শ্রমিক অধিকার দিবস

প্রকাশিত : ২৮ এপ্রিল, ২০১৯     আপডেট : ১ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মো: শামসুল ইসলাম সাদিক:
আজ পহেলা মে। বিশ্বের কোটি কোটি শ্রমজীবি মানুষের অধিকার ও দাবি আদায়ের মহান ‘মে দিবস’। আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে সারাবিশ্বে দিবসটি একযুগে পালিত-উদযাপিত হচ্ছে। কল-কারখানা তখন গিলে খাচ্ছিল শ্রমিকের গোটা জীবন। অসহনীয় পরিবেশে প্রতিদিন ১৬ ঘন্টা কাজ করতে বাধ্য হতো। সপ্তাহজুড়ে কাজ করে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য একেবারে ভেঙে যাচ্ছিল। শ্রমজীবি শিশুরা হয়ে পড়েছিল কঙ্কালসার। এমতাস্থায় দাবি উঠেছিল, কল-কারখানায় শ্রমিকের গোটা জীবন কিনে নেয়া যাবে না। ৮ ঘন্টা শ্রম দিনের দাবিতে শুরু হওয়া যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরে ১৮৮৬ সালের ওই বছরের ১লা মে শ্রমিকরা ধর্মঘট আহবান করে। প্রায় তিন লাখ মেহনতি মানুষ ওই সমাবেশে অংশ নেয়। ১৮৮৬ সালের মে মাসের প্রথম সপ্তাহে ৮ ঘণ্টা কর্মদিবসের দাবিতে অনুষ্ঠিত শ্রমিক আন্দোলনরত ক্ষুদ্ধ শ্রমিকদের রুখতে গিয়ে একসময় পুলিশ বাহিনী শ্রমিকদের মিছিলে এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এতে পুলিশের গুলিতে ১১ জন নিরস্ত্র শ্রমিক প্রাণ হারান, আহত ও গ্রেফতার হন আরো শতাধিক শ্রমিক। পরবর্তীতে প্রহসনমূলক বিচারের মাধ্যমে গ্রেফতারকৃত শ্রমিকদের মধ্য থেকে ছয়জনকে আন্দোলনে অংশ নেয়ার অপরাধে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করা হয়। শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে কয়েকজন পুলিশও সেই সময় নিহত হন। কারাগারে বন্দিদশায় এক শ্রমিক নেতা আত্নহননও করেন। এতে বিক্ষোভ আরো প্রকট আকারে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। শ্রমিক আন্দোলনের এই রক্তাক্ত অধ্যায়ের স্মরণে ১লা মে কে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্তগৃহীত হয়। পরবর্তীকালে আন্দোলনরত শ্রমিকদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয় যুক্তরাষ্ট্র সরকার।
মে দিবস আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি লাভের মাধ্যমে সারা বিশ্বের শ্রমিক শ্রেণির মাঝে ব্যাপক পরিবর্তন কাজ করছে। মালিক-শ্রমিক সম্পর্কের ওপর এ দিবসের প্রভাব সূুদূর প্রসারী। এর প্রভাবে শ্রমিকদের দৈনিক কাজের সময় ১৬ ঘন্টা থেকে কমে আসে ৮ ঘন্টায়। বিশ্বের সব দেশের শ্রমিকরা এর মাধ্যমে তাদের শ্রমের উপযুক্ত মর্যাদা ও মর্যাদা পেতে শুরু করে। নিজেদের অধিকার আদায়ে তারা আরোও সোচ্চার হন। মেহনতি মানুষ মুক্তি পেতে শুরু করে তাদের শৃঙ্খলিত জীবন থেকে। বিশ্বের ইতিহাসে সংযোজিত হয় সামাজিক পরিবর্তনের একটি মাইলফলক। তা একই সঙ্গে শ্রমিকদের কাছে বিজয়, আনন্দ, প্রতিজ্ঞা ও অনুপ্রেরণার উৎস। মে দিবস হচ্ছে গোটা পৃথিবীর শ্রমজীবি মানুষের বৈপ্লবিক পরিবর্তন সুচনা করার দিন। শ্রেণি-বৈষম্যের বেঁড়াজালে যখন তাদের জীবন বন্দিদশায় বন্ধি তখন মে দিবসের প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে খুলে যায় তাদের শৃঙ্খল। এ ফলে আস্তে আস্তে লোপ পেতে লাগলো সমাজের শ্রেণি-বৈষম্য। পুঁজিবাদের দূর্বল দিকগুলোকে পুঁজি করা অবৈধ অর্থলোভীদের আগ্রাসী দংশন থেকে রেহাই পেল কোটি কোটি শ্রমিক। বৈষম্য ও শোষণমুক্ত একটি সমাজ গোটা বিশ্বকে উপহার দিল এই মে দিবস।

