নিহত রায়হানের স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব এসআই আকবরের

,
প্রকাশিত : ০৭ অক্টোবর, ২০২১     আপডেট : ২ মাস আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেট নগরের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে নিহত রায়হান আহমদের স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছেন মামলার প্রধান আসামি পুলিশের বহিষ্কৃত উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূইয়া। একই সঙ্গে মামলায় আপসের শর্তে রায়হানের মা ও সন্তানের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নেওয়ারও প্রস্তাব দেন তিনি।

রায়হান হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক আওলাদ হোসেনের দেওয়া অভিযোগপত্রেও আকবরকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। আর সিলেট মহানগর পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে রায়হানকে নির্যাতনের সত্যতা মেলায় বহিষ্কার করা হয় তাকে।

রায়হানের মৃত্যুর পরই পালিয়ে যান এসআই আকবর। গত বছরের ৯ নভেম্বর দুপুরে সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার লক্ষ্মীপ্রসাদ ইউনিয়নের ডোনা সীমান্ত এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বর্তমানে আকবরসহ অভিযুক্ত পাঁচ পুলিশ সদস্য কারাগারে থাকলেও নোমান পলাতক। জেল থেকে তিনি এক পুলিশ সদস্যের মাধ্যমে এমন প্রস্তাব দেন।

রায়হানের মা সালমা বেগম বলেন, কয়েকদিন আগে পুলিশের এক সদস্য আমাদের বাসায় আসেন। তিনি আরেকটি মামলায় কারাগারে ছিলেন। সেখানে আকবরের সঙ্গে তার দেখা হয় জানিয়ে ওই পুলিশ সদস্য জানান আকবর রায়হানের স্ত্রীকে বিয়ে করতে চান এবং আমার ও আমার নাতনির ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নিতে চান জানিয়ে তিনি আমাদের সম্মতি জানতে চান। তবে আমি আমাদের আপত্তির কথা তাকে জানিয়ে দিয়েছি। ছেলের খুনি ছেলের বউকে বিয়ে করবে এটা কোনোভাবেই মানতে পারবো না।

সালমা বলেন, এই প্রস্তাব পাঠানোর কিছুদিন পর আকবরের সঙ্গে কারাফটকে তাদের দেখা হয়। সেদিন আকবর আমাদের পা ধরে ক্ষমা চেয়েছেন।

দেশে-বিদেশে আলোচিত এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশের বিভাগীয় মামলায় সাক্ষ্য দিতে গত মাসে রায়হানের মা সালমা বেগম, স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নী ও সৎবাবা হাবিবুল্লাহকে পুলিশ সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার ফটকে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় আকবরসহ অন্য আসামিদেরও তাদের সামনে হাজির করা হয়। তখন আকবর তাদের কাছে ক্ষমা চান।

সালমা বেগম বলেন, ওইদিন আকবর আমার ও আমার স্বামীর পা ধরে অনেকক্ষণ কান্নাকাটি করেন। তিনি ক্ষমা চেয়ে আমাদেরকে তার প্রাণভিক্ষা দেওয়ার জন্য বলেন। আমাদের যাবতীয় দায়িত্ব নেবেন বলেও জানান আকবর।

রায়হানের মা বলেন, সেদিন আকবর আমাকে বলেছিল, আমরা ভুল তথ্য পেয়ে রায়হানের মতো ভালো একটি ছেলেকে নির্যাতন করেছি। আমাদের ভুল হয়েছে। আমরা বুঝতে পারিনি। আমাদের ক্ষমা করে দিন।

আকবরকে কখনও ক্ষমা করবেন না জানিয়ে সালমা বেগম বলেন, তিনি আমার নিরপরাধ ছেলেকে খুন করেছেন। তাকে আমি কখনোই ক্ষমা করব না। আমাদের ভরণ-পোষণের চিন্তা করতে হবে না। পারলে আমার ছেলেকে ফিরিয়ে দিন।

রায়হান যখন মারা যান তখন তার মেয়ে আলফার বয়স ছিল দুই মাস। সেই মেয়ে এখন ১৪ মাস বয়স। হাঁটা শিখছে। ধীরে ধীরে কথাও ফুটছে তার মুখে।

সালমা বেগম বলেন, গত ৩০ সেপ্টেম্বর মামলার কাজে আদালতে গিয়েছিলাম। এসে দেখি নাতনিটা কেবল বাবা বাবা করছে। সব সময়ই সে বাবাকে খোঁজে। কিন্তু পায় না। তার জন্য বুক ফেটে যায়। এই শিশুকে যে এতিম করেছে তাকে কী করে ক্ষমা করব?

তিনি বলেন, তাদের এই ক্ষমা প্রার্থনা আর বিভিন্ন ধরনের প্রস্তাবই প্রমাণ করে তারা আমার ছেলেকে হত্যা করেছে।

গত বছরের ১১ অক্টোবর ভোরে সিলেট নগরের আখালিয়ার এলাকার বাসিন্দা রায়হান আহমদকে (৩৩) কাষ্টঘর এলাকা থেকে ধরে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে নির্মম নির্যাতন করেন ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভুঁইয়াসহ পুলিশ সদস্যরা। পরে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

পুলিশের হেফাজতে নির্যাতনে রায়হানের মৃত্যুর ঘটনায় দেশজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের গ্রেপ্তারের দাবিতে নানা কর্মসূচি পালন করা হয়।

রায়হান হত্যার পরদিন ১২ অক্টোবর তার স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নী বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। প্রথমে থানা পুলিশ তদন্ত শুরু করলেও ১৩ অক্টোবর মামলাটি স্থানান্তর করা হয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) কাছে। হত্যাকাণ্ডের ৭ মাসের মাথায় গত ৫ মে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন বরখাস্ত হওয়া এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ ৬ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর ইন্সপেক্টর আওলাদ হোসেন।

পুলিশ হেফাজতে রায়হানরে মৃত্যুর ঘটনায় ময়নাতদন্ত রিপোর্টে রায়হানের শরীরে ১১১টি আঘাতের চিহ্নের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

অভিযুক্তরা হলেন- প্রধান অভিযুক্ত বন্দরবাজার ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভুঁইয়া, ফাঁড়ির টু-আইসি উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাসান উদ্দিন, এএসআই আশেক এলাহী, কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস, হারুনুর রশিদ ও ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ গায়েবকারী কথিত সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল নোমান। আসামিদের মধ্যে পাঁচ পুলিশ সদস্য কারাগারে থাকলেও নোমান এখনও পলাতক রয়েছেন। জাগো নিউজ


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

বিমানে আবুধাবি ও দুবাইগামী যাত্রীদের ‘করোনামুক্ত’ সনদ লাগবে

        সিলেট এক্সপ্রেস বাংলাদেশ থেকে ভুয়া...

দক্ষিণ সুরমা সাহিত্য পরিষদের সাহিত্য আড্ডা অনুষ্ঠিত

14       ভাষা আন্দোলনের মাসে ভাষা শহিদের...

আজ বিকেল ৩টা থেকে সাড়ে ৮টা পর্যন্ত স্টেডিয়াম মার্কেট বন্ধ থাকবে

        সিলেটে অনুষ্ঠিতব্য বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক...

ময়ূরপঙ্খী সমাজকল্যাণ অ্যাওয়ার্ড পাচ্ছেন সিলেটের ইমতিয়াজ কামরান তালুকদার

        সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতপ্রাপ্ত...