র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় আমি জাতির কাছে ক্ষমা চাইছি: ড. জাফর ইকবাল

প্রকাশিত : ০২ মার্চ, ২০১৮     আপডেট : ৩ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশিষ্ট লেখক ও শিক্ষাবিদ এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন শিক্ষার্থীদের র‌্যাগ দেয় ওই ছাত্রদের আমি শিক্ষক সে জন্য লজ্জিত, জাতির কাছে ক্ষমা চাইছি। নবীন শিক্ষার্থীদের র‌্যাগ দেয়ার অপরাধ তাদের বিরুদ্ধে প্রমাণিত হয়েছে, শাস্তি দেয়া হয়েছে। সেই শাস্তিটা গ্রহণ করে ওদের ক্ষমা চাওয়া উচিত ছিল। কিন্তু সেটা না করে তারা আন্দোলন করা শুরু করেছে এবং বিশ্বদ্যিালয়ের বাকি ছাত্রদের কষ্ট দিচ্ছে। শুধু তাই না তারা শিক্ষকদের সঙ্গেও বেয়াদবি করেছে। এতে আমি খুবই লজ্জা পাচ্ছি যে এই ঘটনা আমাদের ক্যাম্পাসে ঘটেছে।

আজ শুক্রবার সকালে সাংবাদিকদের সাথে আলাপ কালে তিনি এ সকল কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, আমি যে বিশ্বদ্যিালয়ে শিক্ষক আমি যে ছাত্রদের পড়াই সেই ছাত্ররা এই কাজ করতে পারে আমি খুবই লজ্জিত। জাতির কাছে ক্ষমা চাইছি আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা এই কাজ করেছে, তাদের যে শাস্তি দেয়া হয়েছে সেই শাস্তিটা আসলে খুবই কম শাস্তি হয়েছে। আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি তাদেরকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া দরকার ছিল এবং রাষ্ট্রীয় আইনে তাদেরকে বিচার করার দরকার ছিল। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যেন এই ধরনের কুৎসিত আন্দোলনের কাছে মাথা না নোয়ায় এবং শাস্তি বহাল রাখে। তাহলে এই ধরনের সমস্যা কমে যাবে। অনেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় র‌্যাগিং খুব ভাল জিনিষ বলে এর পক্ষেও কথা বলছে। তা দেখে আমি খুব লজ্জিত।
প্রসঙ্গত, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছয় নবীন শিক্ষার্থীকে র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় একই বিভাগের দুইজনকে আজীবন বহিষ্কারসহ আরো তিনজনকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয় সিন্ডিকেট। এছাড়া আরো ১৪ জনকে বিভিন্ন মাত্রায় জরিমানা করা হয়। আজীবন বহিষ্কারাদেশের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার দাবিতে তাৎক্ষণিকভাবে গত বুধবার বিশ^বিদ্যালয়ের গোলচত্ত্বরের সড়ক অবরোধ করে অবস্থান নিয়েছিল ঐ বিভাগের শিক্ষার্থীরা। পরবর্তীতে একই দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা থেকে ৩টা পর্যন্ত সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে প্রধান ফটক বন্ধ করে আন্দালন শুরু করে। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন বন্ধ করে দিয়ে প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়। এসময় শিক্ষকদের প্রবেশ করতে দিলেও শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে দেয়নি আন্দোলনকারীরা। পরবর্তীতে বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ভিসি ভবনের সামনে অবস্থা নেয় তারা। পরবর্তীতে প্রশাসনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে রাত ৯টায় সাময়িকভাবে আন্দোলন স্থগিত করে শিক্ষার্থীরা।মানবজমন


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

সিলেটে একাদশ বিশ্ব অটিজম দিবস পালিত

         আবদুস সোবহান ইমন : ‘নারী...

সত্যিকারের কবি-সাহিত্যিকরাই দেশের গৌরব

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: মরহুম বায়তুল্লাহ...

১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৫০ শয্যায় উন্নীত

         সিলেট-৩ আসনের এম.পি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়...

হবিগঞ্জ জেলায় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন নবীগঞ্জের ইউএনও বিশ্বজিত কুমার পাল

         নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জ উপজেলার সুযোগ্য উপজেলা...