রাসূলের প্রতি বিদ্বেষপূর্ণ আচরণ বৈশ্বিক জঙ্গিবাদ সৃষ্টির পায়তারা-গাউসিয়া কমিটি

,
প্রকাশিত : ৩০ অক্টোবর, ২০২০     আপডেট : ৪ সপ্তাহ আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষ্যে ১২ই রবিউল আউয়াল (৩০অক্টোবর ) গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ সিলেট জেলার উদ্যোগে শুক্রবার সকাল ১০টায় হযরত শাহজালাল (র.) এর দরগাহ প্রাঙ্গণ থেকে জশনে জুলুস বের করা হয়।
মিছিলটি নগরীর হযরত শাহজালাল (রঃ) মাজার প্রাঙ্গন থেকে বের হয়ে নগরীর প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে জালালাবাদ থানার মইয়ারচরস্থ মাদরাসা-এ-তৈয়বিয়া তাহেরিয়া হেলিমিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে জুলুসোত্তর আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মিলাদ মাহফিল শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করা হয়।
নেতৃবৃন্দ বলেন- যে মাসে প্রিয় হাবিবের আগমনে সারাবিশ্ব আনন্দে মাতোয়ারা ঠিক এমনই সময়ে ফ্রান্স সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় দয়াল নবীর প্রতি বিদ্বেষ পোষণ সম্পূর্ণ পরিকল্পিত। মুসলমানের কলিজায় আঘাত করার মানসে এমনটি করা হয়েছে। মুসলমানের ঈমানের মূল হাবিবের প্রতি অবমাননা সহ্য করা যায় না। জশনে জুলুস পরবর্তী সমাবেশে বক্তারা বলেন- রাসূলের প্রতি বিদ্বেষপূর্ণ আচরণ বৈশ্বিক জঙ্গিবাদ সৃষ্টির পায়তারা ছাড়া আর কিছু নয়। শান্তিময় পরিবেশকে অশান্ত করার হীন প্রয়াস। ফ্রান্সে এটা নতুন নয় আগেও তারা এহেন কর্মকান্ড করেছে। জাতিসংঘের নিরবতার কারণে বিশ্ব মানবতার অবতারের প্রতি অবমাননা করে যাচ্ছে। বক্তাগণ অবিলম্বে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জাতিসংঘ, ও আই সি’ র প্রতি ব্যবস্থা গ্রহনেরর আহবান এবং বাংলাদেশ সরকার যেন সংসদে নিন্দা প্রস্তাব আনে তার দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।
বক্তারা আরো বলেন, প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (দ.) বিশ্ব মানবতার জন্য আল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ করুণা ও অনুগ্রহ। মহানবীর আগমন ছিল সকল সৃষ্টির জন্য রহমত, বরকত ও মহা আনন্দের। তিনি সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও ধর্মীয় তথা সার্বিক দিক থেকে অধঃপতনের চরম সীমায় নিমজ্জিত সমাজকে খোদায়ী নির্দেশনার আলোকে সম্পূর্ণরূপে বদলে দিয়েছিলেন। গোটা মানব সমাজকে শান্তি, সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য, ভ্রাতৃত্ব ও মানবতার মহান আদর্শে উজ্জীবিত করেছিলেন। তিনি ইনসাফভিত্তিক শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে অনুসরনীয় নজীর স্থাপন করেন। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের যথাযথ অধিকার নিশ্চিত করে গেছেন।
তাঁর জীবনের প্রতিটি দিকই তাই সকলের জন্য অনুসরণীয়। ব্যক্তি জীবন থেকে শুরু করে রাষ্ট্র পরিচালনা পর্যন্ত সকল ক্ষেত্রে তিনি সারা দুনিয়ার জন্য শ্রেষ্ঠতম আদশ।
গাউসিয়া কমিটি সিলেট জেলা সভাপতি মিসবাহ উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ জালালুদ্দিন আল ক্বাদেরীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন- সাবেক সিভিল সার্জন ডা. ওয়ালী মাহমুদ খান, ১নং মোল্লারগাও ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মকন মিয়া, দরগাহে হযরত শাহজালাল (রা.) মুতাওয়াল্লী শামিউল মাহমুদ খান,মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান কছির উদ্দি, মো. ইলিয়াছ আলী মেম্বার, গাউসিয়া কমিটি সিলেট মহানগরে সভাপতি এস.এ.এম শহিদুল ইসলাম সেলিম, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র সেনার সাবেক সভাপতি মুহাম্মদ নুরুল হক চিশতী, ফজিলাতুন্নেছা মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা আহমদ আলী হেলালী, গাউসিয়া কমিটি সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক হুশিয়ার আলী,মাওলানা আনোয়ার হোসেন আনসারী, মাওলানা নুরুল আমিন, মাওলানা আজিজুর রহমান, মাওলানা মতিউর রহমান, মাওলানা মাসুদ আহমদ চৌধুরী, মাওলানা আবু গফুর সিদ্দিকী।
অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সাবেক ছাত্র সাইফুর ইসলাম,আলী আহমদ,তুহিনুর রহমান শাহাজান,তাহেরিয়া ওয়েলফেয়ার সোসাইটি সিলেটের সভাপতি মুহা. মাহবুব আলী চৌধুরী, সিনিয়র সহ সভাপতি জুবায়ের আহমদ, সহ সভাপতি মুহা. সাইফুর রহমান, মুহা. ইমাম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মুহা. রাকিবুল হাসান, সহ সাধারণ সম্পাদক মুহা. শাহেদ আলী, সাধারণ সম্পাদক মুহা. মিসবাহ শিহাব, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহা. আব্দুল্লাহ, অর্থ সম্পাদক মুহা. আলী আজগর চৌধুরী, সহ অর্থ সম্পাদক তাওহিদুল ইসলাম জুবায়ের, প্রচার সম্পাদক মুহা. লায়েক আহমদ, সহ প্রচার সম্পাদক আশিকুর রহমান রায়হান, আফদ্বল আহমদ, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক মুহা. ইদ্রিছ আলী, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো. নাঈম উদ্দিন, সহ সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রহমান রুবেল প্রমুখ।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন