দেড়শো বছর পর যুক্তরাস্ট্রে আরেক মেমোরিয়াল ডে-র অপেক্ষা

প্রকাশিত : ২৩ মে, ২০২০     আপডেট : ৩ মাস আগে

এমদাদ চৌধুরী দীপু(২২মে,২০২০ইং নিউইয়র্ক)
দেড়শো বছর পর আরেক মেমোরিয়াল ডে র অপেক্ষায় যুক্তরাস্ট্রবাসী। ১৮৬৮ সালে জনযুদ্বে নিহত সেনাদের স্মরণে প্রতি বছর মে মাসের শেষ সোমবার পালন করা হয় মেমোরিয়াল ডে। তিনদিনের জন্য পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। আজ শুক্রবার থেকে এটি শুরু করার কথা বলেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এদিকে হাউজলীডার ডেমক্রেটনেত্রী ন্যান্সিপ্যালসি করোনায় একলাখ মানুষের মৃত্যু অতিক্রম করার দিন তাদের স্মরনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে রাখার দাবী জানিয়েছেন।

মেমোরিয়াল ডে উপলক্ষে নিহতদের স্মরনে ফুলেল শ্রদ্বাসহ পতাকা শোভিত করা হয় নিহতদের কবর।যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনে প্যারেড,শোভাযাত্রাসহ নানা কর্মসূচীর মাধ্যমে নিহতদের স্মরন করে শ্রদ্বা ও সম্মান জানান আমেরিকাবাসী। তবে এবার আরো একটি মেমোরিয়াল ডের অপেক্ষায় রয়েছেন আমেরিকাবাসী।

অদৃশ্য এক শক্রুর সাথে লড়াইয়ে এবার লক্ষ প্রানের মৃত্যুর খবর শিরোনাম হতে পারে তিনদিন ব্যাপী মেমোরিয়াল ডের আনুষ্টানিকতার মাঝেই। বৈশ্বিক মহামারী করোনায় যুক্তরাস্ট্রে মৃত্যু ৯৬হাজার ৩৫৪ অতিক্রম করেছে। ৩/৪দিনের মধ্যে এই সংখ্যা ্একলাখে পৌছবে বলে ধারনা করছেন পর্যবেক্ষকরা।যুক্তরাস্ট্রে বৃহস্পতিবার নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ হাজার,ওয়ার্ল্ডোমেটারের তথ্যমতে এখন মোট শনাক্ত ১৬লাখ ২০ হাজার,সুস্থ হয়েছেন ৩লাখ ৮২ হাজার এর উপরে।
বৈশ্বিক করোনায় শুধু একলাখ মানুষের মৃত্যু হবে কিংবা সেটি আগস্ট পর্যন্ত দেড়লাখে যেতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। এদিকে যুক্তরাস্ট্রে এ পর্যন্ত কর্মহীন হয়ে পড়েছেন চারলাখ মানুষ। বন্ধ রয়েছে পর্যটন ব্যবসা,আমদানী রপ্তানী কমে এসেছে। থমকে আছে রাজস্ব আদায়,দেউলিয়া হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে ব্যাংকিং সেক্টরে,সবমিলে এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে সুপারপাওয়ার যুক্তরাস্ট্র। দেশের অর্থনীতি চালু করার জন্য ক্ষমতাসীন দল রেপাবলিকানরা চান লকডাউন তুলে দিয়ে আমেরিকাকে রিওপেন করতে এদিকে ডেমক্রেটরা চাচ্ছেন করোনা পরিস্থিতি পুরোপুরী নিয়ন্ত্রনে না আসা পর্যন্ত লক ডাউন অব্যাহত রাখা।
করোনা পরিস্থিতি নিউইয়র্ক স্টেইটে উন্নতি হচ্ছে গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন মাত্র ৬৯জন,আক্রান্ত হয়েছেন ২হাজার ৮৪০জন। আবার বেড়েছে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা। এদিকে যে সব স্টেইটে লকডাউন তুলে দেয়া হয়েছিল সেইসব রাজ্যে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে । জুনের মাঝামাঝি নিউইয়র্ক এর লকডাউন তুলে দেয়ার আভাস দিয়েছেন মেয়র ডি ব্লাজিও এবং গভর্নর ্এ্যান্ডো কোমো। যুক্তরাস্ট্রের প্রতিটি ঘরে বর্তমানে একজন করে বেকার রয়েছেন বলে এক পরিসংখ্যানে জানা গেছে। এমন বাস্তবতায় ৩১ জুলাই পর্যন্ত নিশ্চিতভাবে আনএমপ্লয়মেন্ট ভাতাপাওয়া যাবে বলে নিশ্চিত হলেও এর পর বেকার ভাতা বন্ধ করতে চায় রিপাবলিকানরা। এদিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে কোন পরিস্থিতিতে অর্থনীতি সচল করতে আমেরিকা রিওপেন করতে চান। করোনা ভাইরাস থেকে আমেরিকাকে মূক্ত করতে ৩শ মিলিয়ন ভেক্সিন ক্রয় করতে চায় যুক্তরাস্ট্র। এই ভেকসিন যুক্তরাজ্য থেকে ক্রয় করার খবর দিয়েছে বিভন্ন গণমাধ্যম।
সর্বশেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী নিউইয়র্কসহ যুক্তরাস্ট্রে ঈদ জামাতের কোন সম্ভাবনা নেই বলে আবারো নিশ্চিত করা হয়েছে, যদি শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত ব্যতিক্রম কিছু না ঘটে।

আরও পড়ুন