নেপালকে হারিয়ে সেমিতে ফিলিস্তিন

প্রকাশিত : ০৬ অক্টোবর, ২০১৮     আপডেট : ১ বছর আগে  
  


আহমদ ইয়াসিন খান
‘মাস্ট উইন’ সমীকরণ পাস করতে পারেনি গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। ফিলিস্তিনের কাছে ১-০ গোলের হার মানে হিমালয়কন্যা খ্যাত নেপাল। তবে ম্যাচের স্কোর আরো বড় হতে পারতো, নেপালের গোলরক্ষক বিকেশ কুঠুর দৃড়তায় সেই ব্যবধান বাড়েনি। আর তাই দল হারলেও ‘ট্র্যাজিক হিরো’ হয়ে রইলেন বিকেশ, হাতে উঠেছে ম্যাচসেরার পুরস্কার। ফিলিস্তিনের এ জয়ে গ্রুপসেরা হয়ে সেমিতে পা রাখলো যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটি। আগামী ১০ অক্টোবর দ্বিতীয় সেমিফাইনালে স্বাগতিক বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে এখন পর্যন্ত গোল না খাওয়া দলটি।
বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্টের এবারের আসরের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মাঠে নামে নেপাল ও ফিলিস্তিন। সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে শনিবার সন্ধ্যে সাড়ে ৬টায় শুরু হয় ম্যাচটি। এ ম্যাচে জয় ছাড়া কোন পথ ছিল না নেপালের সামনে। তাও ৩-০ ব্যবধানের জয়। শিরোপর অন্যতম দাবিদার ফিলিস্তিনের বিপক্ষে এই ব্যবধানের জয় নেপালের জন্য বেশ কঠিনই ছিল। মাঠে তার ব্যতিক্রম ঘটেনি।
অপর দিকে, নিজেদের নামের সাথে সুবিচার করতে পারেনি এখন পর্যন্ত অপরাজিত থাকা ফিলিস্তিন। ম্যাচে বার বার আক্রমনে যেয়েও ফিরতে হয়েছে খালি হাতে। নেপালের রক্ষণ দেয়াল ভেদ করে গোল আদায়ে বেগ পেতে হয় ফিলিস্তিনকে। ম্যাচের ১৬ মিনিটে অল্পের জন্য গোল বঞ্চিত হন মুসা। তার নেয়া শটটি ঠেকিয়ে দেন নেপালের বিকেশ কুঠু। ২২ মিনিটে আবারো গোল বঞ্চিত হয় ফিলিস্তিন। খালেদ সেলিমের নেয়া হেডটি পারেনি বিকেশের হাত ফাঁকি দিতে।
৩৪ মিনিটে নেপাল প্রথম শট নেয় গোলে। বিমল মাগার ডি-বক্সের ভেতর থেকে শটটি নিয়েছিলেন কিন্তু দুর্বল শটটি তালুবন্দি করতে তেমন বেগ পেতে হয়নি ফিলিস্তিন গোলরক্ষক তাওফিক আবুহাম্মাদকে।
গোল পেতে মরিয়া ফিলিস্তিন দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে আরো বেশী চাপ সৃষ্টি করে নেপালের রক্ষণে। ৫১ মিনিটে কর্নার থেকে ভেসে আসা বলে হেড করেছিলেন ইসলাম বাতরান। আবারো বিকেশ কুঠুর হাতে সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়।
নেপাল প্রথমার্ধে রক্ষনাত্মক খেলে। দ্বিতীয়ার্ধে খোলস ছেড়ে আসে। তারপরও কাঙ্খিত গোলের সুযোগ সৃষ্টি করতে পারেনি বিশাল-সুনীলরা। উল্টো গোল খেয়ে বসে। ম্যাচের ৭০ মিনিটে দারুণ একটি আক্রমন থেকে গোল আদায় করে নেন খালেদ সালিম। বাম দিক থেকে ক্ষিপ্র গতিতে নেপালের রক্ষণে ঢুকে যাওয়া আব্দুল্লাহ জাবেরের মাইনাসে হেড করেন খালেদ সালিম।
ম্যাচের বাকি সময়ে দু’দলই চেষ্টা চলায় গোল আদায়ের। কিন্তু আর কোন গোল না হওয়ায় ১-০ গোলের হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ফলে গ্রুপ পর্ব থেকেই এবার বিদায় নিতে হলো নেপালকে।
তবে, দলের পারফরমেনসে সন্তুষ্ট বলে জানান নেপাল কোচ বাল গোপাল মহারাজন। ম্যাচ শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি জানান, ‘আমরা হয়তো হেরেছি। কিন্তু ছেলেদের পারফরমেনসে আমি খুশী। ফিলিস্তিন কঠিন প্রতিপক্ষ। তাদের বিপক্ষে খেলাটা কঠিন। সবদিক থেকেই তারা আমাদের চেয়ে উন্নত।’
ম্যাচসেরা হওয়া গোলকিপার বিকেশ কুঠু নিজের পারফরমেনসে সন্তুষ্ট। ‘ম্যাচসেরা হওয়ায় ভালো লাগছে। তবে দল জিতলে আরো ভালো লাগতো।’
সেমিফাইনালে বাংলাদেশকে মোকাবেলা করবে ফিলিস্তিন। স্বাগতিকদের প্রশংসা করতে ভুলেননি ফিলিস্তিন কোচ ওলদ আল্।ী ‘আমাদের মূল লক্ষ্য এশিয়া কাপ। এ জন্য টুর্নামেন্টে আসা। প্রস্তুতি ভালই হচ্ছে। সেমিফাইনালে প্রতিপক্ষ স্বাগতিকরা। বাংলাদেশ অনেক ভালো দল। দিনকে দিন তারা উন্নতী করছে। আশা করছি ভালো খেলা হবে।’
ফিলিস্তিন ও নেপালের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শেষ হলো টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্বের খেলা। আর এর সাথে পর্দা নামলো সিলেট পর্বের। আগামী ৯ ও ১০ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে প্রথম ও দ্বিতীয় সেমিফাইনাল। কক্সবাজারের বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়ামে ম্যাচ দুটি অনুষ্ঠিত হবে। ১২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে ফাইনাল। ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচটি।

আরও পড়ুন



‘পুষ্পাঞ্জলি’ সংকলনের জন্য লেখা আহবান

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: আসন্ন শারদীয়...

বানিয়াচংয়ে ফেরী করে ইয়াবা বিক্রিকালে জনতার হাতে যুবক আটক

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক : বানিয়াচংয়ে ফেরী...

সুখী

মুয়াজ বিন এনাম : চলতেছি...