রোটারিয়ান মানেই পরোপকারী দানশীল ও মননশীল মানুষ

প্রকাশিত : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮     আপডেট : ১ বছর আগে  
  

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক:রোটারী ক্লাব অব সিলেট সিটি আয়োজিত অনুষ্ঠানে বৃটিশ গবেষক জেমস লয়েড উইলিয়ামস বলেছেন, রোটারিয়ান মানেই পরোপকারী দানশীল ও মননশীল মানুষ। আর রোটারী ক্লাব হলো বিশ্বব্যাপী সৎ ব্যবসায়ী ও মহৎ পেশাদার ব্যক্তিদের সংগঠন। বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান হিসেবে উচ্চস্তরের মানদণ্ড, সমাজ সেবা ও আন্তর্জাতিক বোঝাপড়ায় রোটারী ক্লাবের ভূমিকা অপরিসীম।
১২ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ওয়েস্ট পয়েন্ট কলেজ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন রোটারী ক্লাব অব সিলেট সিটির প্রেসিডেন্ট বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সাঈদ চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ গ্রহন করেন সিলেট আইডিয়াল কলেজের চেয়ারম্যান রোটারিয়ান নুরুর রহমান, এক্সেলসিয়র সিলেট হোটেল এন্ড রিসোর্টের জেনারেল ম্যানেজার হুমায়ুন কবির চৌধুরী, রোটারিয়ান দিলওয়ার আহমদ রাফী প্রমুখ।
বিশ্বব্যাপী পোলিও নির্মূলে রোটারী ক্লাবের অবদান চির স্মরণীয় উল্লেখ করে জেমস লয়েড উইলিয়ামস আরো বলেন, রোটারি ফাউন্ডেশন প্রতিবছর গ্র্যাজুয়েট লেভেলে উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা-সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে পড়তে ইচ্ছুক শিক্ষার্থিদের জন্য স্কলারশিপ দিয়ে থাকে। বিশ্বের যেকোনো অনুমোদিত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এই স্কলারশিপ পাওয়া যায়। এ কর্মসূচির আওতায় পরিচালিত গ্লোবাল গ্র্যান্ট স্কলারশিপ ফর ডেভেলমেন্টে শান্তি ও সংঘাত, রোগ প্রতিরোধ ও চিকিৎসা, পানি ও স্যানিটেশন, মা ও শিশুস্বাস্থ্য, অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন প্রভৃতি বিষয়ে শিক্ষার্থিদের উৎসাহিত করা হয়।
রোটারী ক্লাব অব সিলেট সিটির প্রেসিডেন্ট সাঈদ চৌধুরী বলেন, রোটারী ক্লাব সমূহ পৃথিবী জুড়ে সঙ্গতি ও সংহতি বিকাশে স্বেচ্ছাপ্রণোদিত কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। বিশ্বের সকল মানুষের মধ্যে বর্ণ বৈষম্যহীন উন্নততর সম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে এই সংস্থার অবদান অসামান্য। ব্যাক্তিত্ব বিকাশ, কর্ম দক্ষতা বৃদ্ধি ও সুবিধা বঞ্চিত অসহায় মানুষের জীবনমান উন্নয়নে রোটারী ক্লাবের বিকল্প নেই।
রোটারী ক্লাব অব সিলেট সিটি কর্তৃক গৃহিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে-
* জলবায়ুর পরিবর্তন ও পরিবেশ বিপর্যয় থেকে বাচাঁর জন্য প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার স্বার্থে ‘গাছ লাগান পরিবেশ বাঁচান’ শ্লোগানকে সফল ও স্বার্থক করতে রোটারী ক্লাব অব সিলেট সিটি ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহন করেছে। ইতিমধ্যে সাউথ সুরমা হাই স্কুল, লালাবাজার ইউনিয়ন কমপ্লেক্স, দয়ামীর শিশু পল্লী সহ বিভিন্ন স্থানে বৃক্ষ রোপন করা হয়েছে।
* সিলেট আইডিয়াল কলেজে শিক্ষার্থিদের মধ্যে বই ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে কবি আল মাহমুদ চর্চা শীরোনামে তাঁর ছড়া ও কবিতা আবৃতি এবং প্রবন্ধ পাঠে ১ম ২য় ও ৩য় স্থান অর্জন কারিদের ‘কালজয়ী কবিতার শ্রষ্টা আল মাহমুদ’ বই ও অন্যান্য শিক্ষা সামগ্রী উপহার দেয়া হয়েছে।
* সিলেট সদর উপজেলার হাটখোলা ইউনিয়নে গরীব অসহায় মানুষের চিকিৎসা সেবা প্রদানে বিশেষ কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। হাটখোলা ইউনিয়নের নোওয়া গাও গ্রামে অবস্থিত আদর্শ ফার্মেসিতে প্রতি শুক্রবার বাদ জুম্মা ফ্রি চিকিৎসা প্রদান করা হয়।
* ওয়েস্ট পয়েন্ট কলেজ ও সিলেট আইডিয়াল কলেজের সাথে যৌথ প্রয়াসে কয়েকজন গরীব মেধাবী শিক্ষার্থিদের পড়ালেখার খরচ বহন করা হয়।
* মহান বিজয় দিবসে হাঠখোলা ইউনিয়নে গরিব ও অসহায় মানুষদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে।
* নববর্ষের শুরুতে জালালাবাদ ইউনিয়নে শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ সহ শিক্ষার্থিদের মেধা বিকাশে বিশেষ কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন