প্রয়াত স্বামীর সম্পত্তি ফিরে পেতে যুক্তরাজ্য প্রবাসী নারীর আর্তি

প্রকাশিত : ১০ জুন, ২০২০     আপডেট : ২ মাস আগে

যুক্তরাজ্যে বসবাসরত অবস্থায় মারা যাওয়া সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার ঢাকাদক্ষিণের বারকোট গ্রামের আকরাম হোসেনের ক্রয়কৃত সম্পত্তি ও ভিটেমাটি দখল নিতে মরিয়া তারই সৎ ভাই ও ভাতিজারা। জাল দলিল সৃজনের মাধ্যমে তারা সম্পত্তি দখল করেও রেখেছে। আর তা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে আকরাম হোসেনের বিধবা স্ত্রী এবং সন্তানদের। এমনকি তাদের প্রাণনাশের হুমকিও দেওয়া হচ্ছে; পাশাপাশি তাদের নিযুক্ত তত্ত্বাবধায়ককে মারধর করে হাসপাতালেও পাঠিয়েছে দখলকারীরা। সম্প্রতি দেশে এলেও নিজের স্বামীর ভিটেমাটিতে যেতে পারছেন না মরহুম আকরাম মিয়ার স্ত্রী তৌমুননেছা।
বুধবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তৌমুননেছা এসব কথা তুলে ধরেন। তিনি স্বামীর রেখে যাওয়া সম্পত্তি ও ভিটেমাটিতে যেতে না পেরে দুঃখে অনেকবার যুক্তরাজ্যে ফেরত যাওয়ার পরিকল্পনাও করেছিলেন। কিন্তু অপরাধীদের ছাড় না দেওয়ার মানসিকতা থেকে তিনি সিদ্ধান্ত বদল করেছেন। তিনি দখলকারীদের কবল থেকে তার স্বামীর সম্পত্তি ও স্মৃতিচিহ্ন ভিটেমাটি ফেরত পেতে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনাও করেছেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘পিতৃহারা ২ ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে আমি যুক্তরাজ্যে বসবাস করে আসছি। দীর্ঘ সময় প্রবাসে থাকলেও নাড়ির টানে দেশে ফিরে আসি বার বার। ভিটেমাটি থাকার পরেও নিজ দেশে আমরা পরবাসী। বাড়ি আছে, ঘর আছে, রয়েছে জমিজমা। কিন্তু দেশে আসলেও স্বামীর রেখে যাওয়া বাড়িতে উঠতে পারছিনা জীবনের শঙ্কায়। আর সেই শঙ্কার কারণে দেশে গ্রামের বাড়িতে থাকা আপনজনরাই। সম্পত্তি আত্মসাতে তারা আমাদের মেরে ফেলতে চায়।’
তিনি বলেন, ‘তার স্বামী আকরাম মিয়াকে গ্রামের লোকজন বাবু লাল নামে বেশি চিনতো। ১৯৭১ সালে তিনি যুক্তরাজ্যে পাড়ি দিয়েছিলেন। সেখানে উপার্জিত অর্থ দিয়ে দেশে বাড়ি ও ক্ষেতের জমিসহ প্রায় ২৮ থেকে ৩০ কেদার জমি (এক হাজার ডিসিমেল) কিনেছেন তিনি। ১৯৯৯ সালে তিন সন্তানকে ছোট রেখে তিনি মারা যান। এরপর থেকেই সম্পদ গ্রাস করতে উঠেপড়ে লেগেছে তারই সৎ ভাই ছাবুল ও ছবুল মিয়া গংরা। আমরা দেশে আসতে চাইলে তারা আমাদের বাধা দেয়; নানাভাবে প্রাণনাশের হুমকিও দিতে থাকে। এরপরেও মাতৃভূমির টানে স্বামীর স্মৃতিবিজড়িত ভিটেমাটিতে অবস্থান করতে আমরা দেশে আসি। কিন্তু তাদের বাধার কারণে আজ পর্যন্ত নিজের ভিটায় যেতে পারিনি।’
তিনি বলেন, ‘স্বামীর মৃত্যুর পর জায়গা দেখাশোনার জন্য এক আত্মীয় ব্যাংকার নিছাই মিয়াকে আমোক্তার নিযুক্ত করে দেই। কিন্তু গত ২০ বছর ধরে ছাবুল ও তার ভাই ছবুল এই সম্পদের দখল নিতে মরিয়া হয়ে ওঠেছে। এর মধ্যে ছবুল নিজেও যুক্তরাজ্যে বসবাস করছে। সেখান থেকেই সে কলকাঠি নাড়ে। সব সময় আমাদের ভয়ভীতির মধ্যে রেখেছে। তারা আমাদেরকে সম্পত্তির মায়া ছেড়ে যুক্তরাজ্যে থাকার নির্দেশনা দিয়ে দেশে আসলে প্রাণনাশের হুমকিও দেয়। এ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দারস্থ হলেও কোন প্রতিকার পাননি বলেও জানান তিনি। ’
তিনি আরও উল্লেখ করেন, গত কিছুদিন হয় আমার সন্তানকে নিয়ে দেশে আসলেও আমি বাড়িতে গিয়ে উঠতে পারছি না। নিজের বাড়িঘর থাকতেও আমার সন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিতে হয়েছে। সর্বশেষ গত ৬ জুন সকালে আমোক্তার নিছাই মিয়ার উপর হামলা করে তাকে গুরুতর আহত করে ছাবুল মিয়াগংরা। এ ঘটনায় ৮ জুন গোলাপগঞ্জ থানায় ম্মালা দায়ের হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘প্রবাসীরা দেশের জন্য রেমিটেন্স যোদ্ধা। দেশের যে কোনো ক্রান্তিকালেও সহযোগীতা দিয়ে সরকারের হাতকে শক্তিশালী করে থাকি। কিন্তু আজ আমরা নিজ দেশে অসহায়। তিনি স্বামীর সম্পত্তি ফিরে পেতে সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন