নির্ধারিত সময়েই চেম্বারের নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিলেন আসাদ

প্রকাশিত : ০৯ জুন, ২০১৯     আপডেট : ১ বছর আগে

সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের নবনিযুক্ত প্রশাসক আসাদ উদ্দিন আহমদ বলেছেন- সকলের সহযোগিতায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নির্ধারিত ১২০ দিনের মধ্যে সিলেটের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন সিলেট চেম্বারের নির্বাচন আয়োজন করতে চান।

তিনি বলেন- সিলেট চেম্বার একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। দেশ-বিদেশে রয়েছে সংগঠনটির সুনাম। কিন্তু বিগত দিনে চেম্বারের নির্বাচন নিয়ে সৃষ্ট দ্বন্দ্ব আদালতে গড়ানোয় সংগঠনের সুনাম অনেকটাই ক্ষুণ্ন হয়েছে। এই জটিল অবস্থায় চেম্বারের নির্বাচন করার জন্য আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। যারা চেম্বারের নির্বাচন নিয়ে আইনী চেষ্টা চালাচ্ছেন তাদের প্রতি অনুরোধ করে তিনি বলেন- আসুন সকলে মিলে একটি সুন্দর নির্বাচন উপহার দেই। আপনাদের যা কিছু বলার আছে আমাকে বলুন, সকলের মতামত নিয়েই আমি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নতুন নেতৃত্বের হাতে দায়িত্ব হস্তান্তর করতে চাই।

রবিবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সিলেট অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ শেষে এসব কথা বলেন আসাদ উদ্দিন আহমদ। সিলেট চেম্বারের সদ্য বিদায়ী সভাপতি খন্দকার শিপার আহমদের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব গ্রহণ করেন তিনি।

এসময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী। তিনি বলেন- গত কয়েক বছরে সিলেট চেম্বার ব্যবসায়ীদের স্বার্থ সংরক্ষণের পাশাপাশি বিভিন্ন সেক্টরে সিলেটের উন্নয়নে কাজ করেছে এবং দেশব্যপী সুনাম কুড়িয়েছে। আগামীতেও যারা নেতৃত্বে আসবেন তারাও এই ধারা অব্যাহত রাখবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

সদ্য বিদায়ী সভাপতি খন্দকার শিপার আহমদ বলেন- গত ২ বছর দায়িত্ব পালনে সিলেটের সকল মহলের সহযোগিতা পেয়েছেন। তবে আইনী নিষেধাজ্ঞার কারণে নির্বাচন আয়োজন করতে পারেননি। তবে আগামীতে নির্বাচনে আয়োজনে নবনিযুক্ত প্রশাসককে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।

বক্তব্য রাখেন- সিলেট প্রেসক্লাব ফাউন্ডেশনের সভাপতি আল আজাদ, জেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ দিদার আলম নবেল।

চেম্বারের বিগত কমিটির নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সিনিয়র সহ সভাপতি মাসুদ আহমদ চৌধুরী, সহ সভাপতি মো. এমদাদ হোসেন, পরিচালক মো. সাহিদুর রহমান, ওয়াহিদুজ্জামান ভুট্টো, মুশফিক জায়গীরদার, এহতেশামুল হক চৌধুরী, ফালাহ উদ্দিন আলী আহমদ, আব্দুর রহমান জামিল, মো. আতিক হোসেন ও মুজিবুর রহমান মিন্টু।

আরও পড়ুন