দক্ষিণ সুনামগঞ্জে গোয়াল ঘরে কিশোরীকে ধর্ষণ: গ্রেফতার ২

প্রকাশিত : ২৩ জুলাই, ২০২০     আপডেট : ২ মাস আগে
  • 7
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    7
    Shares

সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জর পাথারিয়া ইউনিয়নের শ্রীনাথপুর গ্রামে ১৩ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তি ও তার মাকে গ্রেপ্তার করেছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ।

বুধবার (২২ জুলাই) ভোর রাতে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশের এসআই জহিরুল ইসলাম তালুকারের নেতৃত্বে শ্রীনাথপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে ধর্ষক ফিরোজ মিয়া ও ধর্ষকের মা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী উসাইমা বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ফিরোজ মিয়া শ্রীনাথপুর গ্রামের মৃত আকিল মিয়ার ছেলে ও উসাইমা বেগম মৃত আকিল মিয়ার স্ত্রী।

গত ৭ জুলাই মঙ্গলবার রাতে শ্রীনাথপুর গ্রামের জনৈক মনির মিয়ার গোয়াল ঘরে ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, ভিকটিম কিশোরীর মা একজন সৌদি আরব প্রবাসী হওয়ায় কিশোরী (১৩) ও তার ছোট বোন (১২) কে নিয়ে নিজ বসত ঘরে বসবাস করে আসছিল। প্রতিবেশী মৃত আকিল মিয়ার ছেলে দুই সন্তানের জনক ফিরোজ মিয়া ঐ রাতে কিশোরীকে বসত ঘর থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় গামছা দিয়ে মুখ বেঁধে পার্শ্ববর্তী শ্রীনাথপুর গ্রামের জনৈক মনিরের গোয়ালঘরে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

ভিকটিম কিশোরীর মামা জানান, ধর্ষণের ঘটনার পর স্থানীয় কিছু লোকজন টাকা দিয়ে ঘটনা মিটমাট করতে চেয়েছিল এবং মামলা মোকদ্দমা না করার জন্য বলেছিল। আমি ও আমার ভাগ্নি আপোষে রাজি হয়নি।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশের এসআই জহিরুল ইসলাম তালুকদার ও তদন্তকারী অফিসার জানান, এই ঘটনায় ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি ফিরোজ মিয়া ও তার মা উসাইমা বেগমকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় কিশোরী ভিকটিমের মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।


  • 7
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    7
    Shares

আরও পড়ুন

আত নির্ভরশীল ব্যাবসায়ি হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যান নারীরা মেয়র আরিফ

         সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল...

৪০০ মানুষের মাঝে ২৪ নং ওয়ার্ড যুবলীগের ইফতার বিতরন

         সিলেট মহানগর যুবলীগের অন্তর্ভুক্ত ২৪...

বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পেল হাজারো শিক্ষার্থী

         বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত...

জিন্দা দৈত্য ও বাবার দরবার

         এম. আশরাফ আলী : ফুলমতি...