‘রবীন্দ্র শতবর্ষ স্মরণোৎসব’ উদযাপন কমিটি পুনর্গঠন

প্রকাশিত : 22 October, 2019     আপডেট : ২ মাস আগে  
  

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একশ’ বছর আগে সিলেট সফরে এসেছিলেন। তাঁর আগমনের শতবর্ষ পূর্তিতে আগামী নভেম্বরে সিলেটে আয়োজন করা হয়েছে ‘রবীন্দ্র শতবর্ষ স্মরণোৎস’ । ৭ ও ৮ নভেম্বর দু’দিনব্যাপী উৎসবের সমাপনী দিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা। এ উৎসব উদযাপনে গঠিত উদযাপন পর্ষদ ও কার্যনির্বাহী পর্ষদ পুর্নগঠন করা হয়েছে।
পর্ষদের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এবং সদস্যসচিব সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।
গতকাল সোমবার দুপুরে নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে সংবাদ সম্মেলনে এ তালিকা প্রকাশ করেন পর্ষদের আহ্বায়ক, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এ এম এ মুহিত ছাড়াও কার্যনির্বাহী পর্ষদে যুগ্ম আহ্বায়ক হিসাবে বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, ব্যারিস্টার আরশ আলী, ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, জ্যোতির্ময় সিংহ মজুমদার চন্দন, যুগ্ম সদস্য সচিব আমিনুল ইসলাম লিটন, মিশফাক আহমদ মিশু, কোষাধ্যক্ষ বিধায়ক রায় চৌধুরী, সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, আসাদ উদ্দিন আহমদ, আশফাক আহমদ, তাপস দাশ পুরকায়স্থ, জগলুল পাশা, এ কে শেরাম, আজিজ আহমদ সেলিম, রানা কুমার সিনহা, আল আজাদ, ইকরামুল কবির, প্রফেসর শামীমা চৌধুরী, মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম, নিরঞ্জন দে যাদু, ডাঃ পুলিন কুমার সিংহ, প্রিন্স সদরুজ্জামান, শামসুল আলম সেলিম, গৌতম চক্রবর্তী, প্রতীক এন্দ, রজত কান্তি গুপ্ত, বাপ্পা ঘোষ চৌধুরী, মকসুদ আহমদ, অনিমেষ বিজয় চৌধুরী ও মামুন হাসানকে রাখা হয়েছে। এছাড়াও কমিটিতে ৫১ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যরা হলেন, (জ্যেষ্ঠতার ক্রমানুসারে নয়) পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান, পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি, হাফিজ আহমদ মজুমদার এমপি, মাহমুদ উস সামাদ কয়েস এমপি, মোকাব্বির খান এমপি, শাবি উপাচার্য, সিকৃবি উপাচার্য, সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি উপাচার্য, নর্থইস্ট ইউনিভার্সিটি উপাচার্য, লিডিং ইউনিভার্সিটি উপাচার্য, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি উপাচার্য, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ইনাম আহমদ চৌধুরী, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আহমদ আল কবির, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব নজিবুর রহমান, বিভাগীয় কমিশনার সিলেট, ডিআইজি সিলেট রেঞ্জ, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. ফরাস উদ্দিন, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক বিজিত কুমার দে, শিক্ষাবিদ প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ, একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী সুষমা দাস, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মো. সাদিক, সিলেট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট লুৎফুর রহমান, সিলেটে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার এল কৃষ্ণমূর্তি, শহীদ মিনার বাস্তবায়ন পরিষদের বীর মুক্তিযোদ্ধা সদর উদ্দিন আহমদ চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলী, সাবেক সচিব মোফাজ্জল করিম, সিএম শফি সামী, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, জালালাবাদ এসোসিয়েশন সভাপতি ড. একেএম মুবিন, সাবেক সভাপতি সিএম তোফায়েল সামী, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামাল, শিক্ষাবিদ সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, সমাজসেবী জেবা রশীদ চৌধুরী, ফাহমিদা রশীদ চৌধুরী, সেলিনা মোমেন, রাজনীতিবিদ সৈয়দা জেবুন্নেছা হক, সাংবাদিক হাসান শাহরিয়ার, পীর হাবিবুর রহমান, মতিউর রহমান চৌধুরী, নাট্যজন সুনির্মল কুমার দেব মীন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অনিল কিষণ সিংহ, হিমাংশু বিশ্বাস, লেখক ও সংগঠক রফিকুর রহমান লজু ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কবি তুষার কর।
সংবাদ সম্মেলনে আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাঙালি সাহিত্য ও সংস্কৃতির সিংহপুরুষ। তার রচনাবলীর মাধ্যমে বিশ্ব সাহিত্যে বাঙালি সুমহান আসন পেয়েছে। সাহিত্য-সংস্কৃতির এই মহাপুরুষ শতবর্ষ আগে সিলেটে এসেছিলেন। তার এই আগমন স্মরণ করতে যে উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে তাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও অংশগ্রহণ করবেন। এটা আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া। তিনি উৎসব সফলে সবার সহযোগিতা কামনা করেন।’
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ৭ ও ৮ নভেম্বর সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে হবে দু’দিনব্যাপী মূল উৎসব। তবে ১ নভেম্বর থেকেই সিলেটে রবীন্দ্র শতবর্ষ স্মরণোৎসবের বিভিন্ন কর্মসূচি শুরু হবে। এতে বাংলাদেশ ও ভারতের শিল্পী-সাহিত্যিকসহ গুণীজনরা অংশগ্রহণ করবেন।
উল্লেখ্য, ১৯১৯ সালের ৫ নভেম্বর সিলেট সফরে আসেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। এসময় তিনি নগরীর মাছিমপুরস্থ মণিপুরীপাড়া, নগরীর চৌহাট্টাস্থ গোবিন্দ নারায়ণ সিংহের ‘সিংহ বাড়ী’ এবং সিলেট এমসি কলেজ পরিদর্শন করেন। এ স্মৃতি স্মরণীয় করে রাখতে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে ।

পরবর্তী খবর পড়ুন : বিশ্বনাথ পৌরসভায় উন্নীত

আরও পড়ুন