দক্ষিণ সুরমা, গোলাপগঞ্জ ও ছাতকে নারীসহ তিন খুন

প্রকাশিত : ২৫ জুলাই, ২০১৯     আপডেট : ১২ মাস আগে

দক্ষিণ সুরমার আলমপুর, গোলাপগঞ্জ ও সুনামগঞ্জের ছাতকে পৃথক তিনটি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে আলমপুরে সহপাঠীদের হামলায় এক প্রশিক্ষণার্থী, গোলাপগঞ্জে স্বামীর হাতে স্ত্রী এবং ছাতকে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে এক যুবক প্রাণ হারান। দক্ষিণ সুরমায় বুধবার সন্ধ্যায় এবং মঙ্গলবার রাতে অন্য দুটি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।
নগরীর দক্ষিণ সুরমার আলমপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রশিক্ষণার্থীর হামলায় এক প্রশিক্ষণার্থী খুন হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় আলমপুরস্থ সিলেট কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সামনে। নিহত প্রশিক্ষণার্থী গোলাপগঞ্জ উপজেলার হেতিমগঞ্জের কোনাচর দক্ষিণভাগ পলিকাপন গ্রামের মানিক মিয়ার পুত্র তানভীর হোসেন তুহিন (২০)। এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে।
নিহতের সহপাঠীরা জানান, সিলেট কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে তুহিন কম্পিউটার বিষয়ের নিয়মিত প্রশিক্ষণার্থী ছিলো। প্রতিদিনের ন্যায় গতকাল বুধবার সকালে তুহিন কম্পিউটার প্রশিক্ষণে যায়। প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নির্ধারিত স্থানে তার জুতা রেখে কম্পিউটার ল্যাবে প্রবেশ করে। এক পর্যায়ে তুহিন কম্পিউটার ল্যাব থেকে বের হয়ে দেখে তার জুতা নেই। কিছুক্ষণ পর সে দেখতে পায় তার হারানো জুতা কামরান নামের একজন প্রশিক্ষণার্থীর পায়ে। এ সময় তুহিন তাকে বলে তোমার পায়ের জুতা আমার। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে বিষয়টি প্রশিক্ষকদের কানে গেলে তারা জুতা তুহিনের বলে বিষয়টি মীমাংসা করে দেন।
এরপর তুহিন কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্র থেকে বের হয়ে আসার সময় কামরান আরো কয়েকজন যুবককে সাথে নিয়ে তুহিনের উপর হামলা চালায়। হামলায় তুহিন গুরুতর আহত হয়। আহত তুহিনকে তার সহপাঠীরা উদ্ধার করে সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে দুপুরে তাকে উন্নত চিকিৎসার লক্ষ্যে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঢাকা নিয়ে যাওয়ার পথে সন্ধ্যা ৬টায় দিকে সে মারা যায়।
মোগলাবাজার থানার ওসি আখতার হোসেন জানান, সিলেট কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে তানভীর হোসেন তুহিনের সাথে জুতা নিয়ে অন্য এক প্রশিক্ষণার্থী কামরানের বাকবিতন্ডা হয়। এর জের ধরে কামরান কয়েকজনকে সাথে নিয়ে তুহিনের উপর হামলা চালায়। এ ঘটনা কদমতলী এলাকার আব্দুল আলীম এর ছেলে আবু কুদরত তায়েফকে আটক করা হয়েছে।
গোলাপগঞ্জ থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা মাহফুজ আহমদ চৌধুরী জানান, গোলাপগঞ্জে ষাটোর্ধ্ব এক বৃদ্ধের বিরুদ্ধে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। সকালে নিহত মিনারা বেগম (৫০) এর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে তার স্বামী সুন্দর খাঁ (৬০) কে। সুন্দর খা উপজেলার পৌর এলাকার নুরুপাড়া গ্রামে বাসিন্দা। এ ঘটনায় মা কে হত্যার দায়ে বাবার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুত্র।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে নুরুপাড়া গ্রামের সুন্দর খাঁর সাথে তার স্ত্রী মিনারা বেগমের কথা কাটাকাটি হয়। এর পর তারা উভয়ে ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। তাদের ছেলে তারেক আহমদ বাড়িতে ছিলেন না। পরের দিন গতকাল বুধবার সকাল বেলা তারেক আহমদকে তার বাবা মুঠোফোনে জানান তার মা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। খবর শুনে ছেলে বাড়িতে আসলে বাবার আচরণে সন্দেহ হয়। পরে তাৎক্ষণিক বিষয়টি গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।
গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, পুলিশ প্রাথমিকভাবে এটি হত্যা বলে ধারণা করছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসলে নিশ্চিত হওয়া যাবে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী সুন্দর খাঁ (৬০) কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।
ছাতকে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে মেহেদী হাসান রাব্বী(২২) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ছাতক সিমেন্ট কারখানার ৪নং এলাকায় ডেকে নিয়ে তাকে ছুরিকাঘাত করে প্রতিপক্ষরা। ঐ দিন গভীর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন রাব্বী। নিহত মেহেদী হাসান রাব্বী শহরের নোয়ারাই এলাকার আলমগীর হোসেনের পুত্র।
পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, প্রতিপক্ষের লোকজন মঙ্গলবার সন্ধ্যারাতে কারখানার ৪নং এলাকায় ডেকে নেয় মেহেদী হাসান রাব্বীকে। সেখানে আকস্মিকভাবে মেহেদী হাসান রাব্বীকে উপুর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতেই তার মৃত্যু ঘটে । পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ঘটনাটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ছাতক থানার ওসি মোস্তফা কামাল এ ব্যাপারে জানান, ঘটনার খবর তিনি পেয়েছেন। অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য ডা. মোর্শেদ

সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য...

মে দিবসের প্রচার মিছিলে হামলার নিন্দা

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: সিলেট জেলা...