দীর্ঘ ও ধারাবাহিক আন্দোলনের ফলে শ্রমিকদের মানবিক অধিকার ও সুযোগ-সুবিধা বেড়েছে, শোষণ-বঞ্চনা কমেছে। অবশ্য এখনো কম মজুরি, মজুরিবৈষম্য, নিয়মিত মজুরিপ্রাপ্তি, শ্রমক্ষেত্রে উপযুক্ত কর্মপরিবেশ ও নিরাপত্তা ইত্যাদির সমস্যাও কিছুটা রয়েছে। এ কারণে শ্রমিক অসন্তোষও আছে। আছে আন্দোলন, সংগ্রাম। আসলে শ্রমিকদের অধিকার ও ন্যায়সঙ্গত সুযোগ-সুবিধা প্রাপ্তির দাবি ও আন্দোলন একটি চলমান প্রক্রিয়া। কারো অজানা নেই, শ্রমিকদের সার্বিক অবস্থা এবং শ্রমিক-মালিক সম্পর্ক এখন আর সেই উনিশ শতকের অবস্থানে নেই। অবস্থার ইতিবাচক পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে শ্রমিক-মালিক সম্পর্ক যথেষ্ট উন্নতি লাভ করেছে। বস্ততপক্ষে শ্রমিক-মালিক সুসম্পর্ক ছাড়া উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির কোনো অবকাশ নেই। মালিকপক্ষের সাথে শ্রমিকের যে উঁচু-নিচু সম্পর্ক ছিল তা এক সময় সমতলে চলে আসলো শুধুমাত্র মহান মে দিবসের স্বীকৃতির ফলেই। এ জন্য উভয় পক্ষের পারস্পরিক সুসম্পর্ক, দায়িত্বশীলতা ও জবাবদিহিতা অপরিহার্য।
শিল্প-কারখানার সঙ্গে শ্রমিকদের সম্পর্ক সুগভীর। শ্রমিক ছাড়া উৎপাদন হতে পারে না। শ্রমিকদের শ্রম যেমন উৎপাদনের নিয়ামক তেমনি এই শ্রম তাদের আয়- রোজগারেরও উপায়। মালিকরা শিল্প-কারখানা প্রতিষ্ঠা করে মুনাফা ও আয় উপার্জনের লক্ষে। কিন্তু শ্রমিক ছাড়া কারখানা অচল। শ্রমিক-মালিক স্ব-স্ব স্বার্থে একে অপরের ওপর নির্ভরশীল। কারখানা আছে, শ্রমিক নেই কিংবা শ্রমিক আছে কারখানা নেই, এটা চিন্তা করা যায় না। শ্রমিক-মালিক সম্পর্ক যত সুগভীর ও দৃঢ় থাকবে, উভয় পক্ষের লাভ ও সুবিধা ততই বেশি হবে। শিল্প-কারখানায় পুরোদমে উৎপাদন চালু থাকলে ব্যবসা-বাণিজ্য উন্নতি, সচল থাকে। অর্থনীতিতে বেশ প্রভাব পড়ে। অর্থনীতি গতিশীলতা লাভ করে। উৎপাদন ও অর্থনীতিতে সচলতা থাকলে, উন্নতি হলে তখন মালিকদের দায়িত্ব বর্তায় শ্রমিকদের মজুরি ও ভাতা বাড়ানো, সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করার। মালিকরা শ্রমিকদের দেখবে, শ্রমিকরা দেখবে মালিকদের, শ্রমিক-মালিক সম্পর্কের মূলমন্ত্র এটাই। শ্রমিকদের প্রাপ্য মজুরি, মানবিক সুযোগ-সুবিধা, কারখানার কর্মপরিবেশ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা মালিকদের একান্ত দায়িত্ব। শ্রমিকদের দায়িত্ব সৎ ও নিষ্ঠার সঙ্গে শ্রম দিয়ে উৎপাদন অব্যাহত রাখা।
আমাদের দেশে, ভিন্ন কারণে উৎপাদন ব্যবস্থা ও শিল্প-কারখানার অবস্থা ততটা ভালো নয়। নানাবিধ সমস্যা-সঙ্কট এখানে রয়েছে। রাজনৈতিক অস্থিরতা, বিনিয়োগ বন্ধত্ব, গ্যাস-বিদ্যুতের অভাব, অবকাঠামো সুবিধার অপ্রতুলতা, যাতায়াত ও পরিবহন ব্যবস্থার দুর্বলতা ইত্যাদি কারণে উৎপাদন ব্যাহত ও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ইতোমধ্যে শত শত শিল্প-কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে এবং হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। যে গার্মেন্ট শিল্প আমাদের শিল্প সেক্টর, উৎপাদন ব্যবস্থা, কর্মসংস্থান ও রফতানিতে বিপ্লব এনেছে সেই গার্মেন্ট শিল্পের অবস্থাও এখন বেশ শোচনীয়। নানা কারণে বহু গার্মেন্ট কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় উৎপাদনে নেতিবাচক প্রভাব ছাড়াও বিপুল সংখ্যক শ্রমিক বেকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। ওদিকে শ্রমিকদের মজুরি ও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো, তাদের ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার দান এবং কারখানার কর্মপরিবেশ উন্নত ও নিরাপদ করার বিষয়ে যে আলোচনা-বিতর্ক ছিল তা অবসানে ইতিবাচক অগ্রগতি হলেও সব কিছুর নিষ্পত্তি হয়ে গেছে, বলা যাবে না। শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন নির্ধারণ করা হয়েছে। তাদের ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার দেয়া হয়েছে। এমনকি ইপিজেডে ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার, স্বীকার করে নেয়া হয়েছে। কারখানার কর্মপরিবেশের উন্নয়ন ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কাজও অগ্রগতির দিকে চলছে। এই অগ্রগতিকে ছোট করে দেখার অবকাশ নেই। উৎপাদন ব্যবস্থা আরো গতিশীল হলে, উৎপাদন, রফতানি ও ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়লে আমরা নিশ্চিত, মালিক-শ্রমিকরা উন্নতির দিকে অগ্রসর হবেন, অর্থনৈতিকভাবে আমাদের দেশ এগিয়ে যাবে। তাই উৎপাদন, শিল্পায়নে যেমন নজর দিতে হবে, তেমনি মালিক-শ্রমিক সম্পর্ক বাড়াতে হবে। ঐতিহাসিক মে দিবসের তাৎপর্যপূর্ণ অবদান আজকের শ্রমিক শ্রেণিকে গভীর সম্পর্কে আগলে রেখেছে। যে কোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামী চেতনা এখন শ্রমজীবিদের ভূষণ। ১৮৮৬ সালের রক্তঝরা সেই ১লা মে এখন সবার কাছে অবিচার ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে জোর সংগ্রামের শপথ গ্রহণের দিন। সামনে এগিয়ে যাওয়ার মূলমন্ত্র। মে দিবসে সকল শ্রমজীবি মানুষ তাদের ভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করার মাধ্যমে উন্নয়নমুখী পরিবর্তন সূচনার অঙ্গিকারের প্রয়াস পায়।
জয় হোক সাম্যের, জয় হোক খেটেখাওয়া মানুষের।

লেখক:
শিক্ষার্থী
এম. সি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ- সিলেট।
মোবাইল- ০১৭২৫-৭২৪৫০৮


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

নিউইয়র্কে গণলুটপাটে মেয়রের ভুমিকায় ক্ষুব্দ গভর্নর কার্ফ্যু চলবে ৮জন পর্যন্ত

         এমদাদ চৌধুরী দীপু(নিউইয়র্ক) বিশ্বের রাজধানীখ্যাত...

পনিটুলা মহাপ্রভুর আখড়ায় অষ্টপ্রহর হরিনাম সংকীর্ত্তন ১৮ এপ্রিল শুরু

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: শ্রীশ্রী গদাধর...

নানা আয়োজনে সিলেট স্টেশন ক্লাবে বর্ষবরণ

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক :  সিলেট...