লন্ডন প্রবাসী সাঈদ চৌধুরীকে অপহরণের চেষ্টা

প্রকাশিত : ১৩ আগস্ট, ২০১৮     আপডেট : ১ বছর আগে  
  

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের সংরক্ষিত এলাকা থেকে সাঈদ চৌধুরী নামে একজন লন্ডন প্রবাসীকে অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে। রোববার দুপুরে বিমান বন্দরের ডোমেস্টিক টার্মিনালে এই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, এক্সেলসিয়র সিলেট হোটেল এন্ড রির্সোটের প্রতিষ্ঠাতা ম্যানেজিং ডাইরেক্টর সাঈদ চৌধুরী এবং রির্সোটের ভাইস চেয়ারম্যান ও বৃটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এম এ কাইয়ূম রোববার বিমানযোগে সিলেট থেকে ঢাকায় শাহজালাল বিমানবন্দরে এসে নামেন দুপুর পৌনে ১২টার দিকে। তারা ডোমেস্টিক টার্মিনালে আসলে প্রথমে দুইজন সাঈদ চৌধুরীকে কুশলাদি জিজ্ঞাসা করে। পরে যোগ হয় আরও একজন। একপর্যায়ে কোনো কথা না বলে সাঈদ চৌধুরীকে তুলে নিয়ে যেতে চায়। তিনি তখন জোর করে বিল্ডিংয়ের ভেতরে ঢুকার চেষ্টা করেন। এসময় আরো দুজন এদের সাথে যোগ দেয় এবং সাঈদ চৌধুরীকে প্রায় শূণ্যে তুলে অচেনা একটি গাড়িতে নিয়ে ঢুকায়। তখন সাঈদ চৌধুরীর চিৎকারে এম এ কাইয়ূম এবং আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে অপহরনকারীদের ঘিরে ফেলেন।

এ সময় কর্তব্যরত এয়ারপোর্ট আর্মস পুলিশ ব্যাটালিয়ান (এপিবিএন) পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এরপর সবাইকে বিমানবন্দর থানা পুলিশে সোপর্দ করে এপিবিএন পুলিশ। থানায় অপহরনকারীদের মধ্যে ছিলেন ঢাকা বনানী এলকার ট্রেডোলজি লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো: আল আমিন, এমডি আবু ফয়সল জনি ও তাদের কর্মচারি সুমন, বাবু, ইউনুস সহ অচেনা আরও তিন জন।

সাঈদ চৌধুরী থানায় মামলা দিতে চাইলে বিমান বন্দর থানা কোন মামলা গ্রহন না করে আসামীদের সাথে সমঝোতার জন্য চাপ সৃস্টি করে। এক পর্যায়ে একটি সাদা কাগজে মুচলেকা নিয়ে অপহরনকারীদের ছেড়ে দেয়।

জানা যায়, গত বছর এক্সেলসিয়র সিলেট লিমিটেডের পরিচালনা পরিষদের সভায় এই রিসোর্ট বিক্রি করার সিদ্ধান্ত হয় এবং রাজধানীর বনানীতে অবস্থিত ট্রেডলজি লিমিটেড তা ক্রয় করার ইচ্ছা প্রকাশ করলে বিগত ২২.০৮.২০১৭ ইং তারিখে ক্রয় সংক্রান্ত চুক্তিপত্র সম্পাদিত হয়।

চুক্তি মোতাবেক রিসোর্টের মূল্য বাবদ ২৯,০০,০০,০০০/- (উনত্রিশ কোটি) টাকা এবং সেই সাথে সাউথ ইস্ট ব্যাংক লাল দিঘীরপার শাখায় এক্সেলসিয়র সিলেট লিমিটেডের বিদ্যমান সমূদয় ঋণ ট্রেডলজি লিমিটেড পরিশোধ করবে।চুক্তি মোতাবেক ৫০ লাখ টাকা অগ্রীম দিয়ে ট্রেডলজি এই হোটেল এন্ড রিসো্র্টে ব্যবসা শুরু করে। ছয় মাসের মধ্যে সব টাকা পরিশোধের কথা থাকলেও মাসের পর মাস অতিবাহিত হলেও বাকী টাকা পরিশোধ করেনি।

এদিকে চুক্তির পর থেকে ট্রেডলজির এমডি আবু ফয়সল জনির পক্ষে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের শাহ্‌ পরান শাখার ম্যানজোর ইকবাল হুসাইন খান প্রতিষ্ঠানের হিসাব নিকাশ সহ সকল কার্যক্রম দেখা শোনা করতেন। জানুয়ারী ২০১৮ থেকে হিসাব বিভাগে ওলদিুজ্জামান খান নামে আরো একজন যুক্ত হন । এ্ই সুযোগে এক্সেলসিয়র সিলেট হোটেল এন্ড রির্সোটের একটি ব্লাঙ্ক চেক নিয়ে ট্রেডলজির নামে ১০ কোটি ২০ লাখ টাকা লিখে ভূয়া স্বাক্ষর দিয়ে ১৪ জুলাই ২০১৮ তারিখে ব্যাংকে জমা করা হয়।

এই জালিয়াতির বিষয়টি অবহিত হয়ে এক্সেলসিয়র সিলেটের পক্ষ থেকে ব্যাংকে চেক স্টপ করানো হয় এবং ফ্রড করার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এমতাবস্তায় নতুন ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ট্রেডলজির চেয়ারম্যান মো: আল আমিন গং সাঈদ চৌধুরীকে অপহরনের প্রচেষ্টা করে।

উল্লেখ্য, প্রবাসী লেখক-সাংবাদিক সাঈদ চৌধুরী বিলেতে সাপ্তাহিক ইউরো বাংলা ও অনলাইন দৈনিক সময়ের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হিসেবে বাংলা সাংবাদিকতায় অনন্য ভুমিকা পালন করছেন। সাঈদ চৌধুরীর সম্পাদনায় ২০০৩ সালে প্রকাশিত হয় বৃটেনে বাংলাদেশী ব্যবসা বিষয়ক গাইড ইউকে বাংলা ডাইরেক্টরি। ২০০৮ সালে বৃটেনের সকল এশিয়ান রেষ্টুরেন্ট নিয়ে তিনি সম্পাদনা করেন ইউকে এশিয়ান রেষ্টুরেন্ট ডাইরেক্টরি। ২০১০ সালে ইসলাসিক সম্মেলন সংস্থার (ওআইসি) ৫৭টি দেশের তত্ত্ব ও তথ্য সমৃদ্ধ মুসলিম ইন্ডেক্স সম্পাদনা করে সাঈদ চৌধুরী ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেন। তার এই ডাইরেক্টরি সমূহ ব্যবসা-বাণিজ্য ছাড়াও প্রাত্যহিক জীবনে এক অপরিহার্য অনুসঙ্গ।

মানবতার কল্যাণে নিবেদিত সাঈদ চৌধুরী রোটারি আন্দোলনের সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত। তিনি রোটারি ক্লাব অব সিলেট সিটির চার্টার প্রেসিডেন্ট।

পর্যটন শিল্পের বিকাশ ও বাংলাদেশে এনআরবি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি কারি লাইফ বিজনেস এচিভমেন্ট এওয়ার্ড লাভ করেছেন। সমাজ উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের জন্য লন্ডন বারা অব টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের মেয়র এওয়ার্ড এবং নিউহাম ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট এওয়ার্ড সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংগঠন ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সম্মাননা পেয়েছেন তিনি। আমেরিকান বায়োগ্রাফিকাল ইন্সটিটিউটের ইন্টারন্যাশনাল ডাইরেক্টরি অব ডিসটিংগুই্জ্ড লিডারশীপের অস্টম সংখ্যায় হাতে গোনা যে কয়জন ব্যক্তির স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে, তার মধ্যে সাঈদ চৌধুরী অন্যতম।

২০১২ সালে সাঈদ চৌধুরী বৃটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের (বিবিসিসি) ডাইরেক্টর নির্বাচিত হন এবং ২০১৩ ও ১৪ সালে বিবিসিসির প্রেস ও পাবলিসি ডাইরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমান বিশ্ব বাণিজ্যের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের শিল্প-বাণিজ্যে ব্যাপক গতি সঞ্চারের লক্ষ্যে যুক্তরাজ্যে আয়োজন করা হয় এক্সপো বাংলাদেশ। এর অন্যতম সংগঠক তিনি।

সাঈদ চৌধুরীকে অপহরণের চেষ্টার খবর পেয়ে প্রবাসীদের মাঝে উদ্বেগ ও উৎকন্ঠার সৃষ্টি হয়েছে। বিমান বন্দরের ঐ সময়ের সিসি টিভি ফুটেজ দেখে বিহিত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের প্রতি তারা জোর দাবী জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন



সিলেট মিডিয়া ক্লাবের অভিষেক ও ইফতার মাহফিল

বর্ণিল আয়োজনের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে...

দুদক আতঙ্কে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

নিউজ ডেস্কঃ ভর্তিতে অতিরিক্ত ফি...

শেখ হাসিনা বিশ্ব শান্তির দিশারি -ফ্রান্স আওয়ামীলীগ

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ...