ব্যক্তির মূল্যবোধ ও বুদ্ধিবৃত্তিকতার বিকাশে কেমুসাস ঐতিহ্যের দাবিদার

প্রকাশিত : ০৪ এপ্রিল, ২০১৯     আপডেট : ১২ মাস আগে  
  

মো. আব্দুল বাছিত:
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সাহিত্য-সংস্কৃতির চর্চা ও সংরক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে আসছে। এটা সিলেটের মানুষের জন্য যেমন গর্বের বিষয়, তেমনি ঐতিহ্যের দাবিদার। ব্যক্তির মূল্যবোধ ও বুদ্ধিবৃত্তিকতার বিকাশে কেমুসাস বইমেলা আয়োজনে যে ধারাবাহিকতা রক্ষা করেছে, তা উল্লেখযোগ্য হয়ে থাকবে।
কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ, সিলেট-এর দ্বাদশ কেমুসাস বইমেলার ২০১৯-এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এছাড়া আরিফুল হক চৌধুরী আরো বলেন, সিলেটে স্মরণকালের জন্য সুরমা নদীর তীরে বইমেলার আয়োজন করবে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। পাশাপাশি গড়ে তুলা হবে আকর্ষণীয় ও ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কিত জাদুঘর। তিনি কেমুসাস বইমেলায় সার্বিক সহযোগিতাসহ সংসদের যেকোনো কাজে সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। বৃহস্পতিবার সংসদের শহীদ সোলেমান হলে এই আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংসদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ করিম চৌধুরী। দ্বাদশ কেমুসাস বইমেলা ২০১৯-এর সদস্য সচিব এডভোকেট আব্দুস সাদেক লিপনের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী এবং দ্বাদশ কেমুসাস বইমেলা নিবেদিত সংসদের সাবেক সভাপতি এডভোকেট মশতাক হোসেন চৌধুরীর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি উপস্থাপন করেন সংসদের সহ সভাপতি গল্পকার সেলিম আউয়াল।স্বাগত বক্তব্যে সংসদের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী বলেন, সংসদ এক সমৃদ্ধ ইতিহাস-ঐতিহ্যের ধারক-বাহক। এদেশের ভাষা আন্দোলনপূর্ববর্তী, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধসহ সামগ্রিক পরিবেশে সংসদের রয়েছে স্বর্ণোজ্জ্বল ঐতিহাসিক অবদান। সংসদের দ্বারা প্রকাশিত আল ইসলাহ ভারতীয় উপমহাদেশের সাহিত্য-সংস্কৃতির এক অনুপম নিদর্শন ও ঐতিহ্য। কেমুসাস জাদুঘরেও রয়েছে ঐতিহ্যের নিদর্শন। বইমেলা আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতার জন্য তিনি সিটি কর্পোরেশনের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংসদের সাবেক সহ সভাপতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) জুবায়ের সিদ্দিকী, বর্তমান সহ সভাপতি লে. কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ, সহ সভাপতি মুহম্মদ বশিরুদ্দিন, কোষাধ্যক্ষ সৈয়দ মুহিবুর রহমান, কার্যকরী পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ মো. ছয়ফুল করিম চৌধুরী হায়াত, অভিভাবকদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন ব্যাংকার আনোয়ার হোসেন মিসবাহ, নূরুল হক। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আব্দুল কাদির জীবন। অনুষ্ঠানের শেষে সংসদের সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মুকিত অপির সঞ্চালনায় বিভিন্ন গ্রুপে চিত্রাংকন, আবৃত্তি, হাতের লেখা, ক্বিরাত, নির্ধারিত বক্তৃতা এবং বিতর্ক প্রতিযোগিতার বিজয়ীদেরকে পুরস্কার প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের অতিথিবৃন্দ বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। অনুষ্ঠানে সংসদের কার্যকরী পরিষদ সদস্য, অভিভাবকসহ সাহিত্য-সংস্কৃতির অঙ্গনের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন