রাজু হত্যাকান্ড জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক তিন ছাত্রদল নেতা মামলা হয়নি ॥ মৌলভীবাজারে গ্রামের বাড়িতে দাফন সম্পন্ন

Alternative Text
,
প্রকাশিত : ১৩ আগস্ট, ২০১৮     আপডেট : ৩ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক ফয়জুল হক রাজু খুনের ঘটনায় ছাত্রদলের তিন নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।
তারা হলেন-জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি লিটন আহমদ, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এখলাছুর রহমান মুন্না ও জেলা ছাত্রদলের বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (পদত্যাগকারী) আনোয়ার হোসেন রাজু।
কোতয়ালী থানার সহকারী কমিশনার সাদেক কাউসার দস্তগীর দুই ছাত্রদল নেতাকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রাত সাড়ে ১১টায় তিনি জানান, তখন পর্যন্ত এ ঘটনায় থানায় কোন মামলা হয়নি।
ছাত্রদলের একটি সূত্র তিনজনকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
ছাত্রদল সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, ওসমানী মেডিকেল কলেজে ময়নাতদন্ত শেষে নিহত ছাত্রদল নেতা ফয়জুল হক রাজুর মরদেহ গতকাল রোববার দুপুরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ। এরপর রাজুর লাশ গোসলের জন্য নিয়ে যাওয়া হয় নগরীর মানিক ীর টিলায়।
এ সময় সেখানে উপস্থিত জেলা ছাত্রদলের বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (পদত্যাগকারী) আনোয়ার হোসেন রাজুকে আটক করে সোবহানীঘাট ফাঁড়িতে নিয়ে যান ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই কামাল আহমদ। খবর পেয়ে ছাত্রদল নেতা লিটন আহমদ ও এখলাছুর রহমান মুন্না সোবহানীঘাট ফাঁড়িতে গেলে তাদেরকেও পুলিশ আটক করে নিয়ে যায় কোতয়ালী থানায়।
রাজুর দাফন সম্পন্ন ॥ এদিকে, দুই দফা নামাজে জানাজা শেষে মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার শাহপুর গ্রামে দাফন করা হয়েছে ছাত্রদল নেতা ফয়জুল হক রাজুকে। গতকাল রোববার বাদ এশা গ্রামের বাড়ী শাহপুরে দ্বিতীয় জানাযার নামাজ শেষে তাকে দাফন করা হয়।
বিকেল ৩টায় সিলেট নগরীর উপশহর এ-ব্লক মসজিদে রাজুর প্রথম জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় অংশ নেন- সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সদ্য নির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, জেলা বিএনপি’র সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব রব চৌধুরী ফয়সল, সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান আহমদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মাহবুবুল হক চৌধুরীসহ দলের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী।
জানাযা শেষে রাজুর লাশ নিয়ে যাওয়া হয় তার গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার শাহপুর গ্রামে। জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইমরান আহমদ চৌধুরী ও জেলা বিএনপি নেতা মইনুদ্দিন সোহেল এ সময় সাথে ছিলেন। লাশ পৌঁছার পর সেখানে হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়।
এর আগে বেলা দেড়টায় ময়না তদন্ত শেষে রাজুর লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
গত শনিবার রাতে সিলেট নগরীর কুমারপাড়া পয়েন্টে জেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট অন্তর্দ্বন্দ্বের জেরে ছাত্রদলের দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ছাত্রদল নেতা রাজু নিহত হন। এ ঘটনায় আহত হন ২ জন।
প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে ছাত্রদল নেতা আব্দুর রকিব চৌধুরীর বক্তব্য ॥ গতকাল রোববার দৈনিক সিলেটের ডাক-এর প্রথম পৃষ্ঠায় ‘কুমারপাড়ায় ছাত্রদলের দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১’ শীর্ষক একাংশের সাথে ভিন্নমত পোষণ করেছেন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সিলেট মহানগর শাখার সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রকিব চৌধুরী। এক প্রতিবাদলিপিতে তিনি বলেন, ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে তিনি কোনভাবে সম্পৃক্ত নন। বর্তমান কমিটিতেও তার কোন পদ-পদবী নেই। বর্তমানে তার ছাত্রত্বও নেই। প্রকাশিত সংবাদে বর্তমান কমিটিতে স্থান পাওয়া রকিব গ্রুপ হামলা চালিয়েছে মর্মে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে-এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তার কোন গ্রুপ-উপগ্রুপ নেই। এ ঘটনার সময় নবনির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বাসভবন কিংবা ঘটনাস্থলে তিনি উপস্থিত ছিলেন না। প্রকাশিত সংবাদে তাকে জড়িয়ে যে বক্তব্য প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, কাল্পনিক ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে তিনি মন্তব্য করেন।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

যুক্তরাজ্য প্রবাসী মো. মাফিজুর রহমান চন্দন সংবর্ধিত

        সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: জগন্নাথপুর উপজেলার...

৮৫ হাজার টাকা পেয়েও ফিরিয়ে দিলেন এক রিকশাচালক

        নগরীর জিন্দাবাজারে কুড়িয়ে পাওয়া ৮৫...

স্পেনে জাতীয় শোক দিবস পালন

        কবির আল মাহমুদ, স্পেন:যথাযোগ্য মর্যাদায়...

৩নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের আলোচনা সভা ও রক্তদান কর্মসূচী

        সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: সিলেট জেলা...