ধোপাদীঘির উন্নয়ন ও সংস্কার এগিয়ে চলেছে : ডিসেম্বরে কাজ শেষ হবে

,
প্রকাশিত : ২২ জুন, ২০২১     আপডেট : ১১ মাস আগে

সিলেট নগরীর ঐতিহ্যবাহী ধোপাদীঘির উন্নয়ন ও সংস্কার এগিয়ে চলেছে। আগামী ডিসেম্বরে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)-এর নির্বাহী প্রকৌশলী আলী আকবর।

তিনি জানান, ধোপাদীঘি সংস্কারের মাধ্যমে দীঘির শোভাবর্ধন হবে এবং নগরবাসী অবসরে স্বস্তির নি:শ্বাস ফেলতে পারবেন। ভারত সরকারের অর্থায়নে ধোপাদীঘি সংস্কারের উদ্যোগ নেয় সিটি করপোরেশন।

এ প্রকল্পে প্রায় ১২ কোটি টাকা ব্যয় হচ্ছে। তিনি জানান, নগরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত ধোপাদীঘি সংস্কারের মাধ্যমে সৌন্দর্যবর্ধনের এ উদ্যোগ নেয় সিসিক। এর অংশ হিসেবে ‘বিউটিফিকেশন অব ধোপাদিঘি’ নামের একটি প্রকল্পও গ্রহণ করা হয়। প্রকল্পের আওতায় দিঘীর চারপাশে নির্মাণ করা হচ্ছে ‘ওয়াক ওয়ে’।

সেখানে ওয়াকওয়ের পাশাপাশি কেবল দীঘি (ওয়াটার বডি) থাকবে। এছাড়া, সিটি কর্পোরেশনের অন্য একটি প্রকল্পের মাধ্যমে দীঘির বাইরে একটি অত্যাধুনিক মার্কেট নির্মাণ করা হচ্ছে। নগরীর বাসিন্দারা জানান, সিলেট নগরীর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত ধোপাদীঘির চারপাশে ছিল মনোরম পরিবেশ। তবে দখলদারদের দাপটের কারণে ৫ একর আয়তনের দীঘির অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন। দীঘির পশ্চিম পাশে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সীমানাপ্রাচীর এবং উত্তর দিকে ওসমানী শিশু উদ্যান রয়েছে। তাছাড়া দীঘির পূর্ব দিকে দখল নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আর দক্ষিণ প্রান্তে খোলা জায়গা রয়েছে। তবে পূর্ব এবং দক্ষিণ পাশে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাসা-বাড়ির বর্জ্য ও ময়লা আবর্জনা ফেলায় দীঘির পানিসহ পরিবেশ নষ্ট হয়ে গেছে। তাছাড়া, কচুরিপানায় ভর্তি দীঘির পানির রঙ কালচে ধারণ করে দুর্গন্ধ ছড়ায়। এসব কারণে এই দীঘির পানি ব্যবহারের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছিল। এ অবস্থায় দীঘিটি সংস্কারের পদক্ষেপ নেয় সিসিক।

একটি সূত্র জানায়, সংস্কারের অংশ হিসেবে ধোপাদীঘির মাঝখানে ভাসমান একটি রেস্টুরেন্টও নির্মাণের পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু, এ নিয়ে পরিবেশবাদীরা আন্দোলন গড়ে তুলেন। ফলে রেস্টুরেন্ট নির্মাণের পরিকল্পনা থেকে সরে আসে সিসিক।

নগরীর বাসিন্দারা জানান, দীঘির শহর নামে এককালে পরিচিত ছিল সিলেট। কিন্তু, শহরটি এখন প্রায় দীঘিহীন। অপরিকল্পিত নগরায়নের ফলে ভূমিখেকো চক্রের কবলে সবকটি দীঘি হারিয়েছে তার চিহ্ন। গড়ে উঠেছে উঁচু দালান-কোঠা। তবে এসবের মাঝেও টিকে রয়েছে কয়েকটি দীঘি। এর মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে ধোপাদীঘি। কিন্তু দখলবাজি আর কর্তৃপক্ষের অবহেলায় এতদিন ধরে বেহাল অবস্থা হয়ে পড়েছিলো ঐতিহ্যবাহী এই দীঘি।

পরিদর্শনে প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী
এদিকে, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি গতকাল সোমবার এ উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শন করেন। সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ধোপাদিঘী উন্নয়ন প্রকল্প ঘুরে দেখান। এসময় মন্ত্রী সিলেটের উন্নয়ন নিয়ে মেয়রকে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন।

ধোপাদীঘি পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম, সিসিকের প্রধান প্রকৌশলী মো. নূর আজিজুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আলী আকবর সহ সিসিকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ।


আরও পড়ুন

ভাতালিয়ায় অর্ধশত শিশুকে বিনামূল্যে খৎনা

 সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: সিলেট ভাতালিয়ায়...

সম্পর্কের সম্পাদ্য

 খান জাহাঙ্গীর: পরিচিত লোকের সাথে...

সিলেটে ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্র খুন

 সিলেট নগরীর হাউজিং এস্টেটে প্রতিপক্ষের...