নাস্তিক্যবাদীরা নতুন প্রজন্মের ঈমান ধ্বংসের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে – খেলাফত মজলিস

প্রকাশিত : ১৩ জুলাই, ২০১৯     আপডেট : ১২ মাস আগে

চার্লস ডারউইনের বিতর্কিত ‘বিবর্তনবাদ’ বাংলাদেশের বিভিন্ন শ্রেনীর পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভূক্তি করে নতুন প্রজন্মকে নাস্তিক্যবাদের দিকে ধাবিত করার কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে খেলাফত মজলিসের আমীর অধ্যক্ষ¬¬ মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেছেন, ৯২ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশে নাস্তিক্যবাদের শিক্ষা কোন ভাবেই বরদাস্ত করা যায় না। সরকার ও প্রশাসনে ঘাপটি মেরে থাকা এক শ্রেণির নাস্তিক্যবাদীরা আমাদের নতুন প্রজন্মের ঈমান ধ্বংসের গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। শিক্ষার আধুনিকায়নের নামে ২০১৩ সাল থেকে নবম-দশম শ্রেণি থেকে শুরু করে মাস্টার্স পর্যন্ত পাঠ্যবইয়ে ডারউইনের ‘বিবর্তনবাদ’ শিক্ষাকে অন্তর্ভুক্ত করে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সংশয়বাদী ও নাস্তিক্যবাদী হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করা হচ্ছে। বিবর্তনবাদ মতে, সৃষ্টিকর্তার ধারণা ভিত্তিহীন। তাই বিবর্তনবাদ সৃষ্টিকর্তাকে স্বীকার করে না। পৃথিবীর প্রচলিত কোন ধর্মকেই স্বীকার করে না। এই বিবর্তনবাদের পাঠ দিতে গিয়ে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির সমাজ বিজ্ঞান বইয়ে বাংলাদেশের মুসলমান ছাত্র-ছাত্রীদেরকে পড়ানো হচ্ছে- ‘ধর্ম মানুষের চিন্তা- চেতনার ফসল’, যা মুসলমানের ধর্মীয় বিশ্বাসের উপরে চরম আঘাত। এ আঘাত এদেশের ধর্শ্রাণ জনগণ কোনভাবেই মেনে নিবে না।
বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, রাষ্ট্রের সংবিধানিক দায়িত্ব হচ্ছে- প্রতিটি নাগরিকের ধর্মীয় বিশ্বাস ও মূল্যবোধের চর্চাকে নিরাপদ রাখা অথচ পাঠ্যবইয়ে ৯২% মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীকে তাদের ধর্মীয় বিশ্বাসের বিরোধী বিষয় পড়তে শিক্ষাবোর্ড কী করে বাধ্য করার সুযোগ পেল- জাতিকে এর ব্যাখ্যা দিতে হবে। একজন মুসলমানকে মানব জাতির উদ্ভব মা হাওয়া ও বাবা আদম (আ.) থেকে- আবশ্যিকভাবে এই বিশ্বাস ধারণ করতে হয়। কিন্তু ডারউইনের বিবর্তনবাদের মতে, পৃথিবীর সবকিছুই প্রকৃতি থেকে সৃষ্টি হয়ে বিবর্তনের মাধ্যমেই বর্তমান অবস্থায় এসেছে। মানবজাতি ও বানরের পূর্বপুরুষ একই ছিল- এমন ঈমান বিরোধী শিক্ষা দেওয়ার অধিকার কোন শিক্ষাবোর্ড বা প্রতিষ্ঠানের থাকতে পারে না।
বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, বাংলাদেশের সকল শ্রেণির পাঠ্যপুস্তক হতে অবিলম্বে ডারউইনের বিবর্তনবাদ সম্পূর্ণ রূপে বাদ দিতে হবে। মুসলমানদের ঈমান বিধ্বংসী সকল কর্মকান্ড বন্ধ করতে হবে। মুসলমানদের ঈমান- আকীদা বিশ্বস বিরোধী ডারউইনের নাস্তিক্যবাদী মতবাদ তথা বিবর্তনবাদ সন্নিবেশিত করার সাথে জড়িত কুচক্রী মহলকে চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনতে হবে।

আরও পড়ুন