রাজুর মরদেহে ধারালো অস্ত্রের ৪৩ আঘাত

প্রকাশিত : ১৪ আগস্ট, ২০১৮     আপডেট : ১ বছর আগে  
  

সিলেটে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত ছাত্রদল নেতা ফয়জুল হক রাজুর মরদেহে ধারালো অস্ত্রের ৪৩ আঘাত শনাক্ত করেছেন ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকরা। বেশি গুরুতর আঘাত ছিল তার মাথা ও বুকে। দেহ থেকে অতিরিক্ত রক্তকরণের কারণে রাজু মারা যান। ময়নাতদন্তকারী সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রঙ্গসত, গত শনিবার (১১ আগস্ট) রাতে সদ্য নির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ফেরার পথে ছাত্রদলের একটি গ্রুপ রাজুসহ তার দুই সহযোগীর ওপরে হামলা করে। হামলার পর প্রায় ১০ মিনিট ধরে রাজুর রক্তাক্ত দেহ রাস্তায় ওপরে পড়েছিল। পরে তার সহপাঠীরা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ ফরেনসিক বিভাগের সূত্র জানায়, ময়নাতদন্তের সময় রাজুর ছিন্নভিন্ন দেহ দেখে হতভম্ভ হয়ে যান সংশ্লিষ্টরা। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে রবিবার (১২ আগস্ট) দুপুরে শুরু হয় ময়নাতদন্ত। নাম প্রকাশ না করে ফরেনসিক বিভাগের ময়নাতদন্তকারী সূত্র জানায়, রাজুর মরদেহে ধারালো অস্ত্রের ৪৩ কোপের চিহ্ন শনাক্ত করা হয়েছে।

সূত্রটি আরও জানায়, একেকটি কোপের আঘাত বেশ গভীর। সবচেয়ে বেশি গুরুতর আঘাত ছিল রাজুর মাথা এবং বুকে। এই দুটি আঘাতের কারণে শরীর থেকে প্রচুর রক্তকরণ হয়। মাথার ওপরের দুটি আঘাত ছিল দা অথবা লম্বা চাপাতি জাতীয় কিছুর। এছাড়া, তাকে হত্যার কাজে ব্যবহৃত হয় একাধিক ছোরা। রাজুর মাথার পেছনে বাম পাশে ছিল আরও সাতটি কোপ,কপালের ওপর একটি,ডান হাতের বাহু থেকে কব্জি পর্যন্ত ১২টি, দুই হাতে দুটি, চার আঙুলে চারটি, বাম হাতের কব্জির ওপরে একটি, বুকে দুটি ও পিঠে দুটি,ডান হাতের নিচে ১০টি এবং ডান পায়ে ধারালো অস্ত্রের আরও দুটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়নাতদন্তে রাজুর মরদেহে সব মিলিয়ে ৪৩টি কোপ বা আঘাত শনাক্তের বলা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক ফয়জুল হক রাজু (২৮) এলএলবিতে পড়াশোনার পাশাপাশি ছাত্রদলের একজন সক্রিয় নেতা ছিলেন। বিএনপি-ছাত্রদলের দলীয় কর্মসূচিতে রাজু সবসময় সক্রিয় থাকতেন। গত ১৩ জুন কেন্দ্রীয় ছাত্রদল থেকে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা হরা হয়। তখন থেকে পদবঞ্চিতরা ঘোষিত কমিটির বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু করেন। সংগঠনের কেন্দ্র থেকে যথাযথ মূল্যায়ন না পাওয়ায় দীর্ঘদিনের চেনা মানুষগুলোর সঙ্গে তার দূরত্ব সৃষ্টি হয়। যাদের হাতে রাজনীতির শিক্ষা নিয়েছিলেন,হঠাৎ করে তাদেরও প্রতিপক্ষ হয়ে যান তিনি।

সিলেট বিএনপি ও ছাত্রদলের একাধিক সূত্রের দাবি— নতুন কমিটি ভেঙে দিতে রাজুসহ পদবঞ্চিতরা নালিশ দিয়েছিলেন সিলেটের অভিভাবক মহল বিএনপিসহ কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের নেতাদের কাছে। কেন্দ্র থেকে তাদের আশ্বস্তও করা হয়েছিল— সিটি নির্বাচনের পর সিলেট ছাত্রদলের কমিটির বিষয়টি গুরুত্বসহকারে খতিয়ে দেখা হবে। কিন্তু তার আগেই রাজুকে হত্যা করা হয়।

এদিকে, রবিবারও (১২ আগস্ট) রাজু হত্যার ঘটনায় থানায় কোনও মামলা হয়নি। তবে হত্যার ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য পুলিশ রবিবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যায় দুজনকে আটক করেছে।
সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার ওসি মোশারফ হোসেন বলেন, ‘রাজু হত্যার সঙ্গে যাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে— তাদের অনেকের তথ্য পুলিশ পেয়েছে। তদন্তে বেশ কিছু অগ্রগতিও হয়েছে। পুলিশ নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ছাত্রদলের দুই নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য থানায় নিয়ে এসেছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে— কারা এই হত্যার সঙ্গে জড়িত।’

তিনি বলেন— ‘যতটুকু জেনেছি, রাজুর পরিবার মৌলভীবাজারে রয়েছে। অভিযোগ পেলে পুলিশ জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।’ তবে আটক দু’জনের পরিচয় জানাতে অনীহা প্রকাশ করেন ওসি।
পুলিশ সূত্র জানায়, রাজুকে এলোপাতাড়ি ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়। এই হত্যার পেছনে একাধিক ব্যক্তির সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এছাড়া, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন লিটন ও উজ্জলের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে পুলিশ। রাজু হত্যার পর থেকেই জড়িতরা আত্মগোপনে চলে যাওয়ায় পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতারে অনেকটা কৌশল অবলম্বন করে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

পুলিশ জানায়, রাজুর পরিবার ও তার সহপাঠীরা সন্দেহভাজন কয়েকজনের নাম, মোবাইল নাম্বার ও ফেসবুক আইডিসহ বিভিন্ন তথ্য পুলিশকে দিয়েছেন। ঘটনার সময় রাজুকে বহনকারী মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা লিটন। মোটরসাইকেলের মাঝখানে ছিলেন রাজু, আর পেছনে ছিলেন আহত উজ্জল। হামলাকারীরা পেছন থেকে গুলি ছুঁড়লে উজ্জল গুলিবিদ্ধ হয়ে মোটরসাইকেল থেকে মাঠিতে পড়ে যান। একই সঙ্গে মোটরসাইকেলটিও কাত হয়ে পড়ে যায়। এসময় হামলাকারীরা রাজুকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রাস্তার ওপরে ফেলে রেখে যায়। সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন

আরও পড়ুন



মাধবপুরে প্রতিহিংসার আগুনে পুড়ল ৫ গরু

আবুল হোসেন সবুজ,মাধবপুর(হবিগঞ্জ)প্রতিনিধি :  গ্রামীণ আধিপত্য...

কখন কোনটি বলতে হবে!

আল হামদুলিল্লাহ, ইনশাআল্লাহ, মাশা আল্লাহ…...

যুক্তরাজ্য প্রবাসী মো. মাফিজুর রহমান চন্দন সংবর্ধিত

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: জগন্নাথপুর উপজেলার...

চক্ষু অপারেশনে সাইক্লোন’র উদ্যোগে আর্থিক সহায়তা

সাইক্লোন, কেন্দ্রীয় সংসদের উদ্যোগে একটি...