সিলেটে পুলিশের সাথে ‘বন্দুক যুদ্ধে’ ডাকাত সদস্য নিহত

প্রকাশিত : ২৪ আগস্ট, ২০১৯     আপডেট : ৮ মাস আগে  
  

সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার মরিচা এলাকায় পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে এক ডাকাত নিহত হয়েছে শুক্রবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।জকিগঞ্জ অফিসার ইনচার্জ জনাব মীর মোঃ আব্দুন নাসের গোপন সংবাদ পান যে, জকিগঞ্জ থানাধীন ০৩ নং কাজলসার ইউনিয়নের অর্ন্তগত ০১ নং ওয়ার্ডের মরিচা সাকিনের প্রবাসী আব্দুল করিমের বাড়িতে ডাকাতির উদ্দেশ্যে একদল ডাকাত সমবেত হচ্ছে। এমন সংবাদের সত্যতা যাচাই এবং আইন শৃংখলা স্বাভাবিক রাখতে অফিসার ইনচার্জ জকিগঞ্জ রাত্রীকালীন টহল দলের সাথে মিলিত হয়ে অতিরিক্ত টহলের ব্যবস্থা করেন। রাত অনুমান ০১.৫৫ ঘটিকার সময় মরিচা সাকিনের সরকারি প্রাথিমিক বিদ্যালয়ের কাছে পৌছা মাত্র ডাকাতদল পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি ছুড়তে থাকে। আতœ-রক্ষার জন্য পুলিশ পাল্টা গুলি ছুড়ে। এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন প্রবাসী আব্দুল করিমের বাড়ীতে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে পেয়ে চিৎকার/চেঁচামেচি করলে পুলিশ গিয়ে তার সাথে থাকা দেশীয় তৈরি পাইপগানসহ তাকে আটক করে এবং তাৎক্ষনিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণের ব্যবস্থা করে। পরবর্তীতে ঘটনাস্থলের আশপাশে তল্লাশী অভিযান পরিচালনা করে ০১ টি ৩০ ইঞ্চি লম্বা রামদা, ০১ টি ছোরা, ০১ টি দরজা ভাঙ্গার লোহার রড় উদ্ধার করা হয়। আহত ব্যক্তির পরিচয় শনাক্তকালে জানা যায় সে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা থানার ধর্মদেহী সাকিনের নানু মিয়ার পুত্র আবুদস শহীদ @ ফুলু @ ফুলু ডাকাত। পুলিশের টহল দল গুলিবিদ্ধ ডাকাতকে নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাজির হলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুতপূর্বক মৃত আব্দুস শহীদ @ ফুলু @ ফুলু ডাকাতের মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতাল প্রেরণ করা হয়। ঘটনা সংক্রান্তে জকিগঞ্জ থানায় নিয়মিত মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। উল্লেখ্য তার নামে সিলেট জেলার বিভিন্ন থানায় অস্ত্র, ডাকাতি ও ডাকাতির প্রস্তুতিসহ মোট ০৬ টি মামলা রয়েছে।
সিলেট জেলার পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম বলেন, ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অপরাপর সহযোগী আসামীদের গ্রেফতারে সিলেট জেলার সকল থানার সমন্বয়ে যৌথ অভিযান পরিচালনার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

আরও পড়ুন