বাংলাদেশের অনারারি কনসুল ও সিলেট চেম্বার নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়

,
প্রকাশিত : ২৭ জানুয়ারি, ২০২২     আপডেট : ৪ মাস আগে

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর, তুরস্কের কনিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের অনারারি কনসুল ও দি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র নেতৃবৃন্দের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় তুরস্কের কনিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের অনারারি কনসুল ডেনিজ বুলকর বলেন, তুরস্ক বাংলাদেশের কৃষি খাত ও লাইভ স্টক সেক্টরের উন্নয়নে কাজ করতে আগ্রহী। তুরস্ক থেকে বাংলাদেশ উন্নত কৃষি প্রযুক্তি আমদানি করতে পারে। এ ব্যাপারে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সাহায্যকারী হিসেবে ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি কনিয়া ফুড এন্ড এগ্রিকালচারাল ইউনিভার্সিটির সাথে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুরোধ জানান। উক্ত চুক্তির মাধ্যমে দুইটি ইউনিভার্সিটি ভবিষ্যতে একত্রে কাজ করতে পারবে।

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ মতিয়ার রহমান হাওলাদার বলেন, তুরস্ক কৃষি খাতে অত্যন্ত উন্নত। আমরা তুরস্কের সাথে যৌথভাবে বাংলাদেশের কৃষি খাতের উন্নয়নে কাজ করতে আগ্রহী। তিনি সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনের জন্য অনারারি কনসুল-কে ধন্যবাদ জানান এবং কৃষি গবেষণা সংক্রান্ত বিষয়ে কনিয়া ফুড এন্ড এগ্রিকালচার ইউনিভার্সিটির সাথে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর এবং একত্রে কাজ করার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেন।

সভায় সিলেট চেম্বারের সভাপতি ও এফবিসিসিআই এর পরিচালক তাহমিন আহমদ বলেন, তুরস্ক বাংলাদেশের উন্নয়নের অংশীদার হতে চায় এটি অত্যন্ত আনন্দের বিষয়। আমরা সিলেটের ব্যবসা-বাণিজ্য, পর্যটন, কৃষি, শিল্প ইত্যাদি সেক্টরের উন্নয়নে তুরস্কের সহযোগিতা চাই। তিনি সিলেটের কৃষিখাতে বিনিয়োগের জন্য তুরস্কের বিনিয়োগকারীদের আহবান জানান।

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন টার্ক-বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট এরদিল সিগিনমিস, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন, প্রফেসর ড. এম রাশেদ হাসনাত, প্রফেসর ড. মোঃ আসাদ-উদ-দৌলা, প্রফেসর ড. মৃত্যুঞ্জয় কুন্ড, প্রফেসর ড. মুহাম্মদ রাশেদ আল মামুন, প্রফেসর ড. মোঃ মোস্তফা শামসুজ্জামান, প্রফেসর ড. এ এস এম মাহবুব, ড. মোঃ তরিকুল ইসলাম, ড. মাহফুজুর রব, সিলেট চেম্বারের সহ সভাপতি জনাব মোঃ আতিক হোসেন, পরিচালক মোঃ হিজকিল গুলজার, ওয়াহিদুজ্জামান চৌধুরী (রাজিব), দেবাংশু দাস প্রমুখ।


আরও পড়ুন