নয়া কমিটি গঠন নিয়ে সিলেটে বিএনপি-যুবদলে ক্ষোভ-অসন্তোষ

প্রকাশিত : 03 November, 2019     আপডেট : ১ মাস আগে  
  

কাউসার চৌধুরী সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের নয়া আহ্বায়ক কমিটি গঠনের প্রতিক্রিয়ায় সিলেটে দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ-অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় মতামতকে উপেক্ষা করে আহ্বায়ক কমিটির নাম ঘোষণা করায় ক্ষুব্ধ বিএনপি নেতারা। দলের কেন্দ্রীয় সদস্য ও মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ ৪ কেন্দ্রীয় নেতা যুবদলের কমিটি পুনর্গঠন না হলে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। প্রায় ১৯ বছর পর গত শুক্রবার জেলা ও মহানগর যুবদলের আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকেই সিলেটে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ সাখাওয়াত হাসান জীবন সিলেটের ডাককে বলেছেন, বিষয়টি শুনেছি। ইতোমধ্যে দলের মহাসচিবের নিকটও বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। আশা করি এর সুন্দর সমাধান হবে।
জাতীয়তাবাদী যুবদল সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুল আলম নীরব ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদলের আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেন। সিদ্দিকুর রহমান পাপলুকে আহবায়ক ও মকসুদ আহমদকে সদস্য সচিব করে সিলেট জেলা যুবদলের ২৯ সদস্য বিশিষ্ট এবং নজিবুর রহমান নজিবকে আহবায়ক ও শাহ নেওয়াজ বক্ত চৌধুরী তারেককে সদস্য সচিব করে সিলেট মহানগর যুবদলের আহবায়ক কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়। কমিটি ঘোষণার পরই সিলেট বিএনপি ও যুবদলে কমিটির পক্ষে বিপক্ষে শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। কমিটি দুটিকে ৯০ দিনের মধ্যে সকল শাখার সম্মেলন করে নিজ শাখার সম্মেলন করার নির্দেশনা রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
২০০০ সালের ফেব্রুয়ারীতে যুবদলের তৎকালীন সভাপতি মির্জা আব্বাস ও সাধারণ সম্পাদক গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের উপস্থিতিতে সম্মেলনের মাধ্যমে সিলেট জেলা যুবদলের কমিটি গঠন করা হয়। এরপর ১৯ বছর পেরিয়ে গেছে। দীর্ঘদিন ধরে কার্যত স্থবির হয়ে পড়ে জেলা যুবদলের কার্যক্রম। মহানগর যুবদলের কমিটি ঘোষণা হয়নি কখনো। এর ফলে নতুন কমিটি নিয়ে বিএনপি-যুবদলের মধ্যে আগ্রহেরও কমতি ছিল না। কিন্তু হঠাৎ করেই সিলেটের কোন নেতার সাথে আলোচনা-মতামত না নিয়েই কমিটি ঘোষণায় বিএনপির নেতারা ক্ষুব্ধ হন। বিক্ষুব্ধ নেতৃবৃন্দ শুক্রবার রাতেই একান্তে বৈঠক করেন। বৈঠকে কমিটি পুনর্গঠনের দাবি জানিয়ে বলা হয়, সকলের সমন্বয়ে কমিটি পুনর্গঠন না হলে দলীয় পদ থেকে পদত্যাগ করবেন। দলের কেন্দ্রীয় সদস্য ও মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সহ-ক্ষুদ্র ঋণ বিষয়ক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক, সহ-স্বেচ্ছাসেবক সম্পাদক সামসুজ্জামান জামান ও সদস্য ডাঃ শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী দলের পদ থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে কমিটি পুনর্গঠন হলে তারা এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসবেন বলে তাদের সাথে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
সিলেট জেলা যুবদলের নবগঠিত কমিটির আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান পাপলু বলেন, সকলের সমন্বয়েই কমিটি হয়েছে। ৯০ দিনের মধ্যে সম্মেলন করতে সময় বেধে দেয়া হয়। বিএনপি নেতৃবৃন্দ আমাদেরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। সকলের সহযোগিতায় আমরা যুবদলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। জেলা যুবদলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশিদ মামুন বলেন, সকলের সমন্বয়ে কমিটি করা হলে ভাল হতো। একতরফা এভাবে না করলেও হতো। তবে সকলের অংশগ্রহণে কমিটি হলে দলের আরো ভালো হবে।
সিলেট জেলা যুবদলের বিদায়ী কমিটির সাংগঠনিক সাদিকুর রহমান সাদিক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কেন্দ্র থেকে কাউকে না জানিয়ে কমিটি গঠন না করায় তারা ব্যথিত, মর্মাহত। তিনি বলেন, নয়া কমিটিতে পুরনো কমিটির একজনকেও রাখা হয়নি। যুবদল করতে গিয়ে তিনি ১১ মামলার আসামী হয়েছেন বলে জানান এ যুবদল নেতা। সাবেক ছাত্রদল নেতা মতিউল বারী চৌধুরী খুর্শেদ বলেন, যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি পুনর্গঠন না হলে দলের কয়েক সহ¯্রাধিক নেতা-কর্মী গণপদত্যাগ করতে পারেন।
বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য ডাঃ শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, এটা বিএনপির বিষয় নয়। তবুও নিয়ম না মেনে কমিটি হওয়ায় অনেকের মধ্যে ক্ষোভ আছে। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানাব। দলের কেন্দ্রীয় সদস্য ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, এক ব্যক্তির পছন্দমতো কমিটি দেয়া হয়। ছাত্রদল আগে হয়েছিল-এখন যুবদলেরও কমিটি হল। এটা বিএনপির ইস্যু নয়। কিন্তু বিএনপির মধ্যেও এর প্রভাব ফেলে। এর সুন্দর সমাধান না হলে পদ থেকে পদত্যাগ করব-তবে দল থেকে নয়। তিনি জানান, ইতোমধ্যে বিষয়টি সিনিয়র নেতৃবৃন্দকেও অবগত করা হয়েছে।
দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ সাখাওয়াত হাসান জীবন বলেন, সকলের সমন্বয়ে কমিটি পুনর্গঠন দরকার। কারণ দলকে ঐক্যবদ্ধ করতে সকলের অংশগ্রহণের বিকল্প নেই। বিষয়টি সম্পর্কে মহাসচিবসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ অবগত হয়েছেন বলে জানান তিনি। বিএনপির সিলেট বিভাগের সমন্বয়ক ও দলের সহ-সভাপতি ডাঃ এ জেড এম জাহিদ হোসেন সিলেটের ডাককে বলেন, এটা যুবদলের বিষয়। বিএনপির এ বিষয়ে জানার কথা নয়। এ বিষয়ে কেউ তার সাথে কথাও বলেননি বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন