ফেইসবুকে পোস্ট দেখে অসহায় পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী প্রদান

প্রকাশিত : ০৫ মে, ২০২০     আপডেট : ৩ মাস আগে

মখলিছ মিয়া,বানিয়াচং(হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি ।। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে একটি অসহায় কর্মহীন পরিবারের সদস্য না খেয়ে মানবেতর দিন পার করছে সেটা জানতে পেরে সেই অসহায় লোকের বাড়িতে খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী পৌছে দিয়েছেন বানিয়াচং উপজেলার মানবিক ইউএনও মোঃ মামুন খন্দকার। সোমবার (৪ মে) সকালের দিকে বানিয়াচং ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মৃত নায়েব আলীর পুত্র অসুস্থ্য বাবুল মিয়ার হাতে চাল,ডাল,আলু,তেল,সাবান,আপেল,মাল্টা,খেজুর,ছোলা,মুড়িসহ আনুষঙ্গিক খাদ্য সামগ্রী পৌছিয়ে দেয়া হয়। উপজেলা পিআইও অফিসের অফিস সহকারি দেবজিত অসুস্থ্য বাবুল মিয়ার বাড়িতে গিয়ে এসব খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী পৌছে দেন তিনি। গত রোববার (৩মে) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বানিয়াচং উপজেলা প্রশাসনকে লক্ষ্য করে একটি মানবিক আবেদন তুলে ধরেন তানভির রহমান নামে এক ফেসবুক ইউজার। পাশাপাশি তার এই পোস্ট সাংবাদিক রায়হান উদ্দিন সুমন ও সাংবাদিক মখলিছ মিয়ার ফেসবুক আইডিতেও ট্যাগ করেন তিনি। পরে বিষয়টি রোববার রাতেই নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকার মহোদয়ের নজরে আসলে তিনি এই দুই সাংবাদিকের মাধ্যমে ওই পরিবারের খোঁজ খবর নিয়ে পরের দিন (সোমবার)অসুস্থ্য বাবুল মিয়ার বাড়িতে খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। এই বিষয়ে বানিয়াচং উপজেলার সুযোগ্য নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকারের সাথে কথা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য-এই কথাটি মনের ভিতরে আগলে রেখে কাজ করে যাচ্ছি। একজন মানুষ ছাড়া যেমন আরেক জন মানুষ অসহায় তেমনিভাবে একটি জীবন ছাড়া আর একটি জীবন নি:সঙ্গ। আর বাস্তবে এ দুটিকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অসহায়দের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছি প্রতিনিয়ত। করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে ঘরে ত্রাণ সামগ্রী পৌছে দিচ্ছি আমরা। সরকারের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষকে ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। এতে দরিদ্র এবং অসহায়রা সমস্যায় পড়েছেন। আমরা চেষ্টা করছি সাধারণ মানুষের পাশে থাকার। অসুস্থ্য বাবুল মিয়ার বিষয়টি ফেসবুকে দেখা মাত্রই আমি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলে খোজঁ-খবর নিয়ে পরের দিন (সোমবার) খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী ব্যবস্থা করে তার বাড়িতে পাঠানোরা ব্যবস্থা করেছি। যারা ই এই ধরণের খাদ্য কষ্টে ভুগবে তাদের পাশেই আমিসহ আমার প্রশাসন সাধ্যমত দাঁড়ানোর চেষ্টা করবে ইনশাআল্লাহ।

আরও পড়ুন