লিডিং ইউনিভার্সিটিতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত

প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮     আপডেট : ৩ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লিডিং ইউনিভার্সিটিতে যথাযোগ্য ভাবগম্ভীর্য়ের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও মহান শহীদ দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে বুধবার শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
বেলা ১০টায় দক্ষিণ সুরমা উপজেলার রাগীব নগরস্থ বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থায়ী ক্যাম্পাস থেকে একটি র‌্যালী বের করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন বিশ্ববিদ্যালয়ে ট্রাস্ট্রি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ রাগীব আলী। ক্যাম্পাস থেকে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবারও ক্যাম্পাসের শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি পুষ্পস্তবক অর্পণ করে তাদের শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী, ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য সৈয়দ আব্দুল হাই, রাগীব রাবেয়া ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি মিসেস সাদিকা জান্নাত চৌধুরী, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডীন, বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ । পরে

সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবনের গ্যালারী-১ এ ‘শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরত্ব তাৎপর্য’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় । লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লিডিং ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান দানবীর ড. সৈয়দ রাগীব আলী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপণ করে দানবীর ড. সৈয়দ রাগীব আলী বলেন, ‘তাদের রক্ত বৃথা যায় নাই এবং যাবে না। ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন ও দেশকে উন্নয়নের শীর্ষে নিয়ে যেতে হলে দেশ প্রেম থাকতে হবে। বাংলা আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে স্বীকৃত ।যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশে বাংলা ভাষার চর্চা হচ্ছে, রাস্তা, মার্কেটসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামকরণ বাংলায় করা হচ্ছে, এটা আমাদের গৌরবের বিষয়। আর তা সম্ভব হয়েছে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন ও দেশকে স্বনির্ভরতার দিকে এগিয়ে নেওয়ার জন্যই। তবে বাংলাদেশের আদালত, অফিস, ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বাংলা ভাষার ব্যবহার বাড়াতে হবে। রাগীব নগরে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে প্রথম বারের মত একটি জাতীয় দিবস পালন করতে পেরে তিনি বলেন, ‘আজ আমি খুব খুশি। মনে হচ্ছে তরুন শিক্ষার্থীদের পদচারনায় এ অঞ্চল আজ শিক্ষার স্পন্দন পাচ্ছে। তিনি প্রত্যাশা করেন বাংলাদেশ এবং বিশ্বে আজকের এই শিক্ষার্থীরাই শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়ে লিডিং ইউনিভার্সিটি এবং রাগীব নগরের সুনাম বয়ে আনবে। ’

সভাপতির বক্তব্যে লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী বলেন, মাতৃভাষা রক্ষার জন্য ভাষা আন্দোলন থেকেই বাংলার স্বাধীনতার ডাক আসে। অন্যান্য ভাষার প্রতিও আমাদের সম্মান দেখাতে হবে, বিশ্ব পরিক্রমায় বিভিন্ন ভাষায় জ্ঞান থাকতে হবে, কিন্তু মাতৃভাষা একটিই। লিডিং ইউনিভার্সিটির আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট এর মাধ্যমে বিভিন্ন সংস্কৃতি চর্চা ও ভাষা সংরক্ষিত হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। ভাষা শহীদদের আত্বত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে তিনি তাদের আতœার মাগফেরাত কামনা করেন।

লিডিং ইউনিভার্সিটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক কাজী জাহিদ হাসানের উপস্থ্াপনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডীন প্রফেসর মো. নজরুল ইসলাম, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. এস. এম. আলী আক্কাস, কলা ও আধুনিক ভাষা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. গাজী আব্দুল্লাহেল বাকী, আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হাবিবুল আহসান, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ইঞ্জিনিয়ার আবুল আবরার মাসরুর আহমেদ, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সিনিয়র প্রভাষক আনোয়ার আহমদ আরিফ এবং উক্ত বিভাগরের শিক্ষার্থী রাজন রায় ও ফাহমিদ প্রমুখ।
শেয়ার করুন


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

সিলেট প্রেসক্লাবে দুটো সংবাদ সম্মেলন আজ

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক:  সিলেট প্রেসক্লাবে...

কক্সবাজারের নীল জল নীল আকাশ দেখে এসে

         কক্সবাজার ঘুরে এসে রাহুল রাজ...

শারীরিক প্রতিবন্ধকতা, অঙ্গহানী ইত্যাদি : ইসলাম কি বলে?

         ইসলাম ও জীবন ডেস্ক: পবিত্র কুরআনে...