শেষ হতে চলেছে আইসোলেশন : লিখে শেষ করা যাচ্ছে না ভালোবাসার কথা

প্রকাশিত : ২২ জুন, ২০২০     আপডেট : ৩ মাস আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জাবেদ আহমদ : ছোট ভাই উবেদ এর করোনা উপসর্গে আকংস্মিক মৃত্যু দু ভাইয়ের শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের রেড জোনে অবস্থান এসব বিবেচনায় আমরা দুভাই ১০জুন নমুনা জমা দিলে ১৪ জুন রাতে জানানো হয় আমরা পজেটিভ। মৃত ছোট ভাইয়ের নিগেটিভ রিজাল্ট আসায় ছিলাম ফুরফুরা মেজাজে। প্রায় মধ্যরাতে ফলাফল জেনে পরিবারকে জানিয়ে তাদের ঘুম হারাম করে শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় নির্বিঘ্নে ভাল ঘুম দিলাম। রাত সাড়ে ৩টায় ওঠে অনলাইনে ঢু মারতেই জননেতা কামরান ভাইয়ের মৃত্যু সংবাদ জেনে আমি মহল্লার মসজিদের ইমাম সাহেবকে এ সংবাদের সাথে আমার পজিটিভের বিষয়টা সকলকে অবহিত করে দোয়ার জন্য বললাম। ফজরের নামাজের পরে স্ট্যাটাস দিয়ে ঘুমে গেলাম। ১০টায় ঘুম থেকে ওঠে ই শুরু হলো ফোন ধরা, ফেইসবুকে আহজারি শোনা। উদ্ভিগ্ন হয়ে পড়লেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ইউ কে থাকা সম্বন্ধী মোহাম্মদ আলী চৌধুরী কয়সরের নির্দেশে ফল ফলাদিসহ অনেক কিছু দুপুরের মধ্যে বাসায় চলে এলো। রাতে খোঁজ নিলেন আমার প্রিয় মহল্লা খাঁরপাড়ার মিতালী সমাজকল্যাণ পরিষদের ও যুব পরিষদের সদস্যরা। ঔষধ পৌঁছে দিলেন, বলে গেলেন যে কোন পরিস্থিতিতে তাঁরা সহায়তায় প্রস্তুত রয়েছেন। পরদিন শাহী ঈদগাহের মতিন এন্ড সন্স হতে অনলাইনে কেনা মাল বাসায় এনে দিলেন খাঁরপাড়ার যুব পরিষদের সদস্যরা। নিজের সম্পূর্ন অজ্ঞাতে যুক্তরাষ্ট্রে থাকা খাঁরপাড়া মিতালী সমাজকল্যাণ পরিষদের সাবেক সভাপতি শাহাদাত হোসেন মিন্টুর পাঠানো বাহারি ফল ফলাদি, অফিস সেক্রেটারি ও বিশিষ্ট সমাজকর্মী আলী হায়দার মোবাইল চার্জার, ঔষধ দিতে সাথে ফলের ব্যাগ, বাংলাদেশ ব্যাংকের যুগ্ম পরিচালক আলী আকতার ডাবর মধুর কৌটা, উন্দালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালাউদ্দিন বাবলু বাহারি মজাদার খাবারের প্যাকেট, ভায়রা নিজাম উদ্দিন চৌধুরী ও বড়বোন শিরীন আক্তার চৌধুরী টিফিনে করে রান্না করা খাবার পাঠালেন ছেলে নাসির চৌধুরীকে দিয়ে। আগে না জানিয়ে পাঠানো এসব উপহারে আপ্লুত ও কিছুটা বিব্রত হয়ে পরিচিত সবাইকে কিছুই লাগবে না বলে জানাই। আমার অনুরোধে পরিচিত ও ঘনিষ্ট শেফ আব্দুল কাদির খান তাঁর কাজিটুলার বাসায় রান্না করা সুস্বাদু তরকারি এবং মিট ব্যবসায়ী মোঃ আলমগীর মাংশ লোক মারফত বাসায় পৌছে দেন। আর,এন ফার্ণিচারের আক্তার মিয়া ফল কিনে বাসায় পৌঁছে দিলেন। শুরু থেকে আজ অবধি চলছে নানা সেবাপ্রাপ্তি। পরশু ২৪ জুন রী টেস্টের জন্য নমুনা জমা দেবো। আল্লাহর রহমতে সকলের দোয়ায় শারীরিকভাবে আমরা কখনও বড় ধরণের সমস্যায় পড়তে হয়নি এবং এখন পুরোপুরি সুস্থ। রেজাল্ট নিগেটিভ আসলেই শুরু হয়ে যাবে আবার কর্মব্যস্ততা। জীবনের কঠিন এ সময়ের কখনও ভোলা যাবে না, মনে থাকবে আমরণ মানুষের ভালবাসার কথা।
নগর জীবনের ৪৪ বছরে নানা মেয়াদে অনেক জায়গায় বসবাস করে চলে আসলেও সম্পর্ক রয়েছে আজও সেই ১৯৭৬ সালের চাষনীপীর রোডসহ সবকটি এলাকার মানুষের সাথে। আজ আমার কঠিন সময়ে চাষনীপীর রোড কলবাখানি হতে কলামিস্ট, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ সালেহ আহমদ খসরু ভাই, এক্স আম্বরখানা কলোনীর প্রবীণ মুরব্বি বশির উদ্দিন আহমদ বশির চাচা, মোহামেডান ফ্যান ক্লাবের আমাদের সময়ের জনপ্রিয় সভাপতি জলিলুল হক চৌধরী কয়েস, সাধারণ সম্পাদক আবুল ফয়েজ চৌধুরী, আবাহনী সমর্থক গোষ্ঠীর সভাপতি শোয়েব আহমদ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের চৌধুরী কয়েস, সাংবাদিক রোটারিয়ান আব্দুল মুহিত দিদার, রুশি হাকিম, আফিয়া জামান, শাপলা হাকিম চৌধুরী, তোফায়েল শেপুল, পারভেজ, কাজী ইলিয়াছ হতে ব্যবসায়ী গবেষক আব্দুল মুঈদ চৌধুরী ফরহাদ, উপরপাড়ার ইকবাল হাসান, উত্তর বাগবাড়ি হতে মোঃ আব্দুর রব, কয়েছুর রেজা চৌধুরী, ডাঃ মলয় কান্তি পাল, হাফিজুর রহমান হানু ভাই, মধুশহীদ হতে আমাদের শেরপুরের পৈত্রিক গোত্রের সবচেয়ে বড় ভাই মধুশহীদ পঞ্চায়েত ও মসজিদ কমিটির সভাপতি হাজী মল্লিক চৌধুরী, এ,টি,এম ইকরাম ফোন করে খোঁজ নিলেন। মসজিদে দোয়া করিয়েছেন জানালেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে সাইক্লোন এর সাথে সম্পৃক্ত শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল সরাসরি ও বিশেষ লোক মারফত সর্বদা খোঁজখবর নিচ্ছেন এবং আতংকিত পরিবার সদস্যদের বিশেষ ব্যবস্থায় নমুনা টেস্ট করানোর ব্যবস্থা নেন। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সদস্য, সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও সিলেট মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম ফোন করে সর্বশেষ অবস্থা জানলেন।
আমার প্রিয় বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাক্তন মাননীয় ডেপুটি গভর্নর মোঃ আবুল কাসেম, নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ আহমেদ আলী, জেনারেল ম্যানেজার মোঃ আবুল কালাম, মোঃ সিরাজুল ইসলাম, মোঃ রজব আলী, ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোঃ হারুনুর রশীদ, মোঃ আব্দুল হাছিব, খালেদ আহমদ, শামীমা নার্গিস, মোঃ আমিনুল ইসলাম, এ,কে,এম, ফজলুল হক, মোঃ একরাম হোসেন, সৈয়দ শোয়েবুর রহমান, মতিউর রহমান সরকার, আবু তৈয়ব মোঃ আব্দুল্লাহ, মোঃ আতিকুর রহমান, কালিপদ রায়, রিটায়ার্ড ডিজিএম আতিকুর রহমান, আশুতোষ ধর চৌধুরী, প্রণব কুমার দেবনাথ, সৈয়দ তৈয়বুর রহমান, নুরুল ইসলাম মাখন, এম, আফসার উদ্দিন আহমদ, ফজলুর রহমান চৌধুরী, মোঃ কমর উদ্দিন, যুগ্মপরিচালক দীলিপ কুমার নন্দী, মোঃ শামসুদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা দীপ্তি কুমার দাশ, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত তালুকদার, বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের আহবায়ক মোজতবা রুম্মান চৌধুরী, সদস্য সচিব মো. আব্দুল কাইয়ুম, নীল দলের সভাপতি কবির আহমদ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব চন্দ্র দত্ত, বাংলাদেশ ব্যাংক ক্লাবের জনপ্রিয় সভাপতি মোঃ সাইফুল আলম, সেক্রেটারী সুব্রত দত্ত, অফিসার্স কাউন্সিলের সভাপতি শফিকুল ইসলাম, সহ সাধারণ সম্পাদক রাজেশ্বর ভট্টাচার্য্য, সহকর্মী মোঃ আব্দুর রহমান, সাইফুল ইসলাম খান, ফেরদৌসী বেগম, ফারহানা খানম, ড. শিরীন আক্তার, মোঃ বদরুল আলম, মো. আব্দুল হাফিজ, ধরণী কান্ত দাশ, কানাডায় থাকা সঞ্চিতা রায়, নেত্রী আভা দাস, আব্দুল জলিল, বিদ্যুৎ সেক্টরের প্রাক্তন নেতা সম্ভুজিত দাদা, হলুূদ দলের কেন্দ্রীয় নেতা কাউন্সিলের সফল সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার সিদ্দিকী, যুগ্ম সম্পাদক মোঃ তহিদুল ইসলাম তৌহিদ, আমানুল হক ভুঞা, গোলাম সারওয়ার, আব্দুল মতিন মোল্লা, সিলেট অফিসের সিনিয়র সহ সভাপতি পরেশ চন্দ্র দেবনাথ, সিনিয়র নেতা মোঃ আশরাফ হোসেন, মোঃ ইমাম উদ্দিন, মোঃ ওয়ারিছ উদ্দিন, ফরিদ আহমদ, রবি লাল দত্ত, সুধাংশু রঞ্জন দেব, মোঃ আব্দুল বারী, বিনয় ভূষণ রায়, জামাল উদ্দিন চৌধুরী, সুভাষ চন্দ্র আচার্য, সুভেন্দু কুমার দেব, মোঃ বাবুল আক্তার, মোঃ আলী আকতার, মোঃ সামছুল হক, ছালেহ আহমদ, সেক্রেটারী সমীরণ দাশ, বাংলাদেশ ব্যাংক নিবাস কল্যাণ সমিতির সভাপতি মোঃ নুর আহমদ, সেক্রেটারী কাজী করিমুজ্জামান, তরুন প্রজন্মের নেতা শাহ আশরাফ সিদ্দিকী, অনুকূল কুমার নাগ, মোঃ ফাহিম মিয়া, মোঃ মুজিবুল কামাল, আবদুল বাসেদ, আল জাহান, রান্টু চন্দ্র দাশ, সঞ্জয় দেব সজীব, মোঃ শাহ নেওয়াজ, মেঃ মনির উদ্দিন, চয়ন কান্তি রায়, জুমারা বেগম, সিবিএ নেতা মোফাখখারুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসান, মোঃ আলমগীর, কর্মচারী সংঘের নোমান আহমদ, কামরুল হোসেন সরকার, তপন কান্তি তালুকদার, সৈয়দা তাসফিয়া জাহান, ফারজানা ইসলাম, আশরাফুজ্জামান, আবু হেনা ফারহান, চট্টগ্রাম অফিসের সহকর্মী মোঃ মহসীন, মোঃ আবুল কাশেম, প্রধান কার্যালয়ের পাবলিকেশন ডিপার্টমেন্টের উপপরিচালক আজিজা বেগম, ব্যাংকার সাংবাদিক সিদ্দিকুর রহমান সুমন, বীমা ব্যক্তিত্ব বন্ধু মোঃ আব্দুল মতিন, আশক আলী ফিটনেস ক্লাবের স্বত্বাধিকারী হাজী আশক আলী, ঢাকা প্রতিনিধি বীরেন্দ্র চন্দ্র দাশ, ময়মনসিংহ হতে ফোন দিয়েছেন পীরসাহেব শাহজালাল (র.) মাজারের খাদেম শায়েদ ইকবাল ভূইয়া, দরগামহল্লা হতে আমার বেয়াই দেওয়ান জহীর উদ্দিন চৌধুরী। সবাই সাহস যোগালেন। দোয়া করা হচ্ছে বললেন।
সোবহানীঘাট মৌবন আবাসিক এলাকা হতে আমার বড় ভায়রা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সুবেদার মেজর নিজাম উদ্দিন চৌধুরী দু দফা এসে খাদ্য ও ঔষধ দিয়ে গেছেন। ফোন করে খোঁজ নিয়েছেন বড়ভাই এডিশনাল পিপি এডভোকেট মইনুল ইসলাম ও আমার রক্তের সাথে মিশে থাকা ঐতিহ্যবাহি মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক আনন্দ টাওয়ারের স্বত্বাধিকারী করোনাকালীন সময়ের আলোচিত মানবতার ফেরিওয়ালা হাজী আব্দুল জব্বার জলিল, ওসমানী হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক নিউরোসার্জন ডাঃ এ,এস,এম আসাদুজ্জামান জুয়েল, সহযোগী অধ্যাপক(শিশু) ডাঃ এ,টি, রেজা আহমদ, স্বাস্থ্য পরিবারের সভাপতি গৌছ আহমদ চৌধুরী, যুক্তরাজ্য হতে বড়ভাই সফল উদ্যোক্তা ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সাঈদ চৌধুরী, ছোট ভাই এ,টি,এম, আরিফ, ফ্রান্স হতে প্রাক্তন ছাত্রনেতা মাওলানা সুহাইল আহমদ, যুক্তরাষ্ট্র হতে বিএনপি নেতা মোঃ লিয়াকত আলী, ব্যাংকার ও কবি শাহাদাত বখত, সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, সিলেটের ডাকের নির্বাহি সম্পাদক প্রাবন্ধিক ও গবেষক আব্দুল হামিদ মানিক, প্রাক্তন নির্বাহী সম্পাদক যুক্তরাজ্যে স্থায়ীভাবে বসবাসরত এম,এ, সাত্তার, বার্তা সম্পাদক বন্ধু সমরেন্দ্র বিশ্বাস সমর, প্রাক্তন বার্তা সম্পাদক আমার গুরু এনামুল হক জুবের, চিপ রিপোর্টার ও সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, দেশ বিদেশে অবস্থানরত সিলেটের ডাক পরিবারের সাবেক ও বর্তমান সদস্য মাহবুব রহমান, আশিক মোহাম্মদ, আহমেদ শামীম, সালেহ আহমদ খান, মোহাম্মদ জুবায়ের, ইব্রাহীম খলিল(ইউ কে) আব্দুস সবুর মাখন, গোপেন দেব (কানাডা), জাহেদুল ইসলাম শাহজাহান (ইউএস এ), পুলিন চন্দ্র রায়, হাবিব উর রহমান ও ফয়সল আইয়ুব (ফ্রান্স) সেলিম আউয়াল, বদরুদ্দোজা বদর, মোঃ তাজ উদ্দিন, ইকবাল মাহমুদ, খালেদ আহমদ, রাজু আহমদ, রিয়াজ উদ্দিন ইসকা,মইন উদ্দিন মনজু, শামসুল আলম, সাব্বির আহমদ, আহমদ আলী, ইউনুস চৌধুরী, এনামুল হক রেনু, আনাস হাবিব কলিন্স, সুনীল সিংহ, কাউসার চৌধুরী, আহমাদ সেলিম, মোঃ নুর আহমদ, সাঈদ নোমান, সাদেক আহমদ আজাদ, আব্দুল বাতিন ফয়সল,ফাইজুর রহমান, রেড ক্রিসেন্ট সাইটি, সিলেট এর সেক্রেটারি, সিলেট চেম্বারের পরিচালক আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রহমান জামিল, ব্যাংকার আব্দুস সালাম খান, রোটারিয়ান টিটু ওসমানী, ব্যাংকার ও লেখক মুস্তাফিজুর রহমান, গল্পকার ও সাংবাদিক তাসলিমা খানম বীথি, নার্সেস এসোসিয়েশন, সিওমেক শাখার সেক্রেটারী ইসরাইল আলী সাদেক, হোটেল সুপ্রিমের স্বত্বাধিকারী কবি ফয়েজ লোদী, ছড়াকার অজিত রায় ভজন, হেলাল ভাই, ফটো সাংবাদিক দুলাল হোসেন, রক্তের ফেরিওয়ালা কোম্পানীগঞ্জের জামাল উদ্দিন, সাইক্লোন এর এহিয়া চৌধুরী, রম্যলেখক হারান কান্তি সেন, ছড়াকার সাংবাদিক শফিকুর রহমান শাহজাহান, কয়সর আহমদ শাহজাহান, লেখিকা ও সংগঠক মুক্তা বেগম, ছড়াকার এডভোকেট আব্দুস সাদেক লিপন,লিটল ম্যাগ সম্পাদক আব্দুল কাদির জীবন, উন্দালের ফরিদ আহমদ, সালাউদ্দিন বাবলু, জাহেদুজ্জামান, আব্দুল মোনায়েম, ভগ্নিপতি হাফিজ মুহিব ভাই, আলিমুজ্জামান আজাদ ভাই, তালতো ভাই আসাদ জামান বাচ্চু, ফুফাতো ভাই প্রকৌশলী জুনেদ আহমদ(ফ্লোরিডা), কাউন্সিলর রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, ফুফাতো বোন রানা(লন্ডন) আপা, চাচাতো বোন নিপা, লাভলী, শিউলী, একযুগেরও অধিক নিজ বাসায় মাতৃস্নেহে আশ্রয় দেয়া চাচী আলহাজ্জ্ব জমজম খানম আহমদ, সিলেট শহরে প্রথম দু বছর সাথে থাকা মাতৃসম ছোট চাচী সুলতানা চৌধুরী রাণী, মেঝো চাচী সুফিয়া খানম চৌধুরী, মামী শেহার বানু চৌধুরী, সমন্ধি এ,এস,এম মোহাম্মদ আলী চৌধুরী, শাহ আজিজুর রহমান(ফ্রান্স), আমাদের পরিবারের বড় ভাই একজন বড়মাপের সংগঠক খালেদুজ্জামান (জামান খালেদ), বড় ভাই সুহেদ আহমদ, মামাতো ভাই আব্দুর রউফ চৌধুরী এখলাছ, জাকির হোসেন চৌধুরী জাকারিয়া, জাহেদ চৌধুরী, আজিজুল মালিক চৌধুরী লিটন, জমিরুল মালিক চৌধুরী টিটু, খালাতো ভাই অযুল চৌধুরী, চাচাতো ভাই জাহিদ হাসান ফয়সল, মাহমুদুর রহমান চৌধুরী ফারুক, কাওছার চৌধুরী শাহীন, সারওয়ার চৌধুরী তুহিন, শাহিদুর রাহমান চৌধুরী জাবেদ,মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান, শাফি উদ্দিন চৌধুরী, হোসেইন চৌধুরী শাহীন, নাহিন, আইনুল হক, নূরুল হক, মামাতো বোন গুলবাহার চৌধুরী জেলী আপা, ডলি চৌধুরী, খালাতো বোন আয়েশা চৌধুরী, চাচাতো বোন সেবা চৌধুরী, খেলা চৌধুরী, শেফা চৌধুরী, জেলওয়া সুলতানা শাম্মী, কানিজ তামান্না, শাহিদা চৌধুরী তান্নি, ভাগ্না মোহাম্মদ শহীদ, দক্ষিণ আফ্রিকা হতে শেরপুরের বড়ভাই এলিছ চৌধুরী প্রমুখ।
খাঁরপাড়ার আমাদের যুব পরিষদের সভাপতি খাঁরপাড়ার সকলের প্রিয় আমিনুল হক রানা রাত ৯টায় বাসায় এসে গেট হতে খোঁজ নিয়ে গেলেন। আমার স্ত্রী নূরজাহান পারভীন চৌধুরীর সাথে কথা বললেন। সাহস দিয়ে জানালেন যে কোন প্রয়োজনে সহায়তা করতে তারা প্রস্তুত আছেন। আমি বেডরুমের দরজা ফাঁক করে দূর হতে তাকে শুভাশীষ জানালাম। এটাই হলো আমাদের গর্বের খাঁরপাড়ার অনন্য মানবতা। ফোন করে খোঁজ নিলেন আমাদের খাঁরপাড়া মিতালী সমাজকল্যাণ পরিষদের সভাপতি জামাল আহমদ, যুক্তরাষ্ট্র হতে সাবেক সভাপতি শাহাদাত হোসেন মিন্টু, প্রধান উপদেস্টা মোঃ লাল মিয়া, উপদেস্টা হাজী মখলিছুর রহমান, প্রকৌশলী ফখরুদ্দীন, গোলজার আহমদ, যুক্তরাজ্য হতে জাহানস হোটেল ও সালেহা গার্ডেন এর স্বত্বাধিকারী খালাম্মা ও তাঁর ছেলে রেজা মাহবুব করিম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলওয়ার হোসেন খাঁ, অফিস সম্পাদক আলী হায়দার, প্রচার সম্পাদক শেনুর আহমদ, যুব পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রুমন আহমদ, সহ সাধারণ সম্পাদক আফসর আহমদ, আরিফ আহমদ রিপন, সাংগঠনিক সম্পাদক রুবেল আহমদ, সমাজকর্মী হাফিজুর রহমান চৌধুরী, সুয়েব লস্কর, সরকারী অগ্রগামী হাইস্কুলের শিক্ষক তারেক মিয়া, হ্যাপিহোমের বাসিন্দা ভাটেরিয়ান এর সভাপতি লুৎফর রহমান, ফাহাদ আহমদ, আর,এন ফার্নিচারের আক্তার মিয়াসহ অনেকেই। সকলেই সাহস যোগাচ্ছেন, সহযোগিতার প্রস্তাব দিচ্ছেন। শাহী ঈদগাহের মতিন এন্ড সন্ড হতে অনলাইনে কিনা মুূদী মালামাল জরুরি ঔষধ বাসায় পৌঁছাতে যুব পরিষদের সভাপতি বাসায় পাঠালেন আমাদের খাঁরপাড়ার তরুণ সেভ সিলেট ও সার্ভিস পার্টির সংগঠক মুক্তার হোসেন ও আনোয়ার আহমদকে। কী অপূর্ব করোনাকালীন সেবা খাঁরপাড়ায় আমাকে দিয়ে শুরু করেছেন আমাদের প্রিয় যুব পরিষদের সদস্যরা। তাঁদের অসাধারণ মানবিক গুনাবলি নিজে কোবিড-১৯ এর কবলে না পড়লে অনুধাবন করতে পারতাম না। আশা করি আল্লাহ না করুন খাঁরপারার যে কেউ আক্রান্ত হলে আমাদের গর্বের যুব পরিষদের সদস্যরা এ সহযোগিতা অব্যাহত রাখবেন।
অসাধারণ এবং অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করেছেন আমাদের বিয়ানীবাজার রামধার উজানঢাকির নানার বাড়ির সবচেয়ে বড় মামাতো ভাই আলহাজ্জ্ব আব্দুর রউফ চৌধুরী এখলাছ ভাইয়ের স্ত্রী আমাদের বড়ভাবি। ভাই বাসায় বয়সের ভারে দীর্ঘদিন অসুস্থ। পরহেজগার এ মানুষটা শারীরিক কারণে মসজিদে যেতে না পেরে ঘরেই কোনমতে আদায় করছেন। সেই ভাবী ছোট মেয়ে ফাইজাকে সাথে করে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে বাসায় হাজির। জোর করে ঢুকে যান বাসায়। তাঁর আগমনের খবরে আমার বড় ভাইয়ের নিরাপত্তা ঝুঁকি জানিয়ে রুম থেকে বকাবকি করলেও মায়ার টানে পাগল এ মানুষটা তা আমলেই নিতে চায়নি।
কোভিড-১৯ পজিটিভ হলেও আল্লসহর অপার রহমতে আমি খুব ভাল আছি। পড়াশোনা, লেখালেখি করছি। বাসায় স্ত্রী রান্নার পাশাপাশি ব্যস্ত ভাপ নেয়ার উপকরণ দিয়ে পানি গরম করা, লাল চায়ের সরবরাহ নিশ্চিত করা, ফলমুল কেটে দেয়ার কাজে। মেয়েরা (বুশরা ও সায়িমা) সময়ে সময়ে মেসেঞ্জারে নির্দেশনা দিয়েই চলেছে, কোরআন তেলাওয়াত, তসবিহ পাঠ করছে। ছেলেরাও ( সামিন ও হাসিন) বসে নেই। অনলাইনে পড়াশোনার পাশাপাশি নামাজ শেষে কোরআন তেলাওয়াত করছে, দোয়া করছে। সারা বিশ্ব হতে লোকজন খবর নিচ্ছেন। শিবেরবাজারের মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, নয়াসড়ক মাদ্রাসার মাওলানা শুয়াইব আহমদ বারকুটি, খাঁরপাড়া জামে মসজিদের হাফেজ মাওলানা মোঃ আব্দুল্লাহ, আরজদ আলী মসজিদের মাওলানা আব্দুল হালিম, বাংলাদেশ ব্যাংক মসজিদের হাফেজ মাওলানা মোঃ আবুল কাশেম, উপশহর বি ব্লকের হাফেজ মোঃ ইউসুফ, উত্তর বাগবাড়ি বায়তুল হামদ জামে মসজিদের সহ অনেক মসজিদ মাদ্রাসার ইমাম শিক্ষকরা দোয়া করছেন। আত্মীয়স্বজন কোরআন খতম পড়ছেন। অনেক সময় ফোন ধরতে পারছি না। এখন সব আল্লাহর ইচ্ছা। আমি মহানবী (সা.) এর বাণী “ইসলামে ছোঁয়া ছে বলতে কিছু নেই” একথা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস ও লালন করি। আল্লাহর হুকুমে পজিটিভ হয়েছি, তিনিই হলেন একমাত্র শিফাদাতা। আপনারা আল্লাহর উপর ভরসা করে সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন, আমিও করছি।
সকলের ভালবাসা ও পরামর্শে শরীরে কোন সিম্পটম না থাকলেও সুস্থতার জন্য পরিশ্রম করছি। ভাপ নেয়া, সারা জীবনের গরম চা সাময়িক বিরতি দিয়েই এখন পান করছি, হালকা ব্যায়াম করছি। প্রচুর পানি ও ফলমূল খাচ্ছি। ফেইসবুক, মেসেঞ্জার, ওয়াটসাআপ এর কল্যাণে বাহারি উপদেশমুলক ভিডিও আসছে, এসব উপভোগ করছি। আমাদের প্রিয় ভাই নাদেল এর চালু করা টেলিমেডিসিন সেন্টারে কল দিয়ে অতি সহজেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ পেয়েছি। সকলের প্রাণান্তকর নানা মাধ্যমের সহযোগিতা মানবিক মূল্যবোধ আর ভালবাসার বহিঃপ্রকাশ। আর এজন্যই অচিরেই বিদায় নিতে বাধ্য হবে কী এক অজানা বীভৎস ভাইরাস “করোনা”। বিশ্ব জনপদ প্রাণ ফিরে পাবে মানুষের কোলাহলে।
বিঃদ্রঃ প্রতীকী হিসেবে কয়েকজনের নাম এসেছে। ফেইসবুকসহ নানা মাধ্যমে দোয়া ও শুভকামনা জানানো সকলের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

বেজগ্রাম নবধারা যুব সংঘের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ আর্থিক অনুদান প্রদান

         বিয়ানীবাজারের মাথিউরার ঐতিহ্যবাহি সামাজিক সংগঠন...

দেশে ৪০ লাখ পরিবার ভূমিহীন

         সারাদেশে ১১ দশমিক ৩৩ শতাংশ...

বিদ্রোহী বিক্ষোভ: কাব্যে সুন্দরের আরাধনা

         নাসিম আহমদ লস্কর বসন্তকাল যেমন...