লন্ডন এন্টারপ্রাইজ একাডেমীর ৪র্থ বার্ষিক এওয়ার্ড বিতরণী অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত : ২১ জুলাই, ২০১৮     আপডেট : ২ বছর আগে

লন্ডন এন্টারপ্রাইজ একাডেমীর ৪র্থ বার্ষিক এওয়ার্ড বিতরণী অনুষ্ঠান লন্ডনের বেথনাল গ্রীণস্থ অট্রিয়াম ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হয়।
লন্ডন এন্টারপ্রাইজ একাডেমীর বিগত দিনের অর্জন ও অগ্রগতি, একাডেমিক, ক্রীড়া এবং শিক্ষাক্ষেত্রে সাফল্য উদযাপনের লক্ষ্যে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থী, স্টাফ, অভিভাবকবৃন্দ ও গভর্ণরসহ ৬ শতাধিক অতিথি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
লন্ডন এন্টারপ্রাইজ একাডেমির প্রিন্সিপাল আশিদ আলী, বিশ্ব বরেণ্য সার্জন প্রফেসর শফি আহমদ, প্যারা অলিম্পিকেল গোল্ড মেডালিস্ট কোচ লিন্ডন লিচ এবং ট্রাস্ট মেম্বার সারা প্যাটারসনসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা সংশ্লিষ্টদের মাঝে পদক বিতরণ করেন।
অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন হাফিজ আব্দুল ওয়াসিফ। এছাড়া, অনুষ্ঠানে নাশিদ পরিবেশন, তবলা ও ড্রাম বাদ্য পরিবেশন করা হয়।
অনুষ্ঠানে প্রফেসর শফি আহমেদ তার উদ্দীপনামূলক বক্তব্যে মাত্র ৪ বছর বয়সে পিতা মাতার সাথে বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্যে আসার পর বিশ্ব বরেণ্য সার্জন হয়ে উঠার কাহিনী বর্ণনা করেন। তিনি ছোট বেলা থেকেই নিজের উচ্চ লক্ষ্য স্থির করা এবং তার কঠোর পরিশ্রমের জন্য শিক্ষার্থীদের প্রতি তাগিদ প্রদান করেন।
প্রিন্সিপাল আশিদ আলী তার বক্তব্যে অফস্টেড পরিদর্শনে দুই বার ইতিবাচক মূল্যায়নের বিষয়টি সংক্ষেপে উপস্থাপন করেন। তিনি জানান, লন্ডন এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের অনেক শিক্ষার্থী মেধা যাচাইমূলক গণিত, বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় কৃতিত্ব প্রদর্শণ করে পদক লাভ করেছে। আমরা এখন ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিতব্য জি.সি.এস.ই পরীক্ষায় প্রথম বারের মত অংশ নিয়ে কৃতিত্ব প্রদর্শণের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছি।
প্রিন্সিপাল আশিদ আলী জানান, চলতি বছরে প্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষার্থী আবাসিক ভ্রমণ, বিশ্ববিদ্যালয়, যাদুঘর ও থিয়েটার পরিদর্শনসহ বিভিন্ন অভিজ্ঞতা বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রমে অংশ নিয়েছে। আমাদের অনেক শিক্ষার্থী স্থানীয় ও আঞ্চলিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায়ও সাফল্য প্রদর্শন করে পদক লাভ করেছে, যা আমাদেরকে গর্বিত করেছে।
লন্ডন নগরীর কমার্শিয়াল স্ট্রিটে অবস্থিত এ স্কুলটি ২০১৪ সালে একটি ফ্রি স্কুল হিসেবে তার যাত্রা শুরু করে। পরবর্তীতে দিন দিন এর পরিধি বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রিন্সিপাল আশিদ আলী স্বল্প সময়ে স্কুলের এই সাফল্যের নেপথ্য কারণ ব্যাখ্যা করে বলেন, স্কুলের এই অগ্রযাত্রায় বিদ্যালয়ের দক্ষ শিক্ষক এবং তাদের সহায়তায় নিয়োজিত নিবেদিতপ্রাণ সাপোর্টিং স্টাফ সবচয়ে বেশী অবদান রেখেছেন। তিনি স্কুলকে এগিয়ে নিতে তার প্রত্যয় পুণর্ব্যক্ত করে বিগত দিনে স্কুলটিকে সার্বিক সহায়তা ও সমর্থন প্রদান করায় বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী, শিক্ষকবৃন্দ, সাপোর্টিং স্টাফ এবং অভিভাবকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।
প্রিন্সিপাল আশিদ আলী স্কুলের ধারাবাহিক সাফল্য ও সমৃদ্ধি অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে বলেন, আমাদের এই অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে এবং শিক্ষার্থীরা তাদের জীবনের সর্বোচ্চ লক্ষ্যে পৌছাবে এটিই আমাদের অঙ্গীকার।
প্রিন্সিপাল আশিদ আলী শিক্ষার্থীদের উদ্দীপিত করে নবীন প্রজন্মকে চিকিৎসা, আইন পেশা, আর্থিক খাতসহ সকল ক্ষেত্রে উন্নত পেশাগত অবস্থান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আগামী দিনে উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অধ্যয়নে ব্রতী হয়ে লন্ডন সিটি ও ক্যানারি ওয়ারফের মত বড় প্রতিষ্ঠানে কাজ করার লক্ষ্য স্থির করার তাগিদ দেন।
লন্ডন এন্টারপ্রাইজ একাডেমি ইতোমধ্যে দু’দফা অফস্টেড পরিদর্শণ রিপোর্টে ইতিবাচক মন্তব্য পেয়েছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-
ক্স প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র লিডার-রা শিক্ষার্থীদের অগ্রগতি ও লক্ষ্য অর্জনের জন্য সব ধরনের সহায়তা প্রদান করেন।
ক্স শিক্ষার্থীরা তাদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য ধারাবাহিক ও টেকসহ পন্থায় অগ্রগতি অর্জন করেছে।
ক্স পড়াশোনার বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগ্রহ ইতিবাচক বলে মনে হয়েছে।
ক্স শিক্ষকরা যথাযথভাবে দক্ষভাবে শিক্ষার্থীদেরকে দ্রুততম সময়ে তাদের পাঠ সম্পন্ন করার বিষয়টি নিশ্চিত করেন এবং কার্যকর রুটিন অনুসরণ করেন।

প্রিন্সিপাল আশিদ আলী বিদ্যালয়ের পুরস্কারপ্রাপ্তদের ধন্যবাদ জানান এবং অবকাশকালীন সময়ে তাদের পড়াশুনা অব্যাহত রাখার জন্য তাগিদ প্রদান করেন। অবকাশকালীন সময়ে লেখাপড়া অব্যাহত রাখলে তারা পিছিয়ে পড়বেনা বলে মন্তব্য করেন তিনি।
তিনি টাওয়ার হ্যামলেট্স ও আশপাশের এলাকার অধিবাসীকে এই স্কুল ‘বিশেষ কিছু’ বলে মন্তব্য করেন এবং স্থানীয় পরিবারগুলোর যারা উৎসাহিত করেন স্কুলে তাদের আসন সংরক্ষণে এই স্কুল পরিদর্শনে আসার আমন্ত্রণ জানান।
প্রিন্সিপাল আশিদ আলী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমরা মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার সুযোগ পেয়েছ। তোমাদেরকে এই যাত্রাপথকে উপভোগ করতে হবে এবং তোমাদেরকে আগামী দিনে বৃহৎ পরিসরে পা রাখার জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। জীবনের প্রতিটি পর্যায় থেকে তোমাদেরকে শিক্ষা গ্রহণ করে তোমাদের অভিজ্ঞতার ঝুলিকে সমৃদ্ধ করতে হবে।
উপসংহাওে প্রিন্সিপাল আশিদ আলী বলেন, আমি বিশ্বাস করি যে, শিক্ষা ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজকে বদলে দিতে পারে। আমি নিজে এর প্রমাণ এবং শিক্ষার মাধ্যমেই আপনার সন্তান এই নগরীতে তার সাফল্য ও প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে পারে।

আরও পড়ুন

সচেতনতা মশক নিধনে সবচেয়ে বড় অস্ত্র – কাউন্সিলর কয়েস লোদী

হাউজিং এস্টেট এসোসিয়েশন-এর উদ্যোগে সোমবার...

সিলেট জেলা শাখার উদ্যোগে অবসরপ্রাপ্ত নেতৃবৃন্দদের সংবর্ধনা

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রাথমিক...

বালাগঞ্জ পুলিশের হাতে ১৬মামলার আসামী গ্রেফতার

বালাগঞ্জ থানা পুলিশ ১৬মামলার পলাতক...