ণ লীলা কীর্ত্তন। দুপুর ১টায় মণিনাথ কীর্ত্তনিয়ার পরিবেশনায় রামায়ণ গান। বিকেল ৪টায় শ্রীমা সারদা সংঘ সিলেটের পরিবেশনায় গীতি আলেখ্য।
বিরাজ মাধব চক্রবর্ত্তী মানসের সভাপতিত্বে সন্ধ্যা ৬টায় ‘শ্রীমা সারদা’ শীর্ষক আলোচনা সভা। সভায় প্রধান অতিথি থাকবেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম। সম্মানীত অতিথি থাকবেন মহানাম সম্প্রদায় বাংলাদেশের সভাপতি কান্তি বন্ধু ব্রহ্মচারী। বিশেষ অতিথি থাকবেন মদন মোহন বিশ^বিদ্যালয় কলেজের উপাধ্যক্ষ সর্বাণী অর্জুন। আলোচনায় অংশ গ্রহণ করবেন প্রকৌশলী সুধাময় দেব, বীথিকা দত্ত, স্বামী হরিদাসানন্দ প্রমুখ। রাত ৮টায় নীলাঞ্জন দাস টুকুর পরিবেশনায় নাটক অনুষ্ঠিত হবে।

 


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

সিলেট জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিনামূল্যে সবজি বিতরণ

         সিলেট জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে গরীব,...

সিলেট জেলা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন’র বর্ধিত ও আলোচনা সভা

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: সিলেট জেলা...

রকি দেবের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক :  জাগো...

লিডিং ইউনিভার্সিটির সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত

1        1Shareলিডিং ইউনিভার্সিটির ৬৩তম সিন্ডিকেট সভা